সোমবার, ০৮ আগস্ট ২০২২, ২৪ শ্রাবণ ১৪২৯, ০৯ মুহাররম ১৪৪৪ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

ধর্মীয় শিক্ষা ছিল, আছে, থাকবে : শিক্ষামন্ত্রী

বন্যা দুর্গত এলাকায় নতুন বই পৌঁছে দেয়ার ২ সপ্তাহ পর এসএসসি পরীক্ষা

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৮ জুলাই, ২০২২, ১২:০২ এএম

ধর্মীয় শিক্ষা তুলে দেয়ার কোন পরিকল্পনা সরকারের নেই বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি বলেন, পাঠ্যμম থেকে ধর্মীয় শিক্ষা তুলে দেওয়া হচ্ছে বলে যে খবর নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সমালোচনা চলছে, তা মিথ্যা। এমন কোন পরিকল্পনা সরকারের নেই। ধর্ম শিক্ষা সব সময় ছিল, এখনও আছে। না থাকবার কোনো কারণ নেই। গতকাল বুধবার সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।
শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমাদের শিক্ষায় আমরা বারবার বলছি, জ্ঞান-দক্ষতা তা যেমন থাকবে, পাশাপাশি সঠিক মূল্যবোধ, নৈতিকতার ধর্ম শিক্ষা একটি আবশ্যিক বিষয়। কাজেই ধর্ম শিক্ষা বাদ দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। আমরা তা দিইনি।
তিনি বলেন, নতুন কারিকুলামে আমরা যেমন সবকিছু করে করে শেখার দিকে যাচ্ছি সেখানে ধর্ম শিক্ষার বইগুলো শুধু পড়ে গেলাম তা যেন না হয়। তারা যেন ধর্ম শিক্ষার বোধগুলো, নৈতিকতা যেন অনুধাবন করতে পারে। তাদের জীবনে চর্চা করতে পারে সেভাবে বইগুলো তৈরি করা হয়েছে।
শিক্ষামন্ত্রী বলেন, যারা আজকে ধর্ম শিক্ষা তুলে দেয়া হয়েছে বলে ধোঁয়া তুলছেন, তাদের উদ্দেশ্য ধর্ম রক্ষা নয়, পক্ষে থাকা নয়, উদ্দেশ্য ধর্মকে অজুহাত হিসেবে ব্যবহার করে দেশকে অস্থিতীশীল করা। দেশের ধর্মভীরু মানুষকে উস্কে দিয়ে সরকারের বিরুদ্ধে এক ধরনের একটা পরিবেশ তৈরি করা এবং আগামী নির্বাচন সামনে রেখে দেশকে অস্থীতিশীল করে তোলা। আমার মনে হয় এটাই তাদের মূল উদ্দেশ্য।
এক প্রশেড়বর জবাবে মন্ত্রী বলেন, আমি তখন দেশে ছিলাম না, একজন সংসদ সদস্য সংসদে দাঁড়িয়ে আমাদের পাঠ্যপুস্তক সম্পর্কে বক্তব্য দিয়েছেন। সেটা তিনিই আবার কদিন পরে স্পিকারের কাছে চিঠি দিয়ে বলেছেন, তার এই তথ্যগুলো সঠিক ছিল না এবং এখনকার বইয়ের জন্য প্রযোজ্য নয়। তিনি এগুলো প্রত্যাহার করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন। আমরা যে যেখানেই থাকি, জনপ্রতিনিধি হই বা অন্য যে কোনো দায়িত্বেই থাকি না কেন, দেশের শিক্ষা ব্যবস্থা একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। যেটা দেশের প্রতিটি মানুষকে ছুঁয়ে যায়। সেই বিষয়টি নিয়ে মন্তব্য করার সময় সব থেকে ভালো সঠিক তথ্য জেনে নিয়ে কথা বলা।
এসএসসি-দাখিল পরীক্ষা: দেশব্যাপী বন্যার কারণে স্থগিত চলতি বছরের এসএসসি, দাখিল ও সমমানের পরীক্ষার বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বন্যায় অনেক শিক্ষার্থীদের বই হারিয়ে গেছে। তাদের কাছে বই পৌঁছে দেওয়ার অন্তত ২ সপ্তাহ পরে এসএসসি পরীক্ষা নেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে।
তিনি বলেন, আমরা খোঁজ রাখছি নিয়মিত। এখনো কিছু কিছু এলাকায় শহর থেকে পানি নেমে গেছে, একদম গ্রাম পর্যায়ে এখনো হয়তো কোথাও কোথাও আছে। সেটাও হয়তো নেমে যাবে। কিন্তু ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বেশ কিছু জায়গায়। আমাদের কাছে তথ্য আসছে আমাদের অনেক পরীক্ষার্থীর বইপত্র...স্বাভাবিক, ওই বন্যার মধ্যে লোকে তার একেবারে গুরুত্বপূর্ণ যা জিনিস সেটা নিয়ে, কোনো রকমে জানটুকু নিয়ে বেরিয়ে আসতে পেরেছেন অনেকে কোনোমতে। সেখানে বই নিয়ে আসার হয়তো সুযোগ হয়নি।
মন্ত্রী বলেন, আমরা এখন পুরোটা অ্যাসেস করছি আমাদের কত পরীক্ষার্থীকে নতুন করে বই দিতে হবে। আমাদের কাছে প্রতি বছর কিছু বাফার স্টক থাকে। এ রকম একটা বড় অঞ্চল নিয়ে বন্যা হয়ে পরীক্ষার্থী বই হঠাৎ এই পর্যায়ে হারিয়ে যাবে সেই রকমটা আসলে আমাদের বিবেচনায় ছিল না। আর সেটা প্রতি বছর রাখা হয়তো সম্ভবও না। আমরা দেখছি, হিসাব করছি। যদি প্রয়োজন হয় আমরা নতুন বই ছাপিয়েও ফেলবো। তারপরও আমরা পরীক্ষার্থীদের হাতে তাদের বইগুলো পৌঁছে দেবো, যাদের বই নষ্ট হয়েছে। তাদের হাতে বই পৌঁছে দেওয়ার পরে অন্তত ২ সপ্তাহ সময় দিতে হবে, তারা বিরাট একটা ট্রমার মধ্যে দিয়েও গেছে। ঘর-বাড়ি ছেড়ে আশ্রয় কেন্দ্রে যেতে হয়েছে। অনেক পরিবার নিঃস্বপ্রায় হয়ে গেছে এই সময়ে। এটা হলো আমাদের মোটামুটি টাইমলাইন। সেটা গিয়ে কোন মুহূর্তে ঠেকবে সেটা বলা সম্ভব না, বলেন শিক্ষামন্ত্রী।
আরেক প্রশেড়বর জবাবে তিনি বলেন, শিশুদের ভ্যাকসিনের বিষয়ে আমি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সঙ্গে কথা বলবো। সেই বিষয়টা নিশ্চিত হওয়ার পরে আমরা পরবর্তী কার্যক্রম নিয়ে চিন্তা করতে পারবো। এটা ঠিক সংμমণ আবার বাড়ছে। আমাদের সবাইকে অনেক বেশি সচেতন হতে হবে। আমাদের ১২›র উপরে সবার তো ভ্যাকসিন দেওয়া আছে। ১২›র নিচে যদি ভ্যাকসিনটা দিয়ে ফেলতে পারি, তাহলে হয়তো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার প্রয়োজন হবে না। আমরা চাচ্ছি যতটা সম্ভব স্কুল খোলা রেখেই আমরা আমাদের সমস্যাগুলো সমাধানের দিকে যাব। কাজে এই মুহূর্তে আমরা স্কুল বন্ধ করে দেওয়ার কথা ভাবছি না। বরং অনেক বেশি সচেতন থেকে, স্বাস্থ্যবিধি অনেক বেশি মেনে চলে শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে নেওয়ার কথা ভাবছি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন