শনিবার, ১৩ আগস্ট ২০২২, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৪ মুহাররম ১৪৪৪

জাতীয় সংবাদ

আঞ্চলিক বাণিজ্য উন্নয়নে বিশ্বব্যাংকের ১০৩ কোটি ডলার মঞ্জুর

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৯ জুন, ২০২২, ১০:০১ পিএম

বিশ্বব্যাংক (ডব্লিউবি) বাণিজ্য ও পরিবহন ব্যয় এবং আঞ্চলিক করিডোরে ট্রানজিট সময় কমাতে বাংলাদেশ ও নেপালের আঞ্চলিক বাণিজ্য উন্নয়ন সহায়তায় ১০৩ কোটি মার্কিন ডলার মঞ্জুর করেছে।

দি অ্যাকসেলারেটিং ট্রান্সপোর্ট অ্যান্ড ট্রেড কানেকটিভিটি ইন ইস্টার্ন সাউথ এশিয়া (এক্সেস)-এর প্রথম ধাপ দুদেশের সরকারকে আঞ্চলিক বাণিজ্যের জেড ম্যানুয়াল ও কাগজ-ভিত্তিক বাণিজ্য প্রক্রিয়া, অপর্যাপ্ত পরিবহন এবং অবকাঠামোগত এবং নিয়ন্ত্রণমূলক বাণিজ্য ও পরিবহন নিয়ন্ত্রণ ও প্রক্রিয়ার প্রধান অন্তরায়গুলো দূর করার ক্ষেত্রে সহায়ক হবে।

আজ এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রথম ধাপের কার্যক্রম দীর্ঘ মেয়াদে দীর্ঘসূত্রী ম্যান্যুয়েল ও কাগজ-ভিত্তিক বাণিজ্য প্রক্রিয়ার স্থলে ডিজিটাল অটোমেডেট পদ্ধতি প্রবর্তনে সহায়তা করবে।

অটোমেশনে দ্রুত বর্ডার ক্রসিং টাইম দ্রুতকরণে সক্ষম করবে এবং ট্রাক এন্ট্রি ও এক্সিট, ইলেকট্রটিক সারিকরণ ও স্মার্ট পার্কিংয়ের ইলেকট্রনিক ট্র্যাকিং ইনস্টল করা হবে।
সবুজ ও জলবায়ু-স্থিতিস্থাপক নির্মাণ নিশ্চিত করার সঙ্গে সঙ্গে এটি বাছাইকৃত সড়ক করিডোর উন্নত এবং মূল স্থলবন্দর ও কাস্টম অবকাঠামো উন্নত করতে সহায়তা করবে। এটি স্থলবেষ্টিত নেপাল ও ভুটানকে বাংলাদেশ ও ভারতের প্রবেশদ্বার দেশগুলোর সঙ্গে একাত্ম করতেও সহায়তা করবে।

বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়া শাখার ভাইস-প্রেসিডেন্ট হার্টউইগ শেফার বলেন, ‘দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর জন্য আঞ্চলিক বাণিজ্যের অপার সম্ভাবনার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমান দক্ষিণ এশিয়ার আঞ্চলিক বাণিজ্য মাত্র ৫ শতাংশ, যেখানে পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে আঞ্চলিক বাণিজ্যের হার ৫০ শতাংশ।’

তিনি আরো বলেন, ‘দক্ষিণ এশিয়া উল্লেখযোগ্যভাবে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বাড়াতে পারে আর এভাবে আঞ্চলিক বাণিজ্য ও যোগাযোগ বৃদ্ধির মাধ্যমে লাখ লাখ মানুষের জন্য সুযোগ সৃষ্টি করতে পারে।’

বাংলাদেশে ৭৫৩ দশমিক ৪৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের প্রকল্পটি সিলেট-চারকাই-শেওলা দুই লেনবিশিষ্ট ৪৩ কিলোমিটার সড়ককে জলবায়ু-স্থিতিস্থাপক চার লেনের সড়কে সম্প্রসারণ করবে। এটা শেওলা স্থল বন্দরের সাথে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সংযোগ স্থাপন করবে।

এর ফলে ভ্রমণের সময় ৩০ শতাংশ হ্রাস পাবে। প্রকল্পটি বেনাপোল, ভোমরা ও বুড়িমারি স্থলবন্দরগুলোতে ডিজিটাল পদ্ধতি, অবকাঠামো ও আরো অত্যাধুনিকতা নিয়ে আসবে। বাংলাদেশের বৃহত্তম স্থলবন্দর তিনটিতে দেশের আনুমানিক ৮০ শতাংশ স্থল-ভিত্তিক বাণিজ্য হয়ে থাকে।

এটি চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউস আধুনিকায়ন করতেও সহায়তা দেবে। বাংলাদেশের আমদানি-রপ্তানির ৯০ শতাংশ এই কাস্টমস হাউসের মাধ্যমে হয়।

বিশ্বব্যাংকের বাংলাদেশ ও ভুটান শাখার কান্ট্রি ডিরেক্টর মার্সি টেম্বোন বলেন, ‘২০১৫ থেকে ২০১৯ সালের মধ্যে বাংলাদেশ, ভুটান, ভারত ও নেপালের মধ্যকার বাণিজ্য ছয় গুণ বেড়েছে। এক্ষেত্রে বাংলাদেশের আঞ্চলিক বাণিজ্যের সম্ভাবনার আনুমানিক ৯৩ শতাংশ এখনো কাজে লাগানো যায়নি।’

তিনি আরো বলেন, ‘এই প্রকল্পটি আঞ্চলিক বাণিজ্য ও যোগাযোগ উন্নয়ন এবং কোভিড-১৯ মহামারির মতো সংকটে মোকাবিলায় বাংলাদেশকে সহায়তা করবে।’

সূত্র: বাসস

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন