শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ১৮ আষাঢ় ১৪২৯, ০২ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

বিনোদন প্রতিদিন

অবশেষে মেয়েকে বাড়িতে আনলেন প্রিয়াঙ্কা

বিনোদন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১০ মে, ২০২২, ৯:৩৮ এএম

গত জানুয়ারিতে কন্যা সন্তানের মা হয়েছেন বলিউড ও হলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। এরপর থেকেই শিশু কন্যাকে নিওনেটাল ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে (এনআইসিইউ) রাখা হয়েছিল। অবশেষে সন্তানকে বাড়িতে নিয়ে এসেছেন প্রিয়াঙ্কা-নিক জুটি। টানা একশ দিন হাসপাতালে থাকার পর মেয়েকে নিয়ে ঘরে এলেন তারা। রবিবার (৮ মে) মা দিবসে প্রথমবারের মতো মেয়ের ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট করে এ কথা জানান প্রিয়াঙ্কা চোপড়া।

যে ছবিটি তিনি পোস্ট করেছেন তাতে মেয়েকে বুকে জড়িয়ে ধরে রয়েছেন অভিনেত্রী। পাশে রয়েছেন স্বামী নিক জোনাস। আলতো করে মেয়ের হাত ধরে রয়েছেন তিনি। মেয়ের মুখ ঢেকেই ছবিটি পোস্ট করেছেন প্রিয়াঙ্কা। অভিনেত্রী লিখেন, এই কটা মাস যে কত চড়াই-উতরাইয়ের মধ্যে দিয়ে গেলাম, তার ইয়ত্তা নেই। ১০০ দিনের প্রতীক্ষার পর অবশেষে আমরা আমাদের ছোট্ট মেয়েকে হাসপাতাল থেকে বাড়িতে আনতে পেরেছি। যারা এই দীর্ঘ পথের প্রতিটি ধাপে নিঃস্বার্থ ভাবে ছিলেন তাঁদের সকলকে এবং ক্যালিফোর্নিয়ার সমস্ত ডাক্তার এবং নার্সকে ধন্যবাদ জানাই।

গত ১৫ জানুয়ারি সারোগেসি পদ্ধতিতে সন্তানের মা হন প্রিয়াঙ্কা। ইনস্টাগ্রাম পোস্টে এ তথ্য জানিয়েছেন অভিনেত্রী নিজেই। পোস্টে প্রিয়াঙ্কা লিখেছেন, সবাইকে অত্যন্ত আনন্দের সঙ্গে জানাচ্ছি যে আমরা সারোগেট পদ্ধতিতে সন্তানকে স্বাগত জানিয়েছি। এই বিশেষ সময়ে আমরা বিনীতভাবে সবার শুভকামনা চাই যেন করে পরিবারকে আরও বেশি সময় দিতে পারি। সবাইকে অনেক ধন্যবাদ।

গত বছর বিয়ের তিন বছর উদযাপন করেছেন তারকা দম্পতি। প্রণয় থেকে পরিণয়, প্রতি ক্ষেত্রেই ছিল সমালোচনার ঝড়। নিকের চেয়ে বয়সে অনেকটাই বড় প্রিয়াঙ্কা। ফলে, এই বিয়ে আদৌ টিকবে কিনা, তাই নিয়ে চর্চা ছিল সব মহলে। তবে তারা কোনো বিরূপ মন্তব্য কানে তোলেননি। বদলে রাজস্থানের উমেদ ভবন রাজবাড়িতে ধুমধাম করে হিন্দু মতে বিয়ে সারেন। পরে আবার খ্রিষ্টান মতে বিয়ে করেন গির্জায় গিয়ে।

নিক-প্রিয়াঙ্কাকে নিয়ে যত কটাক্ষের পরিমাণ বেড়েছে ততই যেন তারা শক্ত করে ধরে থেকেছেন একে অন্যের হাত। পথ চলেছেন নিজেদের মর্জিতে। তারই ফসল সারোগেসির মাধ্যমে জন্ম নেওয়া সদ্যোজাত। তারা যেন আবারও প্রমাণ করে দিলেন, বয়স নিছকই সংখ্যামাত্র। চাইলে যেকোনো বয়সেই বেঁধে থাকা যায়।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps