বৃহস্পিতবার, ১৮ আগস্ট ২০২২, ০৩ ভাদ্র ১৪২৯, ১৯ মুহাররম ১৪৪৪

জাতীয় সংবাদ

সরকার পতনে রাজনৈতিক দলের ঐক্যের ভিত্তিতে বৃহত্তর আন্দোলন হবে: মির্জা ফখরুল

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৮ মে, ২০২২, ১২:০০ এএম

সরকার পতনের লক্ষ্যে বিরোধী রাজনৈতিক দলের ঐক্যেই আগামীতে বৃহত্তর গণআন্দোলন হবে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, যার যার অবস্থান থেকে আমাদের লড়াই করতে হবে, রাজনীতিকে উদ্ধার করতে হবে। আজকে সমস্ত জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করার জন্য সকল রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ একমত হয়েছেন এবং কাজ করছেন। আমরা বিশ্বাস করি যে, এটার একটা রুপ দিতে পারবো। সেখান থেকে এই সরকারের পতনের বৃহত্তর গণআন্দোলনে শুরু করতে পারবো। গতকাল শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবে ২০ দলীয় জোটের শরিক ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) উদ্যোগে ‘নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন ও ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠা’ শীর্ষক এই আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

আগামী নির্বাচনের প্রসঙ্গ টেনে মির্জা ফখরুল বলেন, পরিস্কার কথা, এই সরকারের অধীনে নির্বাচন সম্ভব নয়। এটা পরীক্ষিত যে, আওয়ামী লীগের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন হতে হবে। এটা সংবিধানে ছিলোই। নির্বাচনকালীন সময়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকার। এটাতে সবাই ভোট দিতে পারবে, সবাই তার মতামত প্রকাশ করতে পারবে। এটা আমাদের একমাত্র পথ।
এই অবস্থা থেকে উত্তরণে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান রেখে তিনি বলেন, সমস্ত রাজনৈতিক জোট, সংগঠন, ব্যক্তি এবং জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে যুদ্ধ শুরু করতে হবে, গণতন্ত্রকে ফিরে পাবার জন্য। কোন দল বা ব্যক্তিকে ক্ষমতায় বসানোর জন্য নয়। আমরা এই যুদ্ধ করছি সম্পূর্ণভাবে আমাদের দেশকে ফিরে পাবার জন্য। যেটা আমাদের নেতা তারেক রহমান বলেছেন টেক ব্যাক বাংলাদেশ।
বিএনপি মহাসচিব বলেন, আসুন আমরা প্রতিজ্ঞা করি, দেশকে আমরা রাহুমুক্ত করা ছাড়া, আওয়ামী লীগের ভয়াবহ দানবে সরানো ছাড়া আমরা বাড়ি ফিরে যাবো না এবং জনগণের সত্যিকার অর্থেই একটি সরকার প্রতিষ্ঠা করবো।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের ওপর ছাত্রলীগের বরর্বোচিত হামলার ঘটনার তুলে ধরে বিএনপি মহাসচিব বলেন, যে ঘটনা তারা ঘটিয়েছে এটাই তাদের আসল চেহারা। আওয়ামী লীগ একটা সন্ত্রাসী দল। তাদের জন্মের পর থেকে তারা সন্ত্রাসী এই দল তৈরি করেছে। যে আওয়ামী লীগের সম্মেলন দলটির প্রতিষ্ঠাতা মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর মতো নেতাকে তারা পিটিয়ে ওই রুপমহল হল থেকে বের করে দিয়েছিলো। ওইখান থেকে বেরিয়ে তারপর তিনি ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি গঠ করেছিলেন। থাকতে পারেননি, সন্ত্রাসীদের কাছে এই মহান নেতা টিকতে পারেননি।
এনপিপির চেয়ারম্যান ফরিদুজ্জামান ফরহাদের সভাপতিত্বে ও মহাসচিব মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফার সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় জাতীয় পার্টির(কাজী জাফর)মোস্তফা জামাল হায়দার, বিএনপির নিতাই রায় চৌধুরী, জামায়াতে ইসলামীর আবদুল হালিম, জাগপার খন্দকার লুতফর রহমান, ডিএলের সাইফুদ্দিন মনি, এনডিপির আবু তাহের, জাতীয় দলের সৈয়দ এহসানুল হুদা, এলডিপির সাহাদাত হোসেন সেলিম, গণঅধিকার পরিষদের নুরুল হক নুর প্রমূখ বক্তব্য রাখেন।###

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন