বৃহস্পিতবার, ১৮ আগস্ট ২০২২, ০৩ ভাদ্র ১৪২৯, ১৯ মুহাররম ১৪৪৪

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ইউক্রেনের ইইউ’র প্রার্থীতাকে পাত্তা দিচ্ছে না রাশিয়া

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৪ জুন, ২০২২, ৬:৩৯ পিএম

ইউরোপীয় ইউনিয়ন বৃহস্পতিবার আনুষ্ঠানিকভাবে ইউক্রেনকে সদস্য পদের প্রার্থী করেছে। যদিও ইউক্রেনের জন্য এ ব্লকে যোগদানের জন্য এক দশক বা তারও বেশি সময় লাগতে পারে, তবে সিদ্ধান্তটি কিয়েভকে সংহতির বার্তা দেয় এবং মস্কোর প্রতি উপেক্ষা দেখায়, যা এক দশকেরও বেশি সময় ধরে ইউক্রেনকে পশ্চিমের সাথে সম্পর্ক গড়ে তোলা থেকে বিরত রাখতে কাজ করেছে। তবে আদতে এতে রাশিয়ার কোন যায়-আসে না। ইউক্রেনের জন্য এতে কোন লাভ হবে না।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন গত সপ্তাহে ইউক্রেনের ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রার্থীর মর্যাদা অর্জনের সম্ভাবনা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি অপ্রত্যাশিতভাবে বলেছিলেন, ‘আমাদের কোন আপত্তি নেই।’ কিন্তু তারপর থেকে, রাশিয়ান কর্মকর্তারা এবং বিশ্লেষকরা বলেছেন যে, পুতিন আসলে বোঝাতে চেয়েছেন এতে রাশিয়ার কোন কিছুই আসবে যাবে না। এটি ক্রেমলিনের মিশ্র বার্তার আরেকটি উদাহরণ ছিল, যা যুদ্ধের আগে শুরু হয়েছিল যেটি কূটনীতি একটি সংঘাত এড়াতে পারে কিনা এবং একটি সম্ভাব্য শান্তি চুক্তিতে অস্পষ্ট অবস্থানের সাথে আক্রমণের পরেও অব্যাহত ছিল।

তবে একটি বিষয় স্পষ্ট মনে হচ্ছে: ইউক্রেনের প্রার্থীর মর্যাদা অর্জন ইইউ-এর সাথে পুতিনের অভিযুক্ত এবং বিরক্তিকর সম্পর্কের ক্ষেত্রে একটি মাইলফলক চিহ্নিত করে। রাশিয়ান এবং ইউক্রেনীয়দের জন্য একইভাবে, ইউক্রেন প্রকৃতপক্ষে কোনও দিন ইউরোপীয় ইউনিয়নে যোগদান করবে কিনা এ প্রশ্নটি বর্তমান রাশিয়ার আক্রমণ থেকে কীভাবে দেশটি টিকে আছে সেই প্রশ্নের তুলনায় গৌণ। এটি একটি কারণ হতে পারে দেশের ইইউতে ইউক্রেনের আবেদন রাশিয়ার খবরের শীর্ষস্থানীয় ঘটনা নয়।

‘এমন একটি দৃষ্টিভঙ্গি রয়েছে যে, ইউক্রেনের বর্তমান ভৌগলিক সীমানায় হয় অস্তিত্ব থাকবে না বা থাকবে না,’ রাশিয়ান সরকারের ঘনিষ্ঠ একটি গবেষণা সংস্থা রুশ ইন্টারন্যাশনাল অ্যাফেয়ার্স কাউন্সিলের মহাপরিচালক আন্দ্রেই কর্তুনভ বলেছেন, ‘এ ধারণাটি প্রার্থীর অবস্থার সিদ্ধান্তের তাৎপর্যকে আরও কমিয়ে দেয়। কারণ সবকিছু বদলে যেতে পারে।’ ক্রেমলিনের বর্ণনায়, এটি ওয়াশিংটন এবং লন্ডনের রুশ-বিরোধী অক্ষ যা ইউরোপীয় ইউনিয়নের সর্বোত্তম স্বার্থের বিরুদ্ধে ইউক্রেনকে সদস্য হিসাবে মেনে নিতে ব্রাসেলসকে চাপ দিচ্ছে।

‘ইউরোপ কি পাবে? ইউক্রেন নাকি এর অবশিষ্টাংশ? বৃহস্পতিবার রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা আরআইএ নভোস্তি দ্বারা প্রকাশিত একটি প্রবন্ধ জিজ্ঞাসা করেছিল, ‘না, রাশিয়া এর অনুমতি দেবে না, কারণ তারা পুরোপুরি বুঝতে পারে যে ইইউ মস্কোর বিরুদ্ধে অ্যাংলো-স্যাক্সন রাজনীতির একটি ক্ষেত্র হয়ে উঠছে।’

তাই পুতিন যখন গত সপ্তাহে সেন্ট পিটার্সবার্গে একটি অর্থনৈতিক সম্মেলনে বলেছিলেন যে, তিনি ইউক্রেনকে ইউরোপীয় ইউনিয়নে যোগদানে আপত্তি করেন না, তখন তার কথায় অবাক হওয়ার কিছু থাকে না। তিনি দাবি করেছিলেন যে, ইউক্রেনকে তাদের নিজস্ব হিসাবে গ্রহণ করা ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্যদের জন্য ব্যয়বহুল হবে এবং ইউরোপীয় সংস্থাগুলি নতুন প্রতিযোগিতা এড়াতে ইউক্রেনের অর্থনীতির বিকাশকে স্তব্ধ করতে চাইবে। ‘যদি ইউক্রেন তার অভ্যন্তরীণ বাজার রক্ষা করতে ব্যর্থ হয় তবে এটি সম্পূর্ণরূপে একটি আধা উপনিবেশে পরিণত হবে, আমার মতে,’ পুতিন বলেছেন, ‘কিন্তু এটা আমাদের মাথাব্যাথা নয়।’

বার্লিনে ইউরোপীয় কাউন্সিল অন ফরেন রিলেশন্সের বিশ্লেষক কাদরি লিক বলেছেন, ইউক্রেনকে ইইউ প্রার্থীর মর্যাদা একটি ‘সমর্থনের প্রতীকী অঙ্গভঙ্গি’। দেশটি ব্লকে যোগ দিতে কয়েক বছর সময় লাগবে। এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের সাথে রাশিয়ার তুলনা সত্ত্বেও ন্যাটোর সাথে, ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্যপদ স্বয়ংক্রিয়ভাবে ইউক্রেনকে মস্কো থেকে ভবিষ্যতের হুমকির মুখে নিরাপত্তা গ্যারান্টি প্রদান করবে না। সূত্র: নিউইয়র্ক টাইমস।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
Mohmmed Dolilur ২৪ জুন, ২০২২, ৭:৩৮ পিএম says : 0
ইউরোপীয় ইউনিয়ন নেটোর সদস্য হলো কি এত লাভ হবে,সেখানে কি মধুর খনিজ সম্পদ আছে যে মধু খাবে,যদিও মধু থাকে,তবে মোওমাছি নেই,রাশিয়ার নিকটে উভয় আছে,যদি মধু শেষ হয় মধু আবার জন্ম দেওয়া বেপার হবে না,আর তুমি জেলেনসকি যখন ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে মধু পাইবা না,তখন কি করবা।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন