রোববার, ০৩ জুলাই ২০২২, ১৯ আষাঢ় ১৪২৯, ০৩ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

মারিউপোলের বিজয় রাশিয়ার জন্য কি অর্থ বহণ করে?

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৯ মে, ২০২২, ৬:২৪ পিএম

স্থানীয় কর্মকর্তাদের মতে, ইউক্রেনীয় শহর মারিউপোল এখন রাশিয়ার হাতে। দুই মাসেরও বেশি তিক্ত লড়াই এবং ক্রমাগত গোলাবর্ষণের পরে এটি রাশিয়ার হাতে এসেছে যা শহরের বিশাল অংশ ধ্বংস করেছে এবং হাজার হাজার বেসামরিক লোককে হত্যা করেছে।

সোমবার গভীর রাতে ইউক্রেন আনুষ্ঠানিকভাবে মারিউপোলে তাদের যুদ্ধ অভিযানের সমাপ্তি ঘোষণা করেছে। ইউক্রেনের শেষ সামরিক হোল্ডআউট আজভস্টাল স্টিল প্ল্যান্ট থেকে ইউক্রেনীয় সৈন্যদের সরিয়ে নেয়া শুরু হয়েছিল সেদিনের শুরুতে। রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলছে, তখন থেকে প্রায় ১ হাজার সৈন্য আত্মসমর্পণ করেছে, যার মধ্যে কয়েক ডজন আহত সৈন্য রয়েছে যারা রুশ ও বিচ্ছিন্নতাবাদী বাহিনী নিয়ন্ত্রিত ইউক্রেনের দোনেৎস্ক অঞ্চলের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

মারিউপোল নিয়ন্ত্রণ করে, রাশিয়া ক্রিমিয়াতে তার স্থল সেতুকে মজবুত করেছে এবং এখন আজভ সাগরের সমগ্র উত্তর তীরে নিয়ন্ত্রণ করছে। এটি দক্ষিণ এবং দক্ষিণ-পূর্বে রাশিয়ান-নিয়ন্ত্রিত অঞ্চলগুলোকে সংযুক্ত করেছে। এটি ইউক্রেনের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক কেন্দ্র ছিল কারণ একটি বন্দর শহর হিসাবে এর মর্যাদা ছিল। শান্তির সময়ে, এটি ইউক্রেনীয় ইস্পাত এবং শস্য রপ্তানির জন্য একটি প্রধান সাইট।

যদি রাশিয়া দীর্ঘদিন ধরে মারিউপোলকে ধরে রাখে, আজভ সাগরে ইউক্রেনের প্রবেশাধিকার রোধ করে, তাহলে এটি ইউক্রেনের আর্থিক এবং অর্থনৈতিক স্থায়িত্বকে ক্ষতিগ্রস্ত করবে, দেশটির পণ্য বিক্রি ও জাহাজীকরণের ক্ষমতাকে বাধাগ্রস্ত করবে। এটি কার্যকরভাবে ইউক্রেনকে সমুদ্রের প্রবেশাধিকার থেকে বিচ্ছিন্ন করার একটি বৃহত্তর প্রচেষ্টার অংশ, যা ইউক্রেনের অর্থনীতি এবং বাণিজ্যের সত্যিই একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ।

এটি ইউক্রেনের ডনবাস অঞ্চলে রুশপন্থি বিচ্ছিন্নতাবাদীদের নিয়ন্ত্রণে থাকা এলাকাগুলোর সঙ্গে রাশিয়ার অধিগ্রহণ করা ক্রাইমিয়াকে সংযোগকারী স্থল পথের ওপর অবস্থিত হওয়ায় সামরিক কৌশলগতভাবে শহরটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। মারিউপোলের নিয়ন্ত্রণ পাওয়ায় স্থলপথে ক্রাইমিয়া যেতে রাশিয়াকে আর কোনো ধরনের বাধার মুখেই পড়তে হবে না। কৃষ্ণসাগরের উপদ্বীপটিতে থাকা রুশ সেনারাও এখন ডনবাস বা ওডেসার দিকে অভিযানে যুক্ত হতে পারবে। এর মাধ্যমে ইউক্রেনের কৃষ্ণসাগর উপকূলরেখার ৮০ শতাংশ রাশিয়ার হস্তগত হয়েছে।

মারিউপোল দখলের মাধ্যমে রাশিয়ার সবচেয়ে বড় যে লাভ হয়েছে তা হচ্ছে নৈতিক বিজয়। এতিদিন পশ্চিমারা যে মিথ্যা প্রচারণা চালিয়ে আসছিল, এটি ছিল তার একটি উপযুক্ত জবাব। রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা কিংবা ইউক্রেনকে অর্থ ও অস্ত্র সাহায্য দিয়েও তারা এর পতন ঠেকাতে পারেননি। পুতিন কখনোই কিয়েভ দখল করতে চাননি, বর্তমান বিশ্বের প্রেক্ষাপটে তা সম্ভবও নয়। তিনি সমৃদ্ধ ডনবাস এলাকা মুক্ত করতে চেয়েছিলেন এবং ইউক্রেনকে সমুদ্রপথে বিচ্ছিন্ন করতে চেয়েছিলেন। মারিউপোল বিজয়ের মাধ্যমে তার সেই পরিকল্পনাই সম্পূর্ণ সফল হয়েছে। সূত্র: এনপিআর।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps