বুধবার, ০৬ জুলাই ২০২২, ২২ আষাঢ় ১৪২৯, ০৬ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

মুত্তাকি হতেই রোজার বিধান

খুৎবা-পূর্ব বয়ান

শামসুল ইসলাম | প্রকাশের সময় : ২৭ মার্চ, ২০২২, ১২:১২ এএম

মহান আল্লাহ তা‘আলা ইরশাদ করেন, ‘হে মুমিনরা, তোমাদের ওপর রোজার বিধান দেয়া হয়ছে যেমন তোমাদের পূর্ববর্তীদের জন্যও দেয়া হয়েছিল, যাতে করে তোমরা মুত্তাকি হতে পার’। রসূলে কারীম সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, ‘নিশ্চয় আল্লাহ তা‘আলা মুমিনের জন্য রমজান মাসের রোজা ফরজ করেছেন এবং কিয়ামুল লাইল তথা তারাবীহ নামাজকে সুন্নাহ সাব্যস্ত করেছেন। গতকাল জুমার খুৎবা-পূর্ব বয়ানে খতীব সাহেবরা এসব কথা বলেন। নগরীর মসজিদগুলোতে জুমার নামাজে মুসল্লিদের উপচে পড়া ভিড় পরিলক্ষিত হয়।

বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের পেশ ইমাম মুফতি এহসানুল হক জীলানী গতকাল জুমার খুৎবা-পূর্ব বয়ানে আসন্ন মাহে রমজানের গুরুত্ব তুলে ধরে বলেন, আল্লাহ তা‘আলা ইরশাদ করেন, ‘হে মুমিনরা, তোমাদের ওপর রোজার বিধান দেয়া হয়ছে যেমন তোমাদের পূর্ববর্তীদের জন্যও দেয়া হয়েছিল যাতে করে তোমরা মুত্তাকি হতে পার’। রসূলে কারীম সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, ‘নিশ্চয় আল্লাহ তা‘আলা মুমিনের জন্য রমজান মাসের রোজা ফরজ করেছেন এবং কিয়ামুল-লাইল তথা তারাবীহ নামাজকে সুন্নাহ সাব্যস্ত করেছেন। সুতরাং যে ব্যক্তি ঈমানের সাথে এবং সাওয়াবের আশায় রমজানুল মোবারকের রোজা রাখবে এবং কিয়ামুল লাইল তথা তারাবীহ নামাজ আদায় করবে তার পূর্বকৃত সকল গুনাহ ক্ষমা করে দেয়া হবে’।

পেশ ইমাম বলেন, পবিত্র রমজান মাস সমস্ত মাসের মধ্যে শ্রেষ্ঠতম মাস, সবচেয়ে বেশি ফজিলতের মাস, সবচেয়ে বেশি সওয়াব অর্জনের মাস। রমজান মাস মুসলমানদের সাওয়াব অর্জন করার সিজন, ব্যবসায়ীদের যেমন ব্যবসার সিজন থাকে, যখন তাদের ব্যবসা খুব বেশি হয় মুনাফা বেশি হয় তদ্রুপ মুমিনের জন্য রমজান মাস হল সাওয়াব অর্জনের সিজন। যখন একটা নফল ইবাদতের সওয়াব একটা ফরজ সমতুল্য হয়ে যায়, একটা ফরজের সাওয়াব ৭০টা ফরজের সমান হয়ে যায়। এজন্যই আমাদেরকে মানসিকভাবে রমজানুল মোবারকের রোজাসহ আরো অন্যান্য ইবাদত বন্দেগি সঠিকভাবে আদায় করার জন্য হিম্মত রাখতে হবে। আল্লাহ তা‘আলা আমাদেরকে রমজানুল মোবারকের রোজাগুলো এবং তারাবীহের নামাজ, কোরআনুল কারিমের তেলাওয়াতসহ আরো অন্যান্য ইবাদত বন্দেগি সঠিকভাবে আদায় করার তৌফিক দান করুন। আমিন।

গুলিস্তান ফুলবাড়িয়া রেলওয়ে জামে মসজিদের খতিব মাওলানা মুহিউদ্দীন রাব্বানী গতকাল জুমার বয়ানে বলেন, আসন্ন রমজান মাসেই বিশ্ববাসীর মুক্তির সনদ কোরআন মজীদ একত্রে লাওহে মাহফূয থেকে প্রথম আসমানে বাইতুল ইযযতে অবতীর্ণ হয় এবং রাসূলে কারীম সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নিকট সর্বপ্রথম এ মাসেই ওহী অবতীর্ণ হয়। কোরআন মজীদে ইরশাদ হয়েছে ‘রমজান মাসই হল সেই মাস যাতে নাযিল করা হয়েছে কোরআন, যা মানুষের জন্য হেদায়াত এবং সত্য পথযাত্রীদের জন্য সুস্পষ্ট পথনির্দেশ। (সূরা বাকারা ১৮৫)। কোরআন অবতরণের এ মাসে আমাদের অন্যতম প্রধান কর্তব্য হচ্ছে, কোরআন তেলাওয়াতের ব্যাপারে সর্বোচ্চ গুরুত্বারোপ করা। হাদীস শরীফে এসেছে, ‘হযরত জিবরীল (আ.) রমজানের শেষ পর্যন্ত প্রত্যেক রাতে রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সাথে সাক্ষাত করতেন এবং তাঁকে কোরআন মাজীদ শোনাতেন।’ (সহীহ বুখারী, হাদীস ১৯০২)। অতএব আমাদের প্রত্যেকের উচিত রমজানে অধিক পরিমাণে কোরআন তেলাওয়াত করা।

সাভার উপজেলা মডেল মসজিদের খতিব হাফেজ মাওলানা মুফতি মারুফ বিল্লাহ গতকাল খুৎবা-পূর্ব বয়ানে বলেন, স্বাধীনতা ও বিজয় দিবস আল্লাহ তা‘আলার পক্ষ থেকে আমাদের জন্য বড় নেয়ামত। ‘আল্লাহ তা‘আলা বলেন, কোনো জাতি যতক্ষণ তাদের অবস্থার পরিবর্তন করে না, ততক্ষণ আল্লাহ তাদের অবস্থার পরিবর্তন করেন না’। (সূরা রাআদ, আয়াত -১১) এ সম্পর্কে মুহাম্মাদুর রসূলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, ‘নিজের সম্পদ রক্ষা করতে যেয়ে যে নিহত হয় সে শহীদ, নিজের পরিবার পরিজন রক্ষা করতে যে নিহত হয় সে শহীদ। নিজের প্রাণ বা ধর্ম রক্ষা করতে যে নিহত হয় সে শহীদ’। (তিরমিযী ৪/৩০,আবু দাউদ-৪/২৪৬)। স্বাধীনতা যুদ্ধে যারা শহীদ হয়েছেন এবং যেসব বীর মুক্তিযোদ্ধারা এখনো জীবিত আছেন আল্লাহ রব্বুল আলামিন তাদের সকলকে দুনিয়া ও আখেরাতে উত্তম প্রতিদান দান করুন। আমিন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps