বৃহস্পিতবার, ১৮ আগস্ট ২০২২, ০৩ ভাদ্র ১৪২৯, ১৯ মুহাররম ১৪৪৪

আন্তর্জাতিক সংবাদ

যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতি মারাত্মক সঙ্কটে

অর্থমন্ত্রীর ভুল স্বীকার ইউক্রেন সঙ্কটের কারণে মন্দার মুখে বহু দেশ : বিশ্বব্যাংক

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৯ জুন, ২০২২, ১২:০৪ এএম

২০২১ সালের গোড়ার দিকে তার নিশ্চিতকরণ শুনানিতে, মার্কিন ট্রেজারি সেক্রেটারি জ্যানেট ইয়েলেন আইন প্রণেতাদের বলেছিলেন যে, একটি মহামারী ত্রাণ প্যাকেজ নিয়ে ‘বড় কাজ করার’ সময় এসেছে। তিনি কম সুদের হারের ফলে ঘাটতি নিয়ে উদ্বেগ উড়িয়ে দিয়েছিলেন এবং সতর্ক করেছিলেন যে, নিষ্ক্রিয়তার অর্থ হতে পারে ব্যাপক অর্থনৈতিক ‘সঙ্কট’।

দেড় বছর পরে, দ্রব্যমূল্য বাড়ছে এবং সুদের হার উচ্চতর হচ্ছে। ফলস্বরূপ, গত বছরের মার্চ মাসে কংগ্রেস পাস করা ১ লাখ ৯০ হাজার কোটি ডলারের আমেরিকান রেসকিউ প্ল্যান তৈরি এবং বিক্রি করার ক্ষেত্রে ইয়েলেনের ভূমিকা সমালোচিত হচ্ছে। গত ৪০ বছরের মধ্যে মুদ্রাস্ফীতির সর্বোচ্চ হারের জন্য তাকে দায়ী কর হচ্ছে। অস্থায়ী সরবরাহ শৃঙ্খল সমস্যাগুলোর উপর ক্রমবর্ধমান দাম নিয়ে সমালোচিত হওয়ার কয়েক মাস পরে, ইয়েলেন গত সপ্তাহে স্বীকার করেছেন যে, তিনি ‘ভুল’ করেছেন। তিনি বাইডেন প্রশাসনকে রক্ষণাত্মকভাবে রেখেছিলেন এবং নিজেকে একটি রাজনৈতিক ঝড়ের মাঝখানে ফেলেছিলেন।

‘আমি মনে করি মুদ্রাস্ফীতি যে পথটি গ্রহণ করবে সে সম্পর্কে তখন আমি ভুল ছিলাম,’ ইয়েলেন সিএনএন-এর সাথে একটি সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, তিনি যোগ করেছেন যে, অর্থনীতি অপ্রত্যাশিত ‘ধাক্কা’র মুখোমুখি হয়েছিল যা খাদ্য এবং জ্বালানির দাম বাড়িয়েছিল। রিপাবলিকান আইন প্রণেতারা, যারা ক্রমবর্ধমান দামের জন্য প্রেসিডেন্ট বাইডেন এবং ডেমোক্র্যাটদের দোষারোপ করে কয়েক মাস অতিবাহিত করেছেন, তারা এ স্বীকোরক্তিকে প্রশাসন অর্থনীতিকে অব্যবস্থাপনা করেছে এবং রাজনৈতিক নিয়ন্ত্রণে থাকার জন্য বিশ্বাস করা উচিত নয় বলে প্রমাণ হিসাবে উপস্থাপণ করেছেন।

ট্রেজারি ডিপার্টমেন্ট ইয়েলেনের মন্তব্যকে স্পষ্ট করার জন্য বিবৃতি দিয়ে বলেছে, তার স্বীকারোক্তি যে তিনি মুদ্রাস্ফীতি নিয়ে ভুল ধারণা করেছেন তার মানে হল যে, তিনি ইউক্রেনের যুদ্ধ, করোনাভাইরাসের নতুন রূপ বা চীনে লকডাউনের মতো অগ্রগতির পূর্বাভাস দিতে পারেননি। একটি বইয়ের উদ্ধৃতি অনুসারে ইয়েলেন গত বছর কংগ্রেস অনুমোদিত ১ লাখ ৯০ হাজার কোটি ডলারের চেয়ে ছোট একটি উদ্দীপনা প্যাকেজ সমর্থন করার পরামর্শ দেয়ার পরে, ট্রেজারি একটি বিবৃতি প্রকাশ করে যে তিনি আরও ব্যয় সংযম করার আহ্বান জানিয়েছেন।

তার মেয়াদের এই দুর্বল মুহুর্তে, ইয়েলেন মুদ্রাস্ফীতির বিষয়ে কঠিন প্রশ্নের সম্মুখীন হন যখন তিনি মঙ্গলবার সিনেটের অর্থ কমিটির সামনে সাক্ষ্য দেন এবং বুধবার অনুরূপ প্রশ্নের মুখোমুখি হতে পারেন, যখন তিনি হাউস আইন প্রণেতাদের সামনে উপস্থিত হন। শুনানিগুলি স্পষ্টতই ২০২৩ অর্থবছরের জন্য প্রেসিডেন্টের বাজেট অনুরোধ সম্পর্কে, তবে রিপাবলিকানরা ভোক্তা পণ্যগুলির উচ্চ মূল্যের জন্য এ উদ্দীপনা প্যাকেজ সহ বাইডেনের নীতিগুলিকে দায়ী করছেন।

ইউক্রেন সঙ্কটের কারণে মন্দার মুখে বহু দেশ : করোনাভাইরাস মহামারীতে বিপর্যস্ত বিশ্ব অর্থনীতি ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে আরেক দফা সঙ্কটে পড়ায় অনেক দেশ মন্দার মুখোমুখি হতে যাচ্ছে বলে সতর্ক করেছে বিশ্ব ব্যাংক। এ যুদ্ধের কারণে জি-৭ সহ পূর্ব এশিয়ার স্বল্পোন্নত দেশগুলোর অনেকেই ‘বড় ধরনের মন্দা’র কবলে পড়েছে বলেও জানাচ্ছে বিশ্ব ব্যাংক।

করোনাভাইরাস মহামারীতে বিপর্যস্ত বিশ্ব অর্থনীতি ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে আরেক দফা সঙ্কটে পড়ায় অনেক দেশ মন্দার মুখোমুখি হতে যাচ্ছে বলে সতর্ক করেছে বিশ্ব ব্যাংক। এ যুদ্ধের কারণে জি-৭ সহ পূর্ব এশিয়ার স্বল্পোন্নত দেশগুলোর অনেকেই ‘বড় ধরনের মন্দা’র কবলে পড়েছে বলেও জানাচ্ছে বিশ্ব ব্যাংক। এ বিষয়ে বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট ডেভিড ম্যালপাস বলছেন, মুদ্রাস্ফীতির উচ্চহার এবং প্রবৃদ্ধি হ্রাস বা তথাকথিত ‘স্ট্যাগফ্লেশন’-এর ঝুঁকিও বাড়ছে। এ ছাড়া বাড়ছে বিশ্বজুড়ে জ্বালানি ও খাদ্যদ্রব্যের দাম। উচ্চ মূল্যস্ফীতির সঙ্গে প্রবৃদ্ধির নিম্নগতি অর্থনীতিকে স্থবির করে ফেলছে। আর তাতে ইউরোপ ও পূর্ব এশিয়ার স্বল্পোন্নত দেশগুলো অর্থনৈতিক মন্দার বড় ধরনের ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে।

তিনি বলেন, ইউক্রেনে যুদ্ধ, চীনে লকডাউন, সরবরাহ-শৃঙ্খলা বা ‘সাপ্লাই চেইনে’ বিঘ্ন, এবং অর্থনৈতিক অস্থিতিশীলতার ঝুঁকি প্রবৃদ্ধির ওপর ব্যাপক নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে। ফলে অনেক দেশের জন্য মন্দা এড়ানো কঠিন হবে। বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট এরই মধ্যে জুনের বিশ্বব্যাংকের বৈশ্বিক অর্থনৈতিক পূর্বাভাস প্রতিবেদনে স্ট্যাগফ্লেশনের আসন্ন বিপদ নিয়ে সতর্ক করেছেন।

ডেভিড ম্যালপাস আরও বলেন, ‘বিশ্বের বেশির ভাগ অঞ্চলে দুর্বল বিনিয়োগের কারণে প্রবৃদ্ধির নিম্নহার পুরো দশকজুড়ে অব্যাহত থাকতে পারে। এ ছাড়া বহু দেশে মুদ্রাস্ফীতি এখন বহু-দশকের মধ্যে সর্বাধিক হারে চলমান। এবং সরবরাহের গতি মন্থর থাকবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। যে কারণে মুদ্রাস্ফীতি দীর্ঘদিন জারি থাকার ঝুঁকি রয়েছে।’

বিশ্বের সব দেশকে ইতোমধ্যে একটি মহামারী মোকাবেলা করতে হয়েছে। তাদের সেই সম্মিলিত চেষ্টায় এবার ঢিল পড়লে বিশ্ব আরও দীর্ঘ সঙ্কটে পড়বে বলে বিশ্ব ব্যাংক সতর্ক করেছে। এখনকার এই কঠিন পরিস্থিতি যে কেবল দুঃখ এবং সামাজিক অস্থিরতা ডেকে আনবে, তা নয়; বছরের পর বছর এ সঙ্কট মানুষকে দুর্দশায় ডুবিয়ে রাখতে পারে। সূত্র : নিউইয়র্ক টাইমস।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (2)
আবির ৯ জুন, ২০২২, ১:৩৬ এএম says : 0
আমেরিকা একটা সময় বিশ্বের মসনদ হারাবে।
Total Reply(0)
আবির ৯ জুন, ২০২২, ১:৩৮ এএম says : 0
আমেরিকা চাইলে ইউক্রেন যুদ্ধ এখনই থামাতে পারে। আর যুদ্ধ বন্ধ হলে বিশ্বের অবস্থা অনেকটা ভালো হয়ে যাবে। কিন্তু আমেরিকার স্বার্থের কারণেই তারা এ যুদ্ধ বন্ধ করবে না।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন