মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ১৪ আষাঢ় ১৪২৯, ২৭ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

রুবলে গ্যাসের দাম দিতে শুরু করেছে ইউরোপের কিছু দেশ

শর্ত ছাড়াই মারিউপোলে আটক বেসামরিকদের মুক্তি দিতে বললেন পুতিন কিয়েভের জন্য ৩৩ বিলিয়ন ডলার দেয়ার পরিকল্পনা বাইডেনের ইউক্রেনের হয়ে যুদ্ধ করতে গিয়ে সাবেক মার্কিন সেনা নিহত কৃষ্ণ সাগর

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১ মে, ২০২২, ১২:০৩ এএম

কিছু ইউরোপীয় দেশের ব্যবসায়ীরা রুশ মুদ্রা রুবলে গ্যাস বিক্রির জন্য রাশিয়াকে অর্থ দিতে শুরু করেছে, যখন বড় ক্লায়েন্টরা এখনও তা করতে পারেনি। বৃহস্পতিবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বিষয়টির সাথে পরিচিত দুটি সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে। এদিকে, শর্ত ছাড়াই মারিউপোলে আটক বেসামরিকদের মুক্তি দিতে বলেছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন।

‘ইউরোপের বেশ কিছু দেশের ব্যবসায়ী, সম্ভবত পাঁচটিরও বেশি, গ্যাসের জন্য রুবলে অর্থপ্রদান শুরু করেছে,’ একটি সূত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছে কারণ তাদের মিডিয়ার সাথে কথা বলার অনুমতি দেয়া হয়নি। কারণ, পুতিন ঘোষণা দিয়েছিলেন যে, তিনি যে দেশগুলিকে ‘বন্ধুত্বহীন’ বলে অভিহিত করেছেন তাদের অবশ্যই রুবলে গ্যাসের জন্য অর্থ প্রদান করতে হবে বা কেটে দিতে হবে। রাশিয়ার নতুন পেমেন্ট সিস্টেমের অধীনে, ক্রেতারা গ্যাজপ্রমব্যাঙ্কে একটি অ্যাকাউন্টে ইউরো বা ডলার জমা করতে বাধ্য, যা পরে সেগুলোকে রুবলে রূপান্তর করতে হবে, বিদেশী ক্রেতার মালিকানাধীন অন্য অ্যাকাউন্টে আয় রাখতে হবে এবং রাশিয়ান মুদ্রায় পেমেন্ট গ্যাজপ্রমে স্থানান্তর করতে হবে।

মস্কো ইউক্রেনে তার ‘বিশেষ সামরিক অভিযান’ শুরু করার পরে রাশিয়ার বিরুদ্ধে পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞার প্রতিক্রিয়া হিসাবে এই স্কিমটি ডিজাইন করা হয়েছিল। গ্যাজপ্রম এবং গ্যাজপ্রমব্যাঙ্ক বৃহস্পতিবার মন্তব্যের জন্য অনুরোধের জবাব দেয়নি। ইউরোপীয় কমিশন রুবেলে অর্থ প্রদানের দাবিতে মস্কোর বিরুদ্ধে ব্ল্যাকমেল করার অভিযোগ করেছে তবে গত সপ্তাহে জারি করা একটি পরামর্শমূলক নোটে কমিশন বলেছে, রাশিয়ান গ্যাসের ক্রেতারা যদি ইউরো জমা দেয়ার পরে অর্থ প্রদান সম্পূর্ণ হয়েছে তা নিশ্চিত করতে পারে তবে তারা স্কিমে অংশ নিতে পারে, পরবর্তীতে যখন ইউরো রুবলে রূপান্তরিত হয় তার বিপরীতে।

রাশিয়া বুধবার পোল্যান্ড এবং বুলগেরিয়াতে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করে দিয়েছে যখন তারা পুতিনের দ্বারা নির্ধারিত নতুন ব্যবস্থার অধীনে রুবল দিতে অস্বীকার করেছে। রুবলে পেমেন্টের স্কিম সম্পর্কে গ্যাজপ্রমের গ্যাসের শীর্ষ গ্রাহকদের কাছ থেকে মিশ্র সংকেত পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার তিনটি সূত্র জানিয়েছে যে, ইতালীয় শক্তি গ্রুপ এনি রাশিয়া যে অর্থপ্রদানের প্রকল্প চালু করেছে সে সম্পর্কে এখনও কোনও সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি এবং তারা বিষয়টি নিষেধাজ্ঞা লঙ্ঘন হবে কিনা সে বিষয়ে স্পষ্টতার জন্য অপেক্ষা করছে। ইউনিপার, জার্মানির রাশিয়ান গ্যাসের প্রধান আমদানিকারক, সোমবার বলেছে যে, ইউরোপীয় ইউনিয়নের নিষেধাজ্ঞা লঙ্ঘন না করে ভবিষ্যতে সরবরাহের জন্য অর্থ প্রদান করা সম্ভব হবে। যদিও পরে বলা হয়েছে, কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। হাঙ্গেরি বলেছে যে, তারা রাশিয়ান গ্যাসের জন্য ইউরোতে গ্যাজপ্রমব্যাঙ্কের মাধ্যমে অর্থ প্রদানের পরিকল্পনা করেছে, যা নতুন প্রয়োজনীয়তা মেটাতে রুবলে রূপান্তর করবে।

এদিকে, ক্রেমলিন মারিউপোলের আজোভস্টাল প্ল্যান্টের আশেপাশের পরিস্থিতিতে কোনও আলোচনার ব্যাপার দেখছে না বলে জানিয়েছে। কারণ, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিন ইতিমধ্যেই বলেছেন যে, বেসামরিক লোকেরা প্ল্যান্ট থেকে অবাধে বেরিয়ে যেতে পারে। তবে যোদ্ধাদেরকে তাদের অস্ত্র জমা দিতে হবে। ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ বৃহস্পতিবার বলেছেন। তিনি ইউক্রেনের রাষ্ট্রপতি ভলোদিমির জেলেনস্কির মন্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় এই মন্তব্য করেছেন যে, কিয়েভ আজভস্টাল থেকে লোকজনকে সরিয়ে নেয়ার বিষয়ে তাৎক্ষণিক আলোচনার জন্য প্রস্তুত। ‘প্রেসিডেন্ট এটা বেশ স্পষ্ট করে বলেছেন: বেসামরিক লোকেরা বেরিয়ে আসতে এবং তাদের ইচ্ছামত যে কোন জায়গায় চলে যেতে পারে। তবে জঙ্গিদের অবশ্যই তাদের অস্ত্র জমা দিতে হবে এবং প্রস্থান করতে হবে। তাদের জীবন রক্ষা করা হবে। সকল আহত এবং অসুস্থদের চিকিৎসা সহায়তা প্রদান করা হবে,’ পেসকভ বলেছেন, ‘এই ক্ষেত্রে আলোচনা করার কি আছে?’

জেলেনস্কি জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের সাথে আলোচনার পর বৃহস্পতিবার আজভস্টাল থেকে লোকদের সরিয়ে নেওয়ার বিষয়ে আলোচনার জন্য কিয়েভের প্রস্তুতির কথা জানিয়েছেন। মঙ্গলবার, গুতেরেস মস্কোতে পুতিনের সাথে আলোচনা করেন। বৈঠকের পরে রাশিয়ান প্রেসিডেন্ট বলেছেন যে, সমস্ত বেসামরিক নাগরিক, যদি তারা সত্যিই আজভস্টালে উপস্থিত থাকে, তবে তারা বেরিয়ে যাওয়ার ব্যপারে স্বাধীন, এবং ইউক্রেনীয় সেনাদের অবশ্যই তাদের যেতে দেয়া উচিত।

প্রেসিডেন্ট উল্লেখ করেছেন যে, মারিউপোল থেকে রাশিয়ান মানবিক করিডোরগুলি সক্রিয় রয়েছে এবং প্রায় ১ লাখ ৩০ থেকে ৪০ হাজার মানুষ ইতিমধ্যে সেগুলি ব্যবহার করেছে এবং তারা যেখানে খুশি সেখানে যেতে পেরেছে - হয় রাশিয়া বা ইউক্রেনে। পুতিনের মতে, বেসামরিক নাগরিকরা যদি সত্যিই আজভস্টালে উপস্থিত থাকে, তবে তাদের মানব ঢাল হিসাবে ধরে রাখা ইউক্রেনের জাতীয়তাবাদী ব্যাটালিয়নের জন্য যুদ্ধাপরাধ হবে। পুতিন আরও বলেছেন যে, ইউক্রেনের সেনাসদস্যরা যারা ইতিমধ্যে তাদের অস্ত্র জমা দিয়েছেন তাদের উপযুক্ত পরিস্থিতিতে রাখা হয়েছে এবং প্রয়োজনে চিকিৎসা সহায়তা পাবেন। তিনি বলেছিলেন যে, রাশিয়া জাতিসংঘ এবং আন্তর্জাতিক রেড ক্রসকে এই যুদ্ধবন্দীদের কাছে অ্যাক্সেস দেয়ার জন্য প্রস্তুত।

কিয়েভের জন্য ৩৩ বিলিয়ন ডলার দেয়ার পরিকল্পনা : প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বৃহস্পতিবার মার্কিন কংগ্রেসকে ইউক্রেনের জন্য অস্ত্র ও অন্যান্য সহায়তা প্রদানে ৩৩ বিলিয়ন ডলার তহবিল দেয়ার প্রস্তাব সমর্থন করতে বলেছেন। বৃহস্পতিবার হোয়াইট হাউসে বক্তৃতা প্রদানকালে বাইডেন আক্রমণকারী রাশিয়ানদের দ্বারা ধ্বংসের জন্য ইউক্রেনকে ক্ষতিপূরণ দিতে অভূতপূর্ব নিষেধাজ্ঞার অধীনে রাশিয়ান অলিগার্কদের কাছ থেকে ছিনিয়ে নেয়া বিলাসবহুল সম্পদ ব্যবহার করার অনুমতি দেয়ার জন্য প্রস্তাবিত নতুন আইনের রূপরেখাও তুলে ধরেন।

তিনি ইউক্রেনের জন্য মার্কিন সমর্থনের নাটকীয় খরচ স্বীকার করেছেন, কিন্তু বলেছেন যে রাশিয়ান প্রেসিডেন্ট পুতিনের সাথে লড়াইয়ের কোন বাস্তব বিকল্প নেই। ‘এই লড়াইয়ের খরচ সস্তা নয়। তবে আগ্রাসনের দিকে ঝুঁকে পড়া আরও ব্যয়বহুল হবে যদি আমরা এটি ঘটতে দিই,’ তিনি বলেছিলেন। ইউক্রেনে মার্কিন সহায়তার মাত্রা প্রতিফলিত করে, যা বৃহত্তর এবং আরও ভারী সশস্ত্র রাশিয়ান বাহিনীকে খারাপভাবে ক্ষতিগ্রস্থ করছে, বাইডেন নিশ্চিত করেছেন যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইতিমধ্যে ইউক্রেনে পাঠানো প্রতিটি রাশিয়ান ট্যাঙ্কের জন্য ১০টি ট্যাঙ্ক-বিধ্বংসী অস্ত্র পাঠিয়েছে। যাইহোক, তিনি রাশিয়ান কর্মকর্তাদের এবং রাষ্ট্রীয় মিডিয়ার ক্রমবর্ধমান উত্তপ্ত দাবির বিরুদ্ধে পিছু হটলেন যে, মস্কো শুধুমাত্র ইউক্রেনের পরিবর্তে সমগ্র পশ্চিমের সাথে যুদ্ধ করছে।

ইউক্রেনের হয়ে যুদ্ধ করতে গিয়ে সাবেক মার্কিন সেনা নিহত : ইউক্রেনে যুদ্ধ করতে গিয়ে এক মার্কিন নাগরিক নিহত হয়েছেন বলে দাবি করেছে তার পরিবার। ওই মার্কিন নাগরিকের নাম উইলি জোসেফ ক্যানসেল। নিহতের মা রেবেকা ক্যাবরেরা দাবি করেছেন, ২২ বছর বয়সী উইলি জোসেফ ক্যানসেল একটি বেসরকারি সামরিক ঠিকাদারী সংস্থায় চাকরি করতো। ওই কোম্পানি তাকে অর্থের বিনিময়ে ইউক্রেনে পাঠায়। সেখানে ইউক্রেনীয় বাহিনীর সঙ্গে এক হয়ে যুদ্ধ করতে বলা হয় তাকে। কিন্তু সোমবার যুদ্ধে মৃত্যু হয় তার। ক্যানসেল একজন সাবেক ইউএস মেরিন অফিসার ছিলেন বলে তার মা দাবি করেছেন। তিনি জানান, ইউক্রেনের যুদ্ধ শুরু হওয়ার কিছু দিন আগে টেনেসিতে সংশোধন কর্মকর্তা হিসেবে পূর্ণ-সময়ের চাকরির জন্য বেসরকারি ওই সামরিক ঠিকাদারি কোম্পানির সঙ্গে যুক্তিবদ্ধ হয় ক্যানসেল। যখন যুদ্ধ শুরু হয়, তখন ওই কোম্পানি ইউক্রেনে যুদ্ধ করার জন্য লোক খুঁজছিল, সে সময় ক্যানসেল রাজি হয়ে যায়।

কৃষ্ণ সাগর গুপ্তচর ডলফিন’ মোতায়েন রাশিয়ার : রাশিয়া ইউক্রেন আক্রমণ শুরু হওয়ার সাথে সাথে ব্ল্যাক সী’র নৌ ঘাঁটি রক্ষা করার জন্য প্রশিক্ষিত সামরিক ও গুপ্তচর ডলফিন মোতায়েন করেছে। এমনই তথ্য ও ছবি ধরা পড়েছে মার্কিন স্যাটেলাইটে। জানা গেছে, কৌশলী সামুদ্রিক স্তন্যপায়ী প্রাণীগুলো আক্রমণের আগে সেভাস্তোপল নৌ ঘাঁটিতে চলে যায়। ডলফিনগুলি ‘কাউন্টার ডাইভিং’-এর জন্য ব্যবহৃত হয়, তারা সমুদ্রের তলদেশে ব্রেক-ইন থেকে বন্দর রক্ষা করে। রিপোর্টে দাবি করা হয়েছে, তারা বোমা বহন করতে পারে, মাইন স্থাপন করতে পারে এবং শত্রুর ডুবুরিদের উপর আক্রমণ করতে পারে। সেভাস্তোপল যুদ্ধজাহাজ ইউক্রেনের ক্ষেপণাস্ত্র পরিসরের বাইরে কিন্তু নাশকতার জন্য ঝুঁকিপূর্ণ ফ্ল্যাগশিপ মস্কভা, এটি ডুবে যাওয়ার আগে ক্রিমিয়া বন্দরে রাখা হয়েছিল বলে ছবিতে দেখা যায়। ২০১৪ সালে ক্রিমিয়াকে সংযুক্ত করার পর রাশিয়া ডলফিন ইউনিটের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছিল। মস্কো দাবি করেছে যে, স্তন্যপায়ী প্রাণীগুলো রাশিয়ার কাছে ‘বিক্রিত’ হয়েছে। সূত্র : দ্য গার্ডিয়ান, ডেইলি মেইল, রয়টার্স, ডেইলি সাবাহ, তাস, সিএনএন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (4)
Antara Afrin ৩০ এপ্রিল, ২০২২, ৪:৫৭ এএম says : 0
রাশিয়ার উচিত স্বর্ণমুদ্রাই লেনদেন করা।তবেই আম্রিকার উচিত শিক্ষা হবে। কথায় কথায় বিভিন্ন দেশকে ব্ল্যাকমেইল করে নিষেধাজ্ঞা দেওয়াটা বন্ধ হবে।
Total Reply(0)
Jubayer Islam ৩০ এপ্রিল, ২০২২, ৪:৫৭ এএম says : 0
রাশিয়া যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তা সবই টিক আছে। কিন্তু সমস্যা হলো আরবদের নিয়ে তারা কি কখনও তাদের মুনিব আমেরিকার কাছে তাদের নিজস্ব মুদ্রা দিয়ে লেনদেন করার প্রস্তাব দিতে পারবে বা আরবদের নিজস্ব মুদ্রা দিয়ে লেনদেন করতে পারবে সেই হেডাম কি তাদের আছে । দেখার অপেক্ষায় পুরু বিশ্ব।
Total Reply(0)
Ajoy Roy ৩০ এপ্রিল, ২০২২, ৪:৫৮ এএম says : 0
কথায় কথায় নিষেধাজ্ঞা।এবার ঠেলা সামলা।রাশিয়া জিন্দাবাদ। মার্কিন সাম্রাজ্যবাদ ধ্বংস হোক।
Total Reply(0)
Rafiq Sikdar ৩০ এপ্রিল, ২০২২, ৪:৫৮ এএম says : 0
ন্যাটোর সম্প্রসারণ স্বাধীন দেশগুলোর নিরাপত্তার জন্য মারাত্মক হুমকি।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps