সোমবার, ১৫ আগস্ট ২০২২, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৬ মুহাররম ১৪৪৪

সারা বাংলার খবর

চালু হলো পশু বহনকারী ক্যাটল স্পেশাল ট্রেন

রাজশাহী ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ৭ জুলাই, ২০২২, ১২:৪২ পিএম

আসন্ন ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে কোরবানির পশু সহজেই ভোক্তাদের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য স্বল্পমূল্যে পশু পরিবহনে কোরবানির পশু বহনকারী ক্যাটল স্পেশাল ট্রেনের যাত্রা শুরু হয়েছে। বুধবার সন্ধ্যা ৭ টার দিকে রাজশাহী রেল স্টেশন থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে এই ক্যাটল স্পেশাল ট্রেন ছেড়ে যায়।
এর আগে বিকেল সাড়ে ৬ টার দিকে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের জেনারেল ম্যানেজার অসীম কুমার তালুকদার এই পশুবাহী ট্রেনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।
রেলওয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়, চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে চাহিদা অনুযায়ী পশু নিয়ে বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে রওনা হবে এই ট্রেনটি। এরপর কাঁকনহাট, রাজশাহী, চাটমোহর, উল্লাপাড়া, বঙ্গবন্ধু সেতু (পশ্চিম), জয়দেবপুর ও টঙ্গী হয়ে ভোরে ঢাকার তেজগাঁও এসে পৌঁছাবে ট্রেনটি। পূর্বে পশু পরিবহনে বিভিন্ন সমস্যায় পড়তে হতো খামারি ও পশু ব্যবসায়ীদের। কিন্তু এই ক্যাটল স্পেশাল ট্রেন চালু হওয়ায় সময়, পরিবহন খরচ ও নিরাপত্তাসহ বিভিন্ন সুবিধা পাচ্ছে তারা।
এদিকে, এই ক্যাটল স্পেশাল ট্রেনের প্রতিটি ওয়াগনের ভাড়া ১১ হাজার ৮৯০ টাকা। আর প্রতিটি গরুর ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে ৫৯১ টাকা ৫০ পয়সা ও প্রতিটি ছাগলের ভাড়া ২৯৬ টাকা। একটি ওয়াগনে ২০টি করে পশু বহন করা যাবে। আর একটি ক্যাটল ট্রেনে তিন শতাধিক পশু পরিবহন করা যাবে বলেও জানিয়েছে রেলওয়ে কতৃপক্ষ।
পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের জেনারেল ম্যানেজার অসীম কুমার তালুকদার বলেন, তৃণমূল পর্যায়ের খামারি ও পশু ব্যবসায়ীদের বিশেষ সুবিধা দেওয়ার জন্যই এই ট্রেনটি চালু করা হয়েছে। নির্বিঘেœ কোরবানির পশু পরিবহনে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-ঢাকা রুটে চালু করা হয়েছে একজোড়া ক্যাটল স্পেশাল ট্রেন। চাঁপাইনবাবগঞ্জ স্টেশন থেকে ট্রেনটি ছেড়ে আসছে বিকাল সাড়ে ৪টায়। কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে পৌঁছাবে রাত ৩টা ৪৫ মিনিটে। এরপর চাঁপাইনবাবগঞ্জ ফিরে এসে ট্রেনটি একই গন্তব্যে যাবে। ঢাকা থেকে ফেরার পথে ট্রেনটি ‘ক্যাটল স্পেশাল-১’ ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ঢাকা যাবার পথে ট্রেনটি ‘ক্যাটল স্পেশাল-২’ নামে চলবে।
অসীম কুমার তালুকদার বলেন, যাত্রাপথে ট্রেনটি কাঁকনহাট, রাজশাহী, চাটমোহর, উল্লাপাড়া, বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম, জয়দেবপুর, ধীরাশ্রম, টঙ্গী ও তেজগাঁও স্টেশনে থামবে। এ ছাড়া খামারী ও ব্যবসায়ীদের চাহিদামত যে কোন স্টেশনে ট্রেনটির বিরতি দেওয়া হবে। তবে এক্ষেত্রে আগেই কন্ট্রোল অফিস ও স্টেশন মাস্টারকে জানাতে হবে। খামারী ও ব্যবসায়ীদের উপকারের স্বার্থে এ সিদ্ধান্ত।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন