সোমবার, ০৮ আগস্ট ২০২২, ২৪ শ্রাবণ ১৪২৯, ০৯ মুহাররম ১৪৪৪ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ইউক্রেন আত্মসমর্পণ করলেই যুদ্ধ থামবে

অস্ত্র সরবরাহ বন্ধে হুঁশিয়ারি রাশিয়ার জি-২০ শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিচ্ছেন পুতিন এশিয়াকে অস্থিতিশীল না করতে ন্যাটোকে আহ্বান চীনের সবসময় ইউক্রেনের পাশে থাকার ঘোষণা জি-৭ নেতাদের

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৯ জুন, ২০২২, ১২:০০ এএম

ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ মঙ্গলবার সাংবাদিকদের বলেছেন, কিয়েভ যদি জাতীয়তাবাদীদের অস্ত্র জমা দেয়ার নির্দেশ দেয় তবে ইউক্রেনের সাথে শত্রুতা সাথে সাথেই শেষ হতে পারে। এদিকে, ওয়াশিংটন থেকে কিয়েভে ক্রমাগত অস্ত্র সরবরাহ পরিস্থিতিকে কেবলমাত্র আরও জটিল করছে বলে সোমবার সতর্ক করেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত আনাতোলি আন্তোনোভ।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি সম্প্রতি মন্তব্য করেছিলেন যে, তিনি শীত আসার আগেই রাশিয়ার সাথে শত্রুতা শেষ করতে চান। তার সেই মন্তব্যের প্রেক্ষিতে মুখপাত্র বলেন, ‘ইউক্রেনীয় পক্ষ এক দিনের মধ্যেই এ সমস্ত কিছু শেষ করতে পারে; জাতীয়তাবাদী ইউনিটগুলির জন্য তাদের অস্ত্র রাখার জন্য একটি আদেশ প্রয়োজন, ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীর জন্য তাদের অস্ত্র রাখার জন্য একটি আদেশ প্রয়োজন; এবং তাদের অবশ্যই রাশিয়ার সমস্ত দাবি পূরণ করতে হবে। তারপর দিন শেষ হওয়ার আগেই সবকিছু শেষ হয়ে যাবে।’ ‘অন্য সবকিছু ইউক্রেনের রাষ্ট্রপ্রধানের অনুমান মাত্র,’ মুখপাত্র যোগ করেছেন। ‘আমাদের প্রেসিডেন্টের (ভøাদিমির পুতিন) যে বিশেষ সামরিক অভিযান পরিকল্পনা অনুযায়ী এগিয়ে চলেছে এবং এর লক্ষ্যগুলি অর্জন করেছে, তার প্রতি আমরা নিজেদেরকে অভিমুখী করি,’ মুখপাত্র জোর দিয়েছিলেন।

এদিকে, সোমবার রাশিয়ান দূতাবাসের টেলিগ্রাম চ্যানেল রাষ্ট্রদূত আনাতোলি আন্তোনোভকে উদ্ধৃত করে বলেছে, ‘ইউক্রেনে বেপরোয়া এবং বেহিসাবী অস্ত্র সরবরাহ পরিস্থিতিকে কেবলমাত্র আরও জটিল করছে এবং এতে আরও উত্তেজনার সাথে অপ্রত্যাশিত পরিণতির হুমকি বাড়িয়ে তুলছে। ওয়াশিংটনের শাসক চক্র, রাশিয়াকে দুর্বল করার ধারণায় অন্ধ হয়ে গেছে, তারা এখনও তাদের পদক্ষেপের পুরো বিপদটি যুক্তিসঙ্গতভাবে মূল্যায়ন করতে সক্ষম নয়।’ দূত যোগ করেছেন, ‘প্রশাসন কিয়েভে অস্ত্রের সরবরাহ বাড়ায়। আগে তারা সাধারণ অস্ত্র সরবরাহ করলেও এখন এটি ভারী আর্টিলারি, মিসাইল ব্যবস্থা এবং সমস্ত উপস্থিতিতে, বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার দিকে চলে গেছে।’ কূটনীতিক জোর দিয়েছিলেন যে, অতিরিক্তভাবে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইউক্রেনীয় পক্ষের সাথে গোয়েন্দা তথ্য ভাগ করে এবং ‘যুদ্ধক্ষেত্রে কীভাবে কাজ করা যায়’ সে সম্পর্কে পরামর্শ করে।

‘মূলত, যুক্তরাষ্ট্র তার উস্কানিমূলক পদক্ষেপের মাধ্যমে কিয়েভ সরকারকে বেসামরিকদের গণহত্যা করার জন্য চাপ দিচ্ছে। উপরন্তু, এখানে তারা ইউক্রেনে মার্কিন ভাড়াটে সৈন্যদের অব্যাহত মোতায়েনকে সমর্থন করছে,’ তিনি যোগ করেছেন। ‘এই ধরনের নীতি বৃহত্তম পারমাণবিক শক্তিগুলির মধ্যে সম্পর্কের ক্ষেত্রে অতিরিক্ত ঝুঁকি তৈরি করে,’ রাষ্ট্রদূত জোর দিয়ে বলেছিলেন।

জি-২০ শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিচ্ছেন পুতিন : রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন জি-২০ গ্রুপের শীর্ষ বৈঠকে অংশ নেয়ার জন্য ইন্দোনেশিয়ার আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছেন। এখন তার সফরের পরিকল্পনা চূড়ান্ত করা হচ্ছে। প্রেসিডেন্টের সহযোগী ইউরি উশাকভ সোমবার গণমাধ্যমকে বলেছেন। ‘হ্যাঁ, আমরা নিশ্চিত করেছি। আমাদের অংশগ্রহণের কারণ আছে,’ উশাকভ বলেন। তবে তিনি নিশ্চিত করতে পারেননি যে পুতিন বৈঠকে ব্যক্তিগতভাবে যোগ দেবেন নাকি ভিডিও লিঙ্কের মাধ্যমে অংশ নেবেন। ‘আমি জানি না। আপাতত, তারা ব্যক্তিগতভাবে অংশগ্রহণের জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছে, তবে অনেক সময় বাকি আছে। আমি আশা করি যে মহামারী পরিস্থিতি এই গুরুত্বপূর্ণ ফোরামটিকে মুখোমুখি করার অনুমতি দেবে। আমি অনুমান করা এড়াতে চাই,’ তিনি বলেছেন।

এদিকে, ইউক্রেনে অভিযান শুরুর পর এই প্রথম বার বিদেশ সফরে গেলেন পুতিন। মঙ্গলবার তাজিকিস্তান গিয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট। সেখান থেকে যাবেন তুর্কমেনিস্তানে। রুশ প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র জানিয়েছেন, কাস্পিয়ান সাগর দেশগুলির সঙ্গে এক সম্মেলনে যোগ দেবেন পুতিন। তাজিকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ইমোমালি রহমানের সঙ্গে বৈঠকের কথা রয়েছে রাশিয়ার প্রেসিডেন্টের। এর আগে শেষ বার চলতি বছরে ফেব্রুয়ারির শুরুতে বিদেশ সফরে গিয়েছিলেন পুতিন। সে সময় চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সঙ্গে বৈঠক করতে বেইজিং গিয়েছিলেন তিনি।

এশিয়াকে অস্থিতিশীল না করতে ন্যাটোকে আহ্বান চীনের : চীন সরকার ইউরোপের সঙ্কটের পরিপ্রেক্ষিতে এশিয়াকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা বন্ধ করার জন্য ন্যাটোকে আহ্বান জানিয়েছে। চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও লিজিয়ান ব্লুমবার্গের প্রতিবেদনে মন্তব্য করার সময় বলেছেন যে, ন্যাটোর নতুন কৌশলগত ধারণায় চীনকে একটি ‘পদ্ধতিগত চ্যালেঞ্জ’ বলা হবে। ‘ন্যাটোর যা করা দরকার তা হল শীতল যুদ্ধের মানসিকতা, জিরো-সাম গেমস এবং শত্রু ভাবমূর্তি তৈরির অনুশীলন পরিত্যাগ করা। ইউরোপে অস্থিরতার পর, ন্যাটো দেশগুলোর উচিত এশিয়া ও বিশ্বকে অস্থিতিশীল করার প্রচেষ্টা ত্যাগ করা,’ ঝাও মঙ্গলবার একটি সংবাদ সম্মেলনে বলেন।
‘শীতল যুদ্ধের একটি পণ্য এবং বিশ্বের বৃহত্তম সামরিক জোট হিসাবে, ন্যাটো দীর্ঘকাল ধরে নিরাপত্তা ইস্যুতে পুরানো দৃষ্টিভঙ্গি প্রকাশ করেছে এবং দীর্ঘকাল ধরে তাদের আধিপত্য বজায় রাখার প্রচেষ্টায় পৃথক দেশগুলির জন্য একটি হাতিয়ার হয়ে উঠেছে,’ তিনি জোর দিয়েছিলেন। ‘চীন একটি স্বাধীন এবং শান্তিপূর্ণ পররাষ্ট্রনীতি অনুসরণ করে। তারা অন্য রাষ্ট্রের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করে না। বা তারা তাদের মতাদর্শ রপ্তানি করে না বা বহির্মুখী এখতিয়ার, অর্থনৈতিক ব্ল্যাকমেল বা একতরফা নিষেধাজ্ঞা ব্যবহার করে না। চীন কীভাবে একটি পদ্ধতিগত চ্যালেঞ্জ হতে পারে?’ ঝাও প্রশ্ন করেন। তিনি জোর দিয়ে বলেন, ‘চীনের উন্নয়ন বিশ্বের জন্য একটি সুযোগ, কারও জন্য চ্যালেঞ্জ নয়। আমরা দৃঢ়ভাবে ন্যাটোকে অবিলম্বে চীন সম্পর্কে মিথ্যা তথ্য ছড়ানো বন্ধ করতে এবং উস্কানিমূলক বক্তব্য থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানাচ্ছি।’

সবসময় ইউক্রেনের পাশে থাকার ঘোষণা জি-৭ নেতাদের : ইউক্রেনের পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছেন জি-৭ নেতারা। জার্মানির ব্যাভারিয়ায় জি-৭ শীর্ষ বৈঠকের দ্বিতীয় দিনে ইউক্রেন প্রসঙ্গকে সবথেকে বেশি প্রাধান্য দেয়া হয়। বৈঠক শেষে দেয়া যৌথ বিবৃতিতে জি-৭ নেতারা ইউক্রেনের প্রতি সমর্থন অব্যাহত রাখার অঙ্গীকার করেন।
খবরে বলা হয়, রাশিয়ার বিরুদ্ধে কীভাবে পদক্ষেপ নেয়া হবে তা নিয়েও আলোচনা করেন জি-৭ নেতারা। তাদের বিবৃতিতে বলা হয়, আমরা যত দিন দরকার হয় ততদিন পর্যন্ত ইউক্রেনকে আর্থিক, মানবিক, সামরিক এবং কূটনৈতিক সমর্থন দিয়ে যাবো এবং তাদের পাশে থাকবো। জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ শোলৎজ বলছেন, ইউক্রেনকে সমর্থন দিয়ে যাবার ব্যাপারে জি-৭ নেতারা ঐক্যবদ্ধ আছেন। পাশাপাশি এ সংঘাত যেন আরো গুরুতর না হয় সে ব্যাপারেও সতর্ক আছেন। জি-৭ নেতারা ইউক্রেনকে সহায়তা করার জন্য কঠিন সব সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন। তবে এমনভাবে তারা কাজ করছেন যাতে রাশিয়া ও ন্যাটোর মধ্যে একটি বড় রকমের সংঘাত এড়ানো যায়। সূত্র : বিবিসি নিউজ, তাস, আল-জাজিরা।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন