শুক্রবার, ১৯ আগস্ট ২০২২, ০৪ ভাদ্র ১৪২৯, ২০ মুহাররম ১৪৪৪

আন্তর্জাতিক সংবাদ

রুশ সাম্রাজ্য পুনরুদ্ধার করাই কি পুতিনের লক্ষ্য?

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১১ জুন, ২০২২, ৭:৩১ পিএম | আপডেট : ৮:১৬ পিএম, ১১ জুন, ২০২২

রাশিয়ান প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের মন পড়া খুব কঠিন একটি কাজ, তবে মাঝে মাঝে ক্রেমলিন নেতা এটি সহজ করে তোলেন। বৃহস্পতিবার পুতিন তরুণ রাশিয়ান উদ্যোক্তাদের একটি দলের সাথে দেখা করার সময় এমনটি হয়েছিল। সেখানে পুতিনের কথায় স্পষ্ট যে, ইউক্রেনে তার লক্ষ্য হচ্ছে রাশিয়াকে সাম্রাজ্যিক শক্তি হিসেবে পুনরুদ্ধার করা।

অনেক পর্যবেক্ষক দ্রুত পুতিনের আরও উত্তেজক লাইনগুলির একটিকে বেছে নেন, যেখানে তিনি নিজেকে পিটার দ্য গ্রেটের সাথে তুলনা করেছিলেন। তিনি ছিলেন রাশিয়ার আধুনিকীকরণকারী জার এবং সেন্ট পিটার্সবার্গের প্রতিষ্ঠাতা – যেটি আবার পুতিনের নিজের জন্মস্থান। ‘পিটার দ্য গ্রেট ২১ বছর ধরে গ্রেট নর্দার্ন যুদ্ধ পরিচালনা করেছিলেন,’ স্পষ্টতই সন্তুষ্ট পুতিন বলেছিলেন, ‘তিনি সুইডেনের সাথে যুদ্ধে লিপ্ত ছিলেন সেখান থেকে কিছু কেড়ে নেয়ার জন্য না...বরং নিজের প্রাপ্যটা বুঝে নেয়ার জন্য।’

এটা কোন ব্যাপার না যে, ইউরোপীয় দেশগুলো পিটার দ্য গ্রেটের বলপ্রয়োগ করে ভূখণ্ড দখলকে স্বীকৃতি দেয়নি, পুতিন যোগ করেছেন। ‘যখন তিনি নতুন রাজধানী প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, তখন ইউরোপের কোনো দেশই এই অঞ্চলটিকে রাশিয়ার অংশ হিসাবে স্বীকৃতি দেয়নি; সবাই এটিকে সুইডেনের অংশ হিসাবে স্বীকৃতি দিয়েছে,’ পুতিন বলেছিলেন, ‘তবে, অনাদিকাল থেকে, স্লাভরা সেখানে ফিনো-ইউগ্রিক জনগণের সাথে বসবাস করত এবং এই অঞ্চলটি রাশিয়ার নিয়ন্ত্রণে ছিল। পশ্চিম দিক, নার্ভা এবং তার প্রথম প্রচারণার ক্ষেত্রেও একই কথা সত্য। কেন তিনি সেখানে যাবেন? তিনি ছিলেন প্রত্যাবর্তন এবং শক্তিবৃদ্ধিকারী, তিনি এটাই করছিলেন।’

ইউক্রেনে তার নিজের আক্রমণের সরাসরি ইঙ্গিত করে, পুতিন যোগ করেছেন, ‘স্পষ্টতই, ফিরে আসা এবং আরও শক্তিশালী করা আমাদের পক্ষে পড়েছে।’ এইযুক্তিগুলো ২৪ ফেব্রুয়ারির আগে আরও যুক্তিসঙ্গত বলে মনে হতে পারে। পুতিন অভিযান শুরুর আগে ন্যাটোর পূর্বমুখী সম্প্রসারণ থেকে ইউক্রেনে সামরিক সহায়তার পশ্চিম বিতরণ পর্যন্ত একাধিক অভিযোগ তুলে ধরেন। পুতিন দীর্ঘদিন ধরে যুক্তি দিয়েছিলেন যে, ইউক্রেনীয়দের একটি বৈধ জাতীয় পরিচয় নেই এবং তাদের রাষ্ট্র মূলত পশ্চিমের পুতুল।

পিটার দ্য গ্রেটের স্মৃতিকে উল্লেখ করার মাধ্যমে এটিও স্পষ্ট হয়ে যায় যে, পুতিনের লক্ষ্যগুলো ঐতিহাসিক নিয়তির কিছু অনুভূতি দ্বারা চালিত। এবং পুতিনের সাম্রাজ্যিক পুনরুদ্ধারের প্রকল্পটি - তাত্ত্বিকভাবে - অন্য অঞ্চলগুলোতে প্রসারিত হতে পারে যেগুলি একসময় রাশিয়ান সাম্রাজ্য বা সোভিয়েত ইউনিয়নের অন্তর্গত ছিল, এমন কিছু যা ইউএসএসআর-এর পতন থেকে উদ্ভূত সমস্ত দেশে শঙ্কা জাগাবে৷

এই সপ্তাহের শুরুতে, ক্রেমলিন-পন্থী ইউনাইটেড রাশিয়া পার্টির একজন ডেপুটি রাশিয়ার পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ স্টেট ডুমাতে একটি খসড়া আইন জমা দিয়েছে, যাতে লিথুয়ানিয়ার স্বাধীনতাকে স্বীকৃতি দেয়ার জন্য একটি সোভিয়েত প্রস্তাব বাতিল করা হয়। লিথুয়ানিয়া এখন ন্যাটোর সদস্য এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের অংশ হতে পারে, কিন্তু পুতিনের রাশিয়ায় এই ধরনের নব্য-ঔপনিবেশিক ভঙ্গি প্রেসিডেন্টের প্রতি আনুগত্যের নিশ্চিত প্রদর্শন। সূত্র: সিএনএন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন