মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ১৪ আষাঢ় ১৪২৯, ২৭ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ইউরোপ রাশিয়ার আমদানি নিষেধাজ্ঞায় তেলের দাম বেড়েছে

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৬ মে, ২০২২, ১২:০৫ এএম

ইউরোপীয় ইউনিয়ন রাশিয়া থেকে সব তেল আমদানি নিষিদ্ধ করার পরিকল্পনা ঘোষণা করার পর বুধবার তেলের দাম বেড়েছে, প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনকে ইউক্রেনের বিরুদ্ধে তার ‘নিষ্ঠুর আগ্রাসনের’ জন্য ‘উচ্চ মূল্য দিতে হবে’। ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ভন ডার লেইন রাশিয়ার বিচ্ছিন্নতাকে আরো গভীর করার জন্য মস্কোর শীর্ষ ব্যাঙ্কের বিরুদ্ধে পর্যায়ক্রমে তেল নিষেধাজ্ঞার পাশাপাশি অন্যান্য নিষেধাজ্ঞার প্রস্তাব উন্মোচন করেছেন।
যদি এটি এগিয়ে যায়, পরিকল্পনাটি পুতিনের যুদ্ধ মেশিনে তহবিল কমানোর জন্য ইউরোপীয় প্রচেষ্টায় একটি বড় বৃদ্ধি চিহ্নিত করবে। পরিকল্পনার ফলে ইউরোপজুড়ে মোটরচালক এবং ব্যবসার জন্য জ্বালানির দাম বাড়ার হুমকি তৈরি হয়েছে যেখানে ইতোমধ্যে যানবাহনের ট্যাঙ্ক পূরণে রেকর্ড খরচের মুখোমুখি হতে হচ্ছে।
প্রধান আন্তর্জাতিক তেলের মূল্য বেঞ্চমার্ক ব্রেন্ট ক্রুড ৪ ডলার বা ৩.৮ শতাংশ বেড়ে ব্যারেল প্রতি ১০৮.৯৭ ডলারে পৌঁছেছে।
ইউরোপ প্রতিদিন প্রায় ৩৫ লাখ ব্যারেল রাশিয়ান তেল এবং তেলপণ্য আমদানি করে এবং মস্কোর গ্যাস সরবরাহের উপর নির্ভর করে। ইইউ রাশিয়ার অপরিশোধিত তেলের সরবরাহ ছয় মাসের মধ্যে এবং বছরের শেষ নাগাদ পরিশোধিত পণ্য কেনা বন্ধ করতে চায়। এটি ইতোমধ্যেই রাশিয়ান কয়লার ওপর পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তবে এখনও রাশিয়ান প্রাকৃতিক গ্যাস সরবরাহের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেয়নি।
স্ট্রাসবার্গে ইউরোপীয় পার্লামেন্টে মিসেস ভন ডার লেইন বলেন, ‘আমরা ইউরোপ থেকে রাশিয়ার সব তেল নিষিদ্ধ করার প্রস্তাব দেব’। তিনি চেম্বারে করতালি দিয়ে বলেন ‘এটি সমগ্র রাশিয়ার ওপর একটি সম্পূর্ণ আমদানি নিষেধাজ্ঞা হবে’।
যদি ইইউ সরকারগুলো সম্মত হয়, তবে পরিকল্পনাটি বিশ্বের বৃহত্তম বাণিজ্য বøকের জন্য একটি জলাধার চিহ্নিত করবে, যা রাশিয়ান শক্তির ওপর নির্ভরশীল এবং অবশ্যই বিকল্প সরবরাহ খুঁজে পাবে।
তবে, মিসেস ভন ডের লেইন স্বীকার করেছেন যে, পরিকল্পনাটির পক্ষে সর্বসম্মত সমর্থন পাওয়া কঠিন হবে। এর কারণ হাঙ্গেরি এবং সেøাভাকিয়াসহ কিছু দেশ ইঙ্গিত দিয়েছে যে, তারা এ ধরনের পদক্ষেপে রাজি হবে না। ইইউ এসব দেশগুকে ছাড় দেবে কিনা তা স্পষ্ট নয়।
‘আমরা রাশিয়ান তেলের ওপর আমাদের নির্ভরতাকে মোকাবেলা করছি এবং আসুন পরিষ্কার করা যাক, এটি সহজ হবে না, কারণ কিছু সদস্য রাষ্ট্র রাশিয়ান তেলের ওপর দৃঢ়ভাবে নির্ভরশীল, তবে আমাদের কেবল এটি করতে হবে’।
চেক বাণিজ্যমন্ত্রী জোজেফ সিকেলা ঐকমত্যে পৌঁছানোর অসুবিধাগুলো স্পষ্ট করেন, যিনি বুধবার অভিযোগ করেন যে, নীতিতে বোঝা-ভাগ করার পরিকল্পনার অভাব রয়েছে।
তিনি রয়টার্সকে বলেন, ‘প্রস্তাবে অন্তর্বুক্ত করা হয় না... কীভাবে ফাঁকটি বণ্টন করা হবে, অর্থাৎ কীভাবে এটি ন্যায্যভাবে ভাগ করা যায় এবং যৌথ ক্রয় এবং যৌথ বিতরণের প্রস্তাব’। ‘আমরা এখনও এটি অধ্যয়ন করছি, কিন্তু এটি আমার জন্য একটি সমস্যা’।
বøকটি সুইফ্ট আর্থিক স্থানান্তর ব্যবস্থা থেকে সাবরব্যাংককে অপসারণ করার পরিকল্পনা করেছে এবং তিনটি রাশিয়ান-রাষ্ট্রীয় স¤প্রচারককে লক্ষ্য করার আশা করছে, যাকে মিসেস ভন ডার লেইন ‘মুখপাত্র যা পুতিনের মিথ্যা এবং প্রচারকে আক্রমণাত্মকভাবে প্রসারিত করে’ বলে অভিহিত করেছেন।
ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্ট আরো বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়নের উচিত রাশিয়ান সৈন্যদের ‘যারা বুচায় যুদ্ধাপরাধ করেছে’, কিয়েভ শহরতলির এলাকা থেকে ক্রেমলিনের বাহিনী প্রত্যাহারের পর শতাধিক লাশ পাওয়া গেছে তাদের অনুমোদন দেওয়া উচিত।
মিসেস ভন ডের লেইন বলেন, ‘এটি ক্রেমলিনের যুদ্ধের সমস্ত অপরাধীদের কাছে আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ সঙ্কেত পাঠায়: আমরা জানি আপনি কে। আপনাকে জবাবদিহি করতে হবে, আপনি এটি থেকে সরে যাচ্ছেন না’।
ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির প্রধান অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ওলেগ উসটেনকো বলেছেন, ইইউকে আরো এগিয়ে যেতে হবে।
তিনি বলেন, ‘ইউক্রেনিয়ানরা অবিশ্বাসের সাথে দেখেছে কারণ ইউরোপীয় ইউনিয়নে আমাদের অংশীদাররা রাশিয়ান জীবাশ্ম জ্বালানি ক্রয় অব্যাহত রেখেছে, আমাদের দেশে যুদ্ধাপরাধের জন্য প্রতিদিন ১ বিলিয়ন ইউরোর অর্থায়ন করছে’।
‘আমরা এখন অবশেষে অ্যাকশন দেখতে পাচ্ছি। তবুও, সংস্থাগুলো রাশিয়ান জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবসা করছে, বিশ্বজুড়ে রাশিয়ান তেল, গ্যাস এবং কয়লা বিপুল পরিমাণে শিপিং এবং পাইপিং করছে। এহয কোম্পানির জন্য আমাদের একটি সহজ বার্তা রয়েছে- আমরা আপনাকে দেখছি। যারা আমাদের সমর্থন করেছিল ইউক্রেন তাদের ভুলে যাবে না, যারা পুতিনের পক্ষ বেছে নিয়েছে তাদেরও আমরা ভুলব না’।
এদিকে, এনজিও গেøাবাল উইটনেসের প্রধান নির্বাহী মাইক ডেভিস বলেছেন, ইইউ-এর ব্যবস্থা ‘সমস্যার তাৎক্ষণিকতা বা মাত্রার সাথে মেলে সম্পূর্ণভাবে ব্যর্থ’। তিনি যোগ করেছেন যে, নিষেধাজ্ঞা শিগগিরই ঘটতে হবে এবং রাশিয়ান গ্যাসকেও লক্ষ্যবস্তু করা উচিত।
এমনকি সর্বশেষ খবরের আগে, ২০২২ সালে ব্রিটেনে মুদ্রাস্ফীতি ৪০ বছরের সর্বোচ্চে উঠবে বলে আশা করা হয়েছিল। ভোক্তা মূল্য সূচকের মূল্যস্ফীতি ৮ শতাংশে পৌঁছবে বলে আশা করা হচ্ছে, মজুরি বৃদ্ধি বজায় রাখতে ব্যর্থ হওয়ায় ১৯৫০ এর দশকের পর থেকে জীবনযাত্রার মান সবচেয়ে বেশি হ্রাস পেয়েছে।
ব্যাঙ্ক অফ ইংল্যান্ডের সর্বশেষ মুদ্রাস্ফীতি রিপোর্ট প্রদান করার সম্ভাবনা আজ শনিবার এবং সুদের হারের ওপর সিদ্ধান্ত প্রদান করবে। মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের জন্য এটি ব্যাপকভাবে ০.৭ শতাংশ থেকে ১ শতাংশে বৃদ্ধি করবে বলে আশা করা হচ্ছে। সূত্র : দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (4)
M H Miru Bd ৬ মে, ২০২২, ১০:৪০ এএম says : 0
আমেরিকা সফল ন্যাটো সহ পশ্চিমাদের কে এক করেছে। রাশিয়া সফল ইউরোপকে বিভক্ত করতেছে।
Total Reply(0)
Md Haoladar Md Haoladar ৬ মে, ২০২২, ১০:৪০ এএম says : 0
শুধু গ্যাস বন্দ করে দিলে গোটা ইউরোপ শুকিয়ে চিমটি দিয়ে যাবে ।
Total Reply(0)
Mohammod Joynal Abedin ৬ মে, ২০২২, ১০:৪০ এএম says : 0
নিষেধাজ্ঞায় কোনো কাজ হবে না। ইউরোপের জ্বালানি শক্তি রাশিয়ার হাতে। অন্য কোনো দেশে থেকে জ্বালানি এনে কিছু দিন চাহিদা মেটানো সম্ভব। লং-টার্ম রাশিয়াকে অপেক্ষা করে ইউরোপ বেশি দিন টিকতে পারবেনা।
Total Reply(0)
Salah Uddin Golap ৬ মে, ২০২২, ১০:৪০ এএম says : 0
গোটা পশ্চিম বিশ্ব একত্রিত হয়ে ও রাশিয়ার কিছুই করতে পারছে না, কিসের এত দম্ভ!! রাশিয়ার এখন সরাসরি ইউ এস এ তে হামলা করা উচিত, তা হলে বিশ্ব মোড়ল দেশে দেশে যুদ্ধ লাগানোর পরিনাম বুঝতে পারবে।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps