সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১৩ আষাঢ় ১৪২৯, ২৬ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

বধির হাজিদের সুবিধায় ‘সাইন ল্যাঙ্গুয়েজ’

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২২ এপ্রিল, ২০২২, ১২:১৩ পিএম

শ্রবণ প্রতিবন্ধীদের হজ্জ পালনের সুবিধার্থে বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে সৌদি আরব কর্তৃপক্ষ। শ্রবণ প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের খুতবা বোঝার সুবিধার্থে প্রণয়ন করা হয়েছে সাংকেতিক ভাষা। মক্কা এবং মদিনা শরিফে বিশেষ কক্ষের মাধ্যমে এ আয়োজন করা হয়েছে।

অন্যান্য মানব ভাষার মতো এটি সৌদি বধির সম্প্রদায়ের মাধ্যমে বিকশিত এবং সমৃদ্ধ হয়েছে। সৌদি সাংকেতিক ভাষায় শ্রবণ প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা পবিত্র কোরআন মুখস্ত করতে এবং তেলাওয়াত করতে শিখতে পারে।

সৌদি আরবের প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য পরিষেবা অধিদপ্তর জানিয়েছে, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের সেবা করার জন্য বরাদ্দ দেয়া হয়েছে একটি বিশেষ কক্ষ। ১০০ জন ধারণ ক্ষমতার কক্ষটিতে সাংকেতিক ভাষায় প্রশিক্ষিত কর্মীরা শ্রবণ প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য শুক্রবারের খুতবা এবং বক্তৃতা ব্যাখ্যা করবেন।

আরব নিউজকে দেয়া সাক্ষাতকারে মসজিদে নববীর সাংকেতিক ভাষা অনুবাদক ডক্টর খালিদ বিন সুলাইমান আল-থুকাইর বলেন, মসজিদে নববীর ছাদে একটি বিশেষ কক্ষের মাধ্যমে সমগ্র বিশ্ব থেকে আগত বধির মানুষের জন্য খুতবার ব্যবস্থা করা হয়েছে। সাংকেতিক খুতবাটি সারা বিশ্বের বধির মুসলমানদের জন্য সম্প্রচারও করা হবে।

আল-থুকাইর আরও বলেন, ‘‘বিশ্বজুড়ে প্রায় ২০ মিলিয়ন বধির মুসলমান সাংকেতিক খুতবা থেকে উপকৃত হবে। আগে শ্রবণ প্রতিবন্ধীরা শুধুমাত্র জুমার নামাজ থেকে উপকৃত হত।’’

তার মতে, দোভাষীর জন্য সবচেয়ে বড় অর্জন হল শ্রবণ-প্রতিবন্ধীদের ওপর তাদের অনুবাদের প্রভাব দেখা। আল-থুকাইর দাবি করেন, অনুবাদকরা ৭০ থেকে ৯০ শতাংশ বিষয়বস্তু বধিরদের কাছে পৌঁছে দিতে সফল হন।

সাংকেতিক ভাষায় বিশেষজ্ঞ ভাষাবিদ মারাম আল-জুয়েদ বলেন, ‘‘সাংকেতিক ভাষা কেবল হাত দিয়ে এলোমেলো নড়াচড়া নয়, বরং একটি ভাষাগত ব্যবস্থা যা প্রতীকগুলির সমন্বয়ে গঠিত যা শব্দ, ধারণা বা ভাষার ধারণাগুলিকে প্রতিনিধিত্ব করে।’’

তিনি জানান, অনুবাদক তথ্য বিশ্লেষণ করেন এবং এটিকে সরলীকরণ করেন। আরবি ভাষায় প্রায় ১২ মিলিয়ন শব্দ রয়েছে, যেখানে সাইন ল্যাঙ্গুয়েজ ২০ হাজার শব্দের বেশি নয়।

আল-জুয়েদ আরও উল্লেখ করেন, সৌদি সাইন ভাষা একটি স্বতন্ত্র ভাষা এবং কথ্য আরবি ভাষার অনুবাদ নয়। এটির একটি নির্দিষ্ট ব্যবস্থা রয়েছে যা এটিকে কথ্য ভাষা থেকে আলাদা করে। অন্যান্য মানব ভাষার মতো এটি সৌদি বধির সম্প্রদায়ের মাধ্যমে বিকশিত এবং সমৃদ্ধ হয়েছে। সৌদি সাংকেতিক ভাষায় শ্রবণ প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা পবিত্র কোরআন মুখস্ত করতে এবং তেলাওয়াত করতে শিখতে পারে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps