বৃহস্পিতবার, ১৮ আগস্ট ২০২২, ০৩ ভাদ্র ১৪২৯, ১৯ মুহাররম ১৪৪৪

আন্তর্জাতিক সংবাদ

পুতিনের নেতৃত্বে অনন্য উচ্চতায় রাশিয়া

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১ জুলাই, ২০২২, ৭:৩৪ পিএম

ইউক্রেনে অভিযানের শুরুতে অনেকেই মনে করেছিলেন, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন উত্তেজনাপূর্ণ, ক্ষুব্ধ এবং এমনকি দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। সে সময় তিনি কিছুদিন আড়ালেও ছিলেন। কিন্তু জুন মাসে, পুতিন নতুন করে আবির্ভূত হয়েছেন, যা অনেকটা তার যুদ্ধপূর্ব চিত্রের সাথে সাদৃশ্যপূর্ণ: স্বাচ্ছন্দ্য, ধৈর্যশীল এবং আত্মবিশ্বাসী।

তরুণদের উদ্দেশ্যে দেয়া বক্তৃতায় তিনি নিজেকে রাশিয়ার প্রথম সম্রাট পিটার দ্য গ্রেটের সাথে তুলনা করেছিলেন। এর পর একটি অর্থনৈতিক সম্মেলনে তিনি এই ধারণাটি প্রত্যাখ্যান করেছিলেন যে, নিষেধাজ্ঞা রাশিয়াকে বিচ্ছিন্ন করতে পারে বরং বলেছিলেন যে, এটি পশ্চিমাদের আরও বেশি ক্ষতি করছে। এবং বুধবার, তিনি তুর্কমেনিস্তানে পাঁচ দেশের সাথে শীর্ষ বৈঠকে গর্ব ও আত্মবিশ্বাসের সাথে যোগ দেন।

ইউক্রেন আক্রমণের পর এটি ছিল পুতিনের প্রথম বিদেশ সফর। স্পেনে ন্যাটো সম্মেলনের পাল্টা হিসাবে তিনি এ বৈঠক করেন বলে মনে করা হচ্ছে। এর মাধ্যমে পুতিন রাশিয়ানদের এবং বিশ্বকে একটি বার্তাও পাঠিয়েছেন যে, ইউক্রেনে যুদ্ধ সত্ত্বেও, ক্রেমলিনের প্রভাব বাড়ছে। এ সফরটি ছিল পুতিনের বৃহত্তর রূপান্তরের সর্বশেষ পদক্ষেপ যা সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলিতে স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। তিনি যুদ্ধকালীন সঙ্কট মোকাবেলা করেছেন একজন শান্ত, পিতৃতান্ত্রিক নেতার মতো করে, যিনি রাশিয়ানদের বিশ্বের বিপদ থেকে রক্ষা করেন। তিনি অত্যান্ত দক্ষতার সাথে পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞার স্রোত কাটিয়ে যুদ্ধ প্রচেষ্টা এবং তার অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক ব্যবস্থাকে স্থিতিশীল করেছেন।

এ সপ্তাহে পুতিনের বার্তার মূল চাবিকাঠি হল যে, রাশিয়াকে বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্নতা করা কোনভাবেই সম্ভব নয়। এবং ন্যাটো সম্মেলনের ঘোষণাগুলো - ইউক্রেনকে সমর্থন করার এবং জোটের পূর্ব দিকের অংশকে শক্তিশালী করার সংকল্প – তার জন্য তেমন উদ্বেগের বিষয় নয়।

বুধবার, পুতিন কাস্পিয়ান সাগরকে ঘিরে থাকা পাঁচটি দেশের নেতাদের এক সমাবেশের জন্য তুর্কমেনিস্তানে উড়ে গেছেন, যার মধ্যে আজারবাইজান, কাজাখস্তান এবং ইরানও রয়েছে। শীর্ষ সম্মেলনটি ব্যবহারিক তাৎপর্যপূর্ণ কারণ রাশিয়া অর্থনৈতিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ, শক্তি সমৃদ্ধ অঞ্চলে তার প্রভাব বিস্তার করার চেষ্টা করছে, যখন কাছাকাছি আফগানিস্তান থেকে আমেরিকান প্রত্যাহারের ফলে শক্তির শূন্যতা পূরণ করতে চাইছে।

পরবর্তীতে, পুতিন একটি সংক্ষিপ্ত সংবাদ সম্মেলনে এ ধারণাটিকে খারিজ করে দেন যে, ইউক্রেনে তার অভিযান বন্ধ হতে পারে কারণ, সুইডেন এবং ফিনল্যান্ড ন্যাটোতে যোগদান করতে যাচ্ছে। একটি পশ্চিমা-মিত্র ইউক্রেন, তিনি জোর দিয়ে বলেছিলেন, দুটি নর্ডিক দেশের চেয়ে অনেক বেশি হুমকি হবে। পুতিনকে নিয়ে পশ্চিমাদের যে ভবিষ্যদ্বাণী ছিল যে, তিনি একটি আনুষ্ঠানিক যুদ্ধ ঘোষণা করবেন এবং একটি সামরিক খসড়া স্থাপন করবেন তা বাস্তবায়িত হয়নি। পরিবর্তে, পুতিনের কৌশলে এখন পশ্চিমা সংকল্প অর্থনৈতিক চাপে নড়বড়ে হয়ে যাবে এবং রাশিয়া তার বাহিনী ও শহরগুলিকে আঘাত করার কারণে ইউক্রেনের জেলেনস্কির সরকার ভেঙে পড়বে বলে আশা করা হচ্ছে।

পুতিন বুধবার তুর্কমেনিস্তানে তার আট মিনিটের বক্তৃতায় ইউক্রেন বা পশ্চিমের সাথে তার শোডাউনের কথা উল্লেখ করেননি। পরিবর্তে তিনি এ অঞ্চলে পরিবহন ও পর্যটনের উন্নতি এবং দূষণ ও ক্ষয়প্রাপ্ত মৎস্যসম্পদ মোকাবেলায় রাশিয়ার প্রচেষ্টার কথা বলেছেন। এটি আরেকটি লক্ষণ যে, পুতিন কীভাবে রাশিয়াকে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনছেন এবং ব্যণিজ্য সম্প্রসারণ করছেন। তিনি বলেন, প্রথম ক্যাস্পিয়ান ক্রুজ জাহাজটি আগামী বছর রাশিয়ার আস্ট্রখান অঞ্চল থেকে ভলগা নদীর ব-দ্বীপে যাত্রা করবে। জাহাজের নাম: পিটার দ্য গ্রেট। সূত্র: নিউইয়র্ক টাইমস।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন