সোমবার, ১৫ আগস্ট ২০২২, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৬ মুহাররম ১৪৪৪

জাতীয় সংবাদ

পদ্মা সেতু ভবিষ্যতে বড় কাজে উৎসাহ দেবে: সেনাপ্রধান

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৫ জুন, ২০২২, ৩:০৬ পিএম

স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ বলেছেন, এই সেতু ভবিষ্যতে বড় কাজে উৎসাহ দেবে।

শনিবার (২৫ জুন) সকালে পদ্মা সেতুর মাওয়া প্রান্তে আয়োজিত সুধী সমাবেশস্থলে সাংবাদিকদের কাছে তিনি এই প্রতিক্রিয়া জানান।

সেনাপ্রধান বলেন, আমি ব্যক্তিগতভাবে বিশ্বাস করি, পদ্মা সেতু ভবিষ্যতে আরও বড় বড় কাজ করতে উৎসাহ দেবে।

শফিউদ্দিন বলেন, আমি একজন বাংলাদেশি হিসেবে সত্যিই আজকে গর্বিত। এমন একটা অর্জন সশরীরে দেখে যেতে পারলাম। এটা আল্লাহর বিশেষ রহমত বলে মনে করি।

মহা আড়ম্বরে উদ্বোধন হলো স্বপ্নের পদ্মা সেতু। এ উপলক্ষে সকাল থেকেই পদ্মার দুই পারে বিরাজ করে উৎসবের আমেজ। সুধী সমাবেশে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, বিভিন্ন বাহিনীর প্রধান, সরকারি উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাসহ বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূতরা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে সকাল ১০টার কিছু আগে ঢাকার তেজগাঁওয়ের পুরাতন বিমানবন্দর থেকে থেকে হেলিকপ্টার যোগে মাওয়া পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী। সেখানে সুধী সমাবেশে যোগ দেন তিনি। সুধী সমাবেশে বক্তব্য শেষে পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে স্মারক ডাকটিকিট, স্যুভেনির শিট, উদ্বোধন খাম ও সিলমোহর প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী। মাওয়া প্রান্তে উদ্বোধনী ফলক ও ম্যুরাল-১ উন্মোচন করে মোনাজাতে অংশ নেন তিনি।

দুপুর ১২টায় পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর গাড়ি যোগে পদ্মা সেতুতে ওঠেন সরকারপ্রধান। পদ্মা সেতুতে উঠে ১৪ মিনিট দাঁড়ান তিনি। এ সময় সেখানে সেনা ও বিমান বিমান বাহিনীর কসরত দেখেন তিনি। এরপর জাজিরার উদ্দেশে রওনা হন।

দুপুর ১২টা ৩৮ মিনিটে জাজিরা প্রান্তে উদ্বোধনী ফলক ও ম্যুরাল-২ উন্মোচন করে আবারও মোনাজাত করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

সেখান থেকে মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার কাঁঠালবাড়ির উদ্দেশে সড়কপথে যাত্রা করে কাঁঠালবাড়িতে আওয়ামী লীগের জনসভায় অংশ নেন দলটির সভাপতি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
jack ali ২৫ জুন, ২০২২, ৫:২০ পিএম says : 0
তারা কি জনগণের রক্ত পানি করে ট্যাক্সের টাকা খরচ করে লক্ষ লক্ষ লোক জড়ো করে উদ্বোধন করে আমাদের দেশের সরকার তারা জানে না কিভাবে দেশের উন্নতি করতে হয় আমাদের দেশের শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে দিয়েছে যারা শিক্ষিত হয়ে বের হয় তারা কিছুই করতে পারো না তারা সমাজ এবং পরিবারের বোঝা বিদেশের পরে নির্ভরশীল করে রেখেছে আমাদের দেশের সরকার কারণ তাদের কাছ থেকে কাজ করালে যদি এক লক্ষ টাকা দিয়ে কোন কাজ করতে হয় তখন তারা নেবে 10 লক্ষ টাকা এর মধ্যে 9 লক্ষ টাকা তারা মেরে দিবে সরকার এবং পদ্মা সেতুর ক্ষেত্রেও তাই হয়েছে 11 হাজার কোটি টাকার পদ্মা সেতু 30 হাজার কোটি টাকারও বেশি খরচ হয়েছে আবার উদ্বোধন করতে কত হাজার কোটি টাকা খরচ হয়েছে সেটা তারাই জানে এবং কেয়ামতের দিন আল্লাহ বলে দিবে আল্লাহর গজব পড়বে তোমাদের পরে মানুষ বন্যায় ধ্বংস হয়ে গেছে সেদিকে তাদের কোন দায়িত্ব জ্ঞান নাই তারা আনন্দ ফুর্তি করছে
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন