সোমবার, ১৫ আগস্ট ২০২২, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৬ মুহাররম ১৪৪৪

আন্তর্জাতিক সংবাদ

রুশ বাহিনীর পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে সেভেরোদোনেৎস্ক

‘তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধে লন্ডনে প্রথম বোমা হামলা হবে’ রাশিয়ার অগ্রাভিযানে আটকা পড়েছে ২ হাজার ইউক্রেন সেনা রুশ হামলায় ইউক্রেনে ৮০ পোলিশ যোদ্ধা নিহত রাশিয়া পারমাণবিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ চুক

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৭ জুন, ২০২২, ১২:০৩ এএম

চেচনিয়া কমান্ডার রমজান কাদিরভ গতকাল তার টেলিগ্রাম চ্যানেলে ঘোষণা করেছেন যে, শিল্পাঞ্চল এবং সেভেরোদোনেৎস্ক বিমানবন্দর, লুগানস্ক গণপ্রজাতন্ত্র, ইউক্রেনীয় বাহিনীর হাত থেকে সম্পূর্ণ মুক্ত হয়েছে। কাদিরভ বলেন, ‘সেভেরোডোনেৎস্ক শিল্পাঞ্চল এবং বিমানবন্দর এখন সম্পূর্ণরূপে মুক্ত’।
কাদিরভের মতে, বিমানবন্দরটি পরিষ্কার করার প্রক্রিয়া চলছে এবং এর পুরো এলাকা নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। তিনি আরো বলেন, সেভেরোডোনেৎস্কের আজোট প্ল্যান্ট থেকে ৮০০ বেসামরিক নাগরিককে মুক্ত করা হয়েছে। ‘বোরোভস্কয় বসতি পরিষ্কারের কাজও চলছে। কাদিরভ বলেছেন, ‘ইউক্রেনের প্রতিরক্ষার কঠিন পয়েন্ট দীর্ঘস্থায়ী হয়নি’। তিনি তার সহকারী এপ্টি আলায়েদিনভ এবং এলপিআর পিপলস মিলিশিয়ার দ্বিতীয় গ্রুপের কমান্ডারকে ধন্যবাদ জানান।
কৌশলগত গুরুত্বপূর্ণ শহর সেভেরোডোনেৎস্ক পুরোপুরি রাশিয়ার দখলে চলে গেছে বলে জানিয়েছেন মেয়র অলেক্সান্ডার স্ট্রিউক। তার এমন ঘোষণায় নিশ্চিত হওয়া গেল যে, ইউক্রেনের বাণিজ্যিক শহরটির পতন ঘটেছে। মেয়রের এ ঘোষণার আগে, সেভেরোডোনেৎস্ক থেকে ইউক্রেনীয় বাহিনীকে সরে আসার নির্দেশ দেয়া হয়। লুহানস্কের গভর্নর সের্হি হাইদাই বলেন, ‘এটা এখন এমন একটা পরিস্থিতি যে, বিধ্বস্ত স্থানে থাকার কোনো মানে হয় না’। এর মধ্যেই ইউক্রেনের জাতীয় টেলিভিশনে এক ঘোষণায় মেয়র বলেন, ‘শহরটি এখন রাশিয়ার দখলে। তারা এখন সেখানে তাদের নিজস্ব ব্যবস্থাপনা বাস্তবায়নের চেষ্টা চালাচ্ছে। যতদূর জানি, সেভেরোডোনেৎস্কে কর্তৃপক্ষও নিয়োগ দিয়েছে মস্কো’।
লুহানস্ক ও ডোনেস্ক এই দুই মিলে ডনবাস। লুহনস্কে অবস্থিত কৌশলগত গুরুত্বপূর্ণ শহর সেভেরোডোনেস্ক শহরে গত কয়েক সপ্তাহ ধরে রুশ ও ইউক্রেনীয় বাহিনীর মধ্যে রক্তক্ষয়ী লড়াই চলছিল। শহরটি দখলে নিতে সর্বশক্তি নিয়ে হামলা চালায় রাশিয়া। তবে ইউক্রেনীয় যোদ্ধারা তীব্র প্রতিরোধ গড়ে তোলায় রুশ যোদ্ধাদের পক্ষে কঠিন হয়ে ওঠে।
রাশিয়ান প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র লেফটেন্যান্ট-জেনারেল ইগর কোনাশেনকভ বলেছেন, রাশিয়ান বিমান, ক্ষেপণাস্ত্র বাহিনী এবং আর্টিলারি ২৪ ঘণ্টায় ৭৮০ জনেরও বেশি জাতীয়তাবাদীকে নির্মূল করেছে। তিনি বলেন, ‘বিমান হামলা, ক্ষেপণাস্ত্র বাহিনী এবং আর্টিলারি দিয়ে ৭৮০ জনেরও বেশি জাতীয়তাবাদীকে নিশ্চিহ্ন করা হয়েছে’। রাশিয়ান বাহিনী ১ হাজার ৩৫৫ ইউক্রেনীয় ড্রোন এবং ৩ হাজার ৭৯৭টি ট্যাংক ধ্বংস করেছে। রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র লেফটেন্যান্ট জেনারেল ইগর কোনাশেনকভ গতকাল বলেছেন, বিশেষ সামরিক অভিযানের শুরু থেকে রাশিয়ার সশস্ত্র বাহিনী ২১৩টি ইউক্রেনীয় বিমান, ১ হাজার ৩৫৫টি ড্রোন, ৩,৭৯৭টি সাঁজোয়া যান এবং ৬৭০টি ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা ধ্বংস করেছে।
মুখপাত্র বলেছেন, ‘বিশেষ সামরিক অভিযানের শুরু থেকে রাশিয়ান সশস্ত্র বাহিনী মোট নির্মূল করেছে: ২১৩টি বিমান, ১৩২টি হেলিকপ্টার, ১ হাজার ৩৫৫টি ইউএভি, ৩৫০টি এয়ার-মিসাইল প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা, ৩ হাজার ৭৯৭টি ট্যাঙ্ক এবং অন্যান্য সাঁজোয়া যান এবং ৬৭০টি যানবাহন’।
রুশ হামলায় ইউক্রেনে ৮০ পোলিশ যোদ্ধা নিহত : পূর্ব ইউক্রেনে রুশ বাহিনী নিভুল হামলায় ৮০ জনের বেশি পোলিশ যোদ্ধাকে হত্যা করেছে। রাশিয়ার পক্ষ থেকে এ দাবি করা হয়েছে। আল জাজিরার লাইভ প্রতিবেদন গতকাল এ তথ্য জানিয়েছে।
রাশিয়ার প্রতিরক্ষা বাহিনী এক বিবৃতিতে বলেছে, দোনেৎস্ক অঞ্চলে কনস্তানতিনোভকার মেগাটেক্স জিঙ্ক কারখানায় নির্ভুল হামলায় ৮০ জন পোলিশ ভাড়াটে সেনা, ২০টি সাঁজোয়া যুদ্ধযান এবং আটটি গ্র্যাড একাধিক রকেট লঞ্চার ধ্বংস হয়েছে।
এদিকে ইউক্রেনের উত্তরে সীমান্তবর্তী অঞ্চল চেরনিহিভে রাশিয়ার মিত্র দেশ বেলারুশের ভূখণ্ড থেকে ব্যাপক বোমাবর্ষণ চালানো হয়েছে বলে ইউক্রেনের সেনাবাহিনী দাবি করেছে। ইউক্রেনের উত্তরাঞ্চলীয় সামরিক কমান্ড ফেসবুকে বলেন, স্থানীয় সময় সকাল ৫টা নাগাদ চেরনিহিভ অঞ্চল ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে ব্যাপক বোমাবর্ষণের শিকার হয়েছে। বেলারুশ থেকে থেকে এবং আকাশ থেকে দেশনা গ্রামকে লক্ষ্য করে ২০টি রকেট নিক্ষেপ করা হয়েছে।
রাশিয়ার অগ্রাভিযানে আটকা পড়েছে ২ হাজার ইউক্রেন সেনা : শুক্রবার রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র লেফটেন্যান্ট-জেনারেল ইগর কোনাশেনকভ জানিয়েছেন, ইউক্রেনের বিশেষ অভিযানে লুহানস্ক এলাকার কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ দুই গ্রামের চারপাশে রাশিয়ার সেনাবাহিনী বেশ কয়েকটি ইউক্রেনীয় সামরিক ইউনিট, নাৎসি সংগঠন এবং বিদেশী ভাড়াটেদের একটি দলকে ঘিরে রেখেছে।
মুখপাত্র বলেছেন, ‘এবার গোরস্কোয়ের আশেপাশে একটি নতুন ঘেরে চারটি ব্যাটালিয়ন আটকা পড়েছে- ২৪তম যান্ত্রিক ব্রিগেডের ৩য় যান্ত্রিক ব্যাটালিয়ন, ১২৮তম পর্বত হামলা ব্রিগেডের ১৫তম পর্বত আক্রমণ ব্যাটালিয়ন, ৪২তম মোটর চালিত পদাতিক ব্যাটালিয়ন ৫ম মোটর ব্রিগেড, ১০১তম আঞ্চলিক প্রতিরক্ষা ব্রিগেডের ৭০তম ব্যাটালিয়ন এবং ৫৭তম মোটরচালিত পদাতিক ব্রিগেডের একটি ব্রিগেড আর্টিলারি গ্রুপ, ডান সেক্টরের একটি নাৎসি সংগঠন (চরমপন্থী সংগঠন হিসাবে রাশিয়ায় নিষিদ্ধ) এবং বিদেশী ভাড়াটেদের একটি দল’।
জেনারেল জোর দিয়ে বলেন, ইউক্রেনীয় ব্যাটলগ্রুপকে পুরোপুরি সিল করা হয়েছে। সব মিলিয়ে ইউক্রেনের ২ হাজার সৈন্য আটকা পড়েছে, যোগ করেছেন তিনি। ‘প্রায় ১,৮০০ সামরিক কর্মী, ১২০ জন রাইট সেক্টর নাৎসি, ৮০ জন বিদেশী ভাড়াটে এবং ৪০টিরও বেশি যুদ্ধের সাঁজোয়া যান এবং প্রায় ৮০টি বন্দুক ও মর্টার,’ মুখপাত্র উল্লেখ করেছেন, ৪১ ইউক্রেনীয় সৈন্য সেই এলাকায় স্বেচ্ছায় আত্মসমর্পণ করেছে।’
এদিকে লুগানস্ক পিপলস রিপাবলিক (এলপিআর) এর অভ্যন্তরীণ মন্ত্রীর সহকারী ভিটালি কিসেলেভ শুক্রবার তাসকে বলেছেন, জোলোটয়, তোশকোভকা এবং গোরস্কয় থেকে পালিয়ে যাওয়ার সময় ইউক্রেনের সৈন্যরা প্রচুর পরিমাণে সামরিক সরঞ্জাম এবং গোলাবারুদ রেখে গেছে। মিত্র বাহিনী জোলোটোয়ে, তোশকোভকা এবং গোরস্কয় থেকে [ইউক্রেনীয় সৈন্যদের] সরিয়ে দিয়েছে। ইউক্রেনীয় সৈন্যরা পালিয়ে গেছে। তারা কেবল পালিয়ে যায়নি, বরং তাদের ফ্ল্যাক জ্যাকেট এবং সামরিক সরঞ্জাম ফেলে গেছে, কারণ বেশিরভাগে জ্বালানি ছিল না। তারা প্রচুর পরিমাণে গোলাবারুদ এবং খাবারও ফেলে দিয়েছে’ কিসেলেভ বলেছেন।
ইউক্রেনের সামরিক স্থাপনায় রাশিয়ার মুহুর্মুহূ ক্ষেপণাস্ত্র হামলা : পশ্চিম ও উত্তর ইউক্রেনের সামরিক স্থাপনায় কয়েক ডজন ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে রাশিয়া। দেশটির স্থানীয় কর্মকর্তারা এ তথ্য জানান। গতকাল আল জাজিরার লাইভ প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে। এক ভিডিও বার্তায় গভর্নর ম্যাক্সিম কজিতস্কি বলেন, পশ্চিম ইউক্রেনের লভিভ অঞ্চলে ইয়াভরিভ ঘাঁটিতে কৃষ্ণ সাগর থেকে ৬টি ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করা হয়েছে। এছাড়া উত্তর ইউক্রেনের ঝিতমির অঞ্চলের গভর্নর ভিতালি বুনেছকো বলেন, সামরিক স্থাপনায় ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় একজন সেনা নিহত হয়েছে। জিতমির শহরের খুব কাছে এক সামরিক স্থাপনায় প্রায় ৩০টি ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানো হয়েছে। তিনি আরও বলেন, অন্তত ১০টি ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিহত এবং ধ্বংস করা হয়েছে।
রাশিয়া পারমাণবিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ চুক্তিতে যোগ দেবে না : শুক্রবার রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মারিয়া জাখারোভা বলেছেন, রাশিয়া পারমাণবিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ চুক্তিতে (টিপিএনডব্লিউ) যোগ দেবে না। পারমাণবিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ চুক্তির রাষ্ট্র-অংশগ্রহণকারীদের প্রথম সম্মেলনের সমাপ্তির পর তিনি এই মন্তব্য করেন। তার মতে, চুক্তির দৃঢ় অগ্রগতি রাষ্ট্রগুলির মধ্যে অনৈক্যকে গভীর করে এবং পারমাণবিক অস্ত্রের অপ্রসারণ সংক্রান্ত চুক্তির শাসনকে দুর্বল করে। ‘টিপিএনডব্লিউ-কে সার্বজনীন করার প্রচেষ্টাকে স্থায়ী ভিত্তিতে রাখার আকাক্সক্ষার সাথে সম্পর্কিত, সম্মেলনের চূড়ান্ত নথিতে লিপিবদ্ধ করা হয়েছে, আমরা জোর দিয়েছি: রাশিয়া এ চুক্তিতে যোগ দিতে চায় না এবং বিশ্বাস করে যে চুক্তিটি কোনও সর্বজনীন স্থাপন করে না। মান: এখন বা ভবিষ্যতেও নয়’, তিনি বলেন।
ইউক্রেনে সংঘাতের ফল ভোগ করছে লাতিন আমেরিকা - আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট : আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট আলবার্তো ফার্নান্দেজ শুক্রবার বলেছেন, ইউক্রেনের সঙ্ঘাতের ফলাফলের কারণে ল্যাটিন আমেরিকা এবং দক্ষিণ গোলার্ধের অন্যান্য দেশগুলো আক্রমণের মুখে পড়েছে। তিনি ব্রিকস প্লাস ফরম্যাটে একটি সভায় বক্তব্য রাখছিলেন, যেখানে তিনি ভিডিও লিঙ্কের মাধ্যমে অংশ নেন।
‘আমি চাই গোটা বিশ্ব শুনুক যে যুদ্ধ যদিও ইউরোপে চলছে, তার মর্মান্তিক পরিণতি ল্যাটিন আমেরিকা এবং ক্যারিবিয়ান, আফ্রিকা এবং সমগ্র দক্ষিণ গোলার্ধে অনুভূত হয়েছে। আমরাই ভুগছি সেই পরিধি’, তিনি উদ্ধৃত হিসাবে বলেছিলেন। এ প্রসঙ্গে আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট যত দ্রুত সম্ভব সঙ্ঘাত সমাধানের আহ্বান জানিয়েছেন। ‘শান্তি অবশ্যই জরুরিভাবে অর্জন করতে হবে, কারণ বিশ্বকে আরো সমান করা জরুরি’ রাষ্ট্রপ্রধান বিশ্বাস করেন। তিনি আরো যোগ করেছেন যে, আর্জেন্টিনা ‘একটি সমাধানের অনুসন্ধানে অংশ নিতে চায় যা জড়িত সকল পক্ষকে একত্রিত করবে’।
রাশিয়ান শাসনে খারাপভাবে ভুগছে মারিউপোল -বললেন মেয়র : একটি ইউক্রেনীয় বন্দর শহর মারিউপোল যা রাশিয়ান সামরিক অভিযানের বর্বরতার প্রতীক হয়ে উঠেছে, শহরের মেয়রের মতে, এখন রাশিয়ান শাসনে খারাপভাবে ভুগছে।
মেয়র ভাদিম বয়চেঙ্কো এ সপ্তাহে একটি টেলিগ্রাম পোস্টে বলেছেন যে, ১ লাখ ২০ হাজার মানুষের শহরে পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা বা খাবার পানি নেই। কলেরা এবং আমাশয়ের বিস্তার এবং শহর জুড়ে ঘন ঘন কবর দেওয়ার কথা উল্লেখ করে তিনি উদ্বিগ্ন যে, মারিউপোল একটি নতুন রোগ বিপর্যয়ের দ্বারপ্রান্তে থাকতে পারে।
‘তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধে লন্ডনে প্রথম বোমা হামলা হবে’ : ক্রেমলিন সতর্ক করেছে যে, বিশ্বযুদ্ধ শুরু হলে লন্ডনই হবে প্রথম বোমা হামলা। ভøাদিমির পুতিনের ঘনিষ্ঠ মিত্র একজন স্টেট ডুমা রাজনীতিবিদ আন্দ্রে গুরুলিভ রাষ্ট্র-চালিত রসিয়া ১ চ্যানেলে ব্রিটেনকে হুমকি দিয়েছেন। ন্যাটো সদস্য লিথুয়ানিয়া কালিনিনগ্রাদের রাশিয়ান এক্সক্লেভে অনুমোদিত পণ্যগুলোকে অবরুদ্ধ করার কারণে ইউক্রেন যুদ্ধ একটি বিশ্বব্যাপী সঙ্ঘাতে বর্ধিত হওয়ার নতুন করে আশঙ্কার মধ্যে কেয়ামত দিবসের সতর্কতা আসে। গুরুলিওভ বলেন যে, ন্যাটো দেশগুলোতে রাশিয়ার আক্রমণে অবরোধ প্রতিরোধের একমাত্র উপায়, যা ধারা পাঁচটি ট্রিগার করবে এবং সম্ভবত তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু করবে।
তিনি বলেছিলেন: ‘প্রথম বিমান অভিযানের সময় আমরা শত্রুর মহাকাশ উপগ্রহের পুরো দলকে ধ্বংস করব। ‘কেউ পাত্তা দেবে না তারা আমেরিকান বা ব্রিটিশ, আমরা তাদের সবাইকে ন্যাটো হিসেবে দেখব। ‘দ্বিতীয়, আমরা ক্ষেপণাস্ত্র-বিরোধী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাকে সর্বত্র এবং ১০০ শতাংশ প্রশমিত করব। ‘তৃতীয়, আমরা অবশ্যই ওয়ারশ, প্যারিস বা বার্লিন থেকে শুরু করব না। প্রথম আঘাত হানবে লন্ডনে’।
৫৪ বছর বয়সী, যিনি রাশিয়ান পার্লামেন্টের প্রতিরক্ষা কমিটির সদস্য, যোগ করেছেন: ‘এটা স্পষ্ট যে, বিশ্বের জন্য হুমকি অ্যাংলো-স্যাক্সনদের কাছ থেকে এসেছে। সূত্র : তাস, রয়টার্স, আল-জাজিরা, ডেইলি মেইল।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (4)
Abul Kalam Azad ২৬ জুন, ২০২২, ৭:৪৭ এএম says : 0
আলহামদুলিল্লাহ
Total Reply(0)
Md Ariful Islam ২৬ জুন, ২০২২, ৭:৪৮ এএম says : 0
জোলেনস্কি তার ইগোর জন্য কৌতুক অভিনেতার মতই অভিনয় করে ইউক্রেনকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। এই ক্ষতিপূরণ তার দেশের জনগণের জন্য অভিশাপ ছাড়া কিছুই বয়ে আনবে না।
Total Reply(0)
Mohmmed Dolilur ২৬ জুন, ২০২২, ১:১৩ এএম says : 0
পুরা ইউক্রেন দখলে আনতে হবে,নয় তো রাশিয়ার সমস্যা হবে ভবিষ্যতে রাশিয়া বিপদের সম্মুখীন হতে হবে,রাশিয়া এবং নাদিমের পুতিন যদি বিশ্বের নায়ক হতে চায়,বিশেষ করে রাশিয়ার মানসম্মান রক্ষা করতে চায়,জরুরি পুরা ইউক্রেন দখলে নিতে হবে,এবং জেলেনসকি কে হত্যা করতে হবে,অন্যথায় লক্ষ্য লক্ষ্য ইউক্রেনী সাধারণ জনগণ মারা যাবে ,একজন নাট্যকার কখনো রাষ্ট্রপতি হতে পারে না।
Total Reply(0)
Mohmmed Dolilur ২৬ জুন, ২০২২, ১:১৩ এএম says : 0
পুরা ইউক্রেন দখলে আনতে হবে,নয় তো রাশিয়ার সমস্যা হবে ভবিষ্যতে রাশিয়া বিপদের সম্মুখীন হতে হবে,রাশিয়া এবং নাদিমের পুতিন যদি বিশ্বের নায়ক হতে চায়,বিশেষ করে রাশিয়ার মানসম্মান রক্ষা করতে চায়,জরুরি পুরা ইউক্রেন দখলে নিতে হবে,এবং জেলেনসকি কে হত্যা করতে হবে,অন্যথায় লক্ষ্য লক্ষ্য ইউক্রেনী সাধারণ জনগণ মারা যাবে ,একজন নাট্যকার কখনো রাষ্ট্রপতি হতে পারে না।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন