সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১৩ আষাঢ় ১৪২৯, ২৬ যিলক্বদ ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

নিষেধাজ্ঞা তুললে চাহিদা মেটাতে পারে রাশিয়া

ভয়াবহ খাদ্য বিপর্যয়ের মুখে বিশ্ব

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২১ মে, ২০২২, ১২:০০ এএম

রাশিয়া নভোরোসিয়েস্ক বন্দরের মাধ্যমে ১ আগস্ট থেকে শুরু করে এবং এই বছরের শেষ পর্যন্ত ২৫ মিলিয়ন বা আড়াই কোটি টন শস্য রফতানি করার সক্ষমতা পারে। বৃহস্পতিবার দ্বন্দ্ব এবং খাদ্য নিরাপত্তা বিষয়ক জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে জাতিসংঘে রাশিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি ভ্যাসিলি নেবেনজিয়া এ তথ্য জানিয়েছেন।

জাতিসংঘ সতর্ক করে দিয়ে বলেছে, ইউক্রেনে রাশিয়ার অভিযানের কারণে সামনের মাসগুলোতে বৈশ্বিক খাদ্য সঙ্কট তৈরি হতে পারে। সংস্থাটির মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস বলেছেন, এই যুদ্ধের কারণে দাম বৃদ্ধি পাওয়াতে দরিদ্র দেশগুলোতে খাদ্য নিরাপত্তাহীনতা ভয়াবহ পর্যায়ে চলে গেছে। তার আশঙ্কা, শেষ পর্যন্ত ইউক্রেন থেকে রফতানি স্বাভাবিক না হলে বিশ্ব দুর্ভিক্ষের মুখোমুখি হতে পারে। এর কারণে পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞাকে দায়ি করেছে রাশিয়া।
নেবেনজিয়ার মতে, রাশিয়া ‘খাদ্য এবং জ্বালানির একটি দায়িত্বশীল সরবরাহকারী হিসাবে অবিরত রয়েছে।’ ‘এ বছর, আমরা রেকর্ড উচ্চ গমের ফলন আশা করছি। এই বিষয়ে, আমরা ২৫ মিলিয়ন টন শস্য রফতানির জন্য অফার করতে পারি নোভোরোসিস্ক বন্দর থেকে ১ আগস্ট থেকে শুরু করে এবং এই বছরের শেষ পর্যন্ত,’ দূত বলেন।

‘আমরা অন্যান্য ক্রয় নিয়েও আলোচনা করতে পারি, যার মধ্যে বিবেচনা করা যেতে পারে যে, জুন থেকে ডিসেম্বরের মধ্যে সম্ভাব্য সার রফতানি কমপক্ষে ২২ মিলিয়ন টন দাঁড়াবে। কিন্তু, যদি আপনার নিজের উদ্যোগে আরোপিত নিষেধাজ্ঞাগুলি প্রত্যাহার করার কোন ইচ্ছা না থাকে, তাহলে কেন আপনি আমাদের দোষারোপ করছেন? কেন আপনার দায়িত্বজ্ঞানহীন ভূ-রাজনৈতিক খেলার কারণে দরিদ্রতম দেশ এবং অঞ্চলগুলিকে ক্ষতিগ্রস্থ হতে হবে?’ পশ্চিমা রাষ্ট্রগুলোর প্রতিনিধিদের উদ্দেশে কূটনীতিক বলেন।

নেবেনজিয়া বলেছিলেন যে ইউক্রেনের বন্দরগুলি থেকে শস্য রফতানি বন্ধ করা হয়েছে ইউক্রেনের পদক্ষেপের কারণে, রাশিয়া নয়। ‘আপনি দাবি করছেন যে আমরা ইউক্রেন থেকে সমুদ্রপথে কৃষি পণ্য রফতানির সম্ভাবনাকে বাধা দিচ্ছি,’ তিনি জাতিসংঘের খাদ্য নিরাপত্তা বিষয়ক নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে বলেছিলেন, ‘তবে, সত্য হল যে এটি ইউক্রেন, রাশিয়া নয়, যারা নিকোলায়েভ, খেরসন, চেরনোমর্স্ক, মারিউপোল, ওচাকভ, ওডেসা এবং ইউঝনি বন্দরে ১৭ দেশের ৭৫টি বিদেশী জাহাজ অবরুদ্ধ করেছে এবং সমুদ্রপথে মাইল ছড়িয়ে রেখেছে।’
রফতানিকৃত ইউক্রেনীয় শস্য প্রয়োজনীয় দেশগুলিতে যায় না, তবে ইইউ স্টোরে লোড করা হচ্ছে - সম্ভবত অস্ত্র চালানের জন্য অর্থপ্রদান হিসাবে, নেবেনজিয়া বলেছেন। ‘একটি যৌক্তিক প্রশ্ন উঠেছে, এই চালানগুলি (ইউক্রেনীয় শস্যের) কোথায় যায়? বিশ্বে খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার সাথে তাদের কী করার আছে?’ তিনি বলেন, ‘আমরা এই সন্দেহের ন্যায্যতা প্রকাশ করেছি যে শস্য বিশ্বব্যাপী দক্ষিণে সাহায্য করতে যাচ্ছে না, তবে ইউরোপীয় দেশগুলির শস্য ভাণ্ডারে লোড করা হচ্ছে। যেমন আমরা বুঝতে পারি, এইভাবে ইউক্রেন পশ্চিমাদের দ্বারা পাঠানো অস্ত্রের জন্য অর্থ প্রদান করে।’

ভয়াবহ খাদ্য বিপর্যয়ের মুখে বিশ্ব : কোভিড-১৯ ও জলবায়ু পরিবর্তনের ধাক্কা সামলে উঠার আগেই বিশ্বব্যাপী খাদ্য ব্যবস্থাকে আঘাত করেছে ইউক্রেন সঙ্কট। ইউক্রেনের শস্য ও তৈলবীজের রফতানি বেশিরভাগই বন্ধ হয়ে গেছে এবং রাশিয়া নিষেধাজ্ঞার মধ্যে পড়েছে। একসাথে, দুটি দেশ বিশ্বে মোট বাণিজ্যকৃত ক্যালোরির ১২ শতাংশ সরবরাহ করে। গমের দাম, বছরের শুরু থেকে ৫৩ শতাংশ বেড়েছিল। গত ১৬ মে আরও ৬ শতাংশ বেড়েছে, যখন ভারত উদ্বেগজনক তাপপ্রবাহের কারণে রফতানি স্থগিত করে।

রাশিয়া এবং ইউক্রেন বিশ্বব্যাপী লেনদেনকৃত গমের ২৮ শতাংশ, যবের ২৯ শতাংশ, ভুট্টার ১৫ শতাংশ এবং সূর্যমুখী তেলের ৭৫ শতাশং সরবরাহ করে। ইউক্রেনের খাদ্য রফতানি বিশ্বের ৪০ কোটি মানুষকে খাওয়ানোর জন্য ক্যালোরি সরবরাহ করে। যুদ্ধ এই সরবরাহগুলিকে ব্যাহত করছে কারণ ইউক্রেন আক্রমণ প্রতিরোধ করার জন্য সমুদ্রে মাইন বিছিয়েছে এবং রাশিয়া ওডেসা বন্দর অবরোধ করছে।

আক্রমণের আগেও বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচি সতর্ক করেছিল যে ২০২২ সাল হবে একটি ভয়াবহ বছর। চীন, বৃহত্তম গম উৎপাদনকারী, বলেছে যে, বৃষ্টির কারণে গত বছর রোপণ বিলম্বিত হওয়ার পরে, এই ফসলটি তার সবচেয়ে খারাপ হতে পারে। এখন, বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম উৎপাদক ভারতে চরম তাপমাত্রার পাশাপাশি, বৃষ্টির অভাব আমেরিকার গমের বেল্ট থেকে ফ্রান্সের বিউস অঞ্চল পর্যন্ত অন্যান্য রুটির ঝুড়িতে ফলনের জন্য হুমকি দেয়। হর্ন অফ আফ্রিকা তার চার দশকের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ খরা দ্বারা বিধ্বস্ত হচ্ছে জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে।

দৃশ্যটি একটি দোষারোপের খেলার জন্য সেট করা হয়েছে, যেখানে পশ্চিম পুতিনকে তার আক্রমণের জন্য নিন্দা করে এবং রাশিয়া পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞার নিন্দা করে। প্রকৃতপক্ষে বাধাগুলি প্রাথমিকভাবে পুতিনের আক্রমণের ফলাফল এবং কিছু নিষেধাজ্ঞা তাদের আরও বাড়িয়ে তুলেছে। এর পরিবর্তে দেশগুলোকে একসাথে কাজ করতে হবে। কৃষ্ণ সাগর অবরোধ তোলা হলে তাৎক্ষণিক স্বস্তি আসবে। মোটামুটি ২৫ মিলিয়ন টন ভুট্টা এবং গম, যা বিশ্বের স্বল্পোন্নত অর্থনীতির সমস্ত বার্ষিক ব্যবহারের সমতুল্য, ইউক্রেনে আটকে আছে। তিনটি দেশকে অবশ্যই পাশে আনতে হবে: রাশিয়াকে ইউক্রেনীয় শিপিংয়ের অনুমতি দিতে হবে; ইউক্রেনকে ওডেসার দিকে দৃষ্টিপাত করতে হবে; এবং তুরস্ককে বসফোরাসের মধ্য দিয়ে নৌ-এসকর্টদের যেতে দিতে হবে। এর জন্য সবার আগে রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা তুলতে হবে। সূত্র : দ্য ইকোনমিস্ট, তাস।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (5)
Farhad Hossain ২১ মে, ২০২২, ৩:২৯ এএম says : 0
এই সংকটের জন্য জাতিসংঘ ই দায়ী। মূল্যহীন বিবৃতি আর মায়াকান্না দিয়ে সদস্য রাস্ট্রগুলির সাথে ধোঁকাবাজি এখন সূর্যালোকের ন্যায় স্পষ্ট। জাতিসংঘের দ্বিচারিতা ও দ্বৈত নীতি বিশ্বকে বিপর্যস্ত করেছে।
Total Reply(0)
Abs Sohel ২১ মে, ২০২২, ৩:২৯ এএম says : 0
খাদ্যের অপচয় রোধ করি, স্ব অবস্থান থেকে যা পারি খাদ্যে স্বয়ংসম্পন্ন হতে চেষ্টা করি। খাদ্যদ্রব্য মজুদ থেকে বিরত থাকি। ঈশ্বর সবাইকে রক্ষা করুক।। আমিন
Total Reply(0)
MD Shajahan ২১ মে, ২০২২, ৩:৩০ এএম says : 0
আল্লাহ ছাড়া বাঁচার উপায় নেই। মাবুদ আমাদের মাফ করুন।
Total Reply(0)
Mainu Uddin ২১ মে, ২০২২, ৩:৩০ এএম says : 0
যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া কে সমঝোতয় এনে,একটি শান্তির বিশ্ব গড়ে তোলার জাতিসংঘ পদক্ষেপ নিচ্ছে না কেন, ডায়লগ ঝেড়ে মানুষ কে আরো অসহায় করে তোলা যুক্তিযুক্ত নয়।
Total Reply(0)
Md Masum ২১ মে, ২০২২, ৩:৩০ এএম says : 0
আমরা খাদ্যে সয়ংসম্পুর্ন। আমাদের এই ভয় দেখিয়ে লাভ নেই।এমন বানীর অপেক্ষায় থাকা আমার অবুঝ মন।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Google Apps