সোমবার, ০৮ আগস্ট ২০২২, ২৪ শ্রাবণ ১৪২৯, ০৯ মুহাররম ১৪৪৪ হিজরী

সারা বাংলার খবর

এই ভোটচোরা সরকার প্রশাসন ও আমলাদের ক্যু করা

ঝিনাইদহে আফরোজা আব্বাস

যশোর ব্যুরো : | প্রকাশের সময় : ২৮ জুন, ২০২২, ১২:০১ এএম

জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের কেন্দ্রীয় সভানেত্রী আফরোজা আব্বাস বলেছেন, এই সরকার জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয় বলে বানভাসি মানুষের প্রতি তাদের গুরুত্ব নেই। সিলেটবাসি পানিতে ডুবছে। তাদের পেটে ভাত নেই। অথচ হাসিনা সরকার বিএনপির সময় যে ভিত্তি প্রস্তর করা, ওই পদ্মা সেতু নিয়ে উৎসব করছে। বন্যার্তরা না খেয়ে থাকলেও কোটি কোটি টাকা পদ্মা সেতু উৎসবে খরচ করছে। বাজি ফুটিয়ে আনন্দে মেতে উঠছে। তিনি বলেন, এই সরকার প্রশাসন ও আমলাদের ক্যু করা সরকার বলেই আজ আমলাদের বেতন বাড়ে। তারা বৈশাখী ভাতা পায়। অথচ জনগণ আজ অবহেলিত। দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতিতে মানুষ চিড়ে-চ্যাপ্টা হচ্ছে। কৃষক ফসলের মূল্য পাচ্ছে না। সব জিনিসের দাম বাড়িয়ে নিজেদের লুটপাটের দায় জনগণের ঘাড়ে চাপিয়ে দিচ্ছে। তাই এই ভোটচোর সরকারকে আর এক মূহুর্ত দেশের মানুষ ক্ষমতায় দেখতে চায় না।
আফরোজা আব্বাস গতকাল সোমবার দুপুরে ঝিনাইদহ জেলা জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের সম্মেলন উপলক্ষ্যে আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন। জাতীয়তাবাদী মহিলাদলের ঝিনাইদহ আহ্বায়ক প্রিন্সিপাল কামরুন্নাহার লিজির সভাপতিত্বে সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে দলের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহম্মেদ, ঝিনাইদহ জেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাড. এম এ মজিদ, কেন্দ্রীয় নেত্রী অ্যাড. নেওয়াজ হালিমা আরলি, সাধারণ সম্পাদক জাহিদুজ্জামান মনা, আকতারুজ্জামান, মুন্সি কামাল আজাদ পান্নু, অ্যাড. শামছুজ্জামান লাকি, সাজেদুর রহমান পাপ্পু, ও মহিলা দল নেত্রী তহুরা বেগম প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।
সম্মেলনে ঝিনাইদহের ৬ উপজেলা ও পৌরসভা থেকে বিপুল সংখ্যক নারী যোগ দেন। সম্মেলনকে ঘিরে নেতাকর্মীদের মাঝে উৎসাহ ও উদ্দীপনা ছিল চোখে পড়ার মত। দীর্ঘ দেড় যুগ পরে অনুষ্ঠিত দ্বিবার্ষিক সম্মেলনে প্রিন্সিপাল কামরুন্নাহার লিজিকে সভাপতি, তহুরা বেগমকে সাধারণ সম্পাদক ও ফারহানা রেজা আনজুকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে ১৫১ সদস্য বিশিষ্ট ঝিনাইদহ জেলা জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের কমিটি গঠন করা হয়।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
Harunur Rashid ২৮ জুন, ২০২২, ১২:৪৭ এএম says : 0
If these people knew the purpose of life, they would have acted differently. Very sad indeed.
Total Reply(0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন