ঢাকা শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৩ আশ্বিন ১৪২৭, ২৯ মুহাররম ১৪৪২ হিজরী

খেলাধুলা

শহীদের ইনজুরি ভাবাচ্ছে নির্বাচকদের

বিশেষ সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৯ নভেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

বিশেষ সংবাদদাতা : ফর্মের তুঙ্গে ছিলেন মোহাম্মদ শহীদ। লক্ষ্যটা ছিল তার বিপিএলের চলমান আসরে ২৫ থেকে ৩০ উইকেট। সে লক্ষ্যের দিকেই এগুচ্ছিলেন ঢাকা ডায়নামাইটসের এই পেস বোলার। কিন্তু বাধা হয়ে দাঁড়ালো গত ২৬ নভেম্বরে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে ম্যাচটি। ফিল্ডিংয়ের সময়ে ডিপ মিড উইকেটে একটি বাউন্ডারি বাঁচাতে যেয়ে পেছনের পা ঠিক মতো ল্যান্ডিং না হওয়ায় পান চোট। গোড়ালীর সেই চোটে আঘাতপ্রাপ্ত জায়গা গেছে ফুলে। তাতেই বিপিএল শেষ হয়ে গেছে শহীদের। চোটটা গোড়ালীতে পেলেও এম আর আই স্ক্যান রিপোর্টে হাঁটুর লিগামেন্টে হয়েছে ক্ষতিগ্রস্থ। মাঠের বাইরে আপাতত: ২ সপ্তাহ থাকতে হচ্ছে। ফলে বিপিএল শুধু নয়, আগামী ১০ ডিসেম্বর সিডনীর ফ্লাইট ধরার কথা ছিল,সেই ফ্লাইট ধরতে পারছেন না শহীদ। নিউজিল্যান্ড সফরকে সামনে রেখে মিস করবেন সিডনীতে ১০ দিনের কন্ডিশনিং ক্যাম্প। জাতীয় ক্রিকেট লীগে ইনজুরিতে পড়ায় মিস করেছেন ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ২ ম্যাচের টেস্ট সিরিজ। এবার নিউজিল্যান্ড সফর নিয়েও শংকায় পড়ার কথা শহীদের। তবে নিউজিল্যান্ড সফরে ক্রাইশ্চার্চে বাংলাদেশের প্রথম টেস্ট ২০ জানুয়ারী থেকে বলে টেস্ট খেলার আশা ছাড়ছেন না শহীদÑ‘ হাতে বেশ সময় আছে। দুই সপ্তাহ বিশ্রাম নিয়ে পরবর্তীতে আরো ৪ সপ্তাহ কাজ করতে পারব। তাই আশা ছাড়ছি না। ইতোমধ্যে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ মিস হয়েছে,তাই এই সিরিজটি মিস করতে চাই না। ’
অস্ট্রেলিয়া সফরের এক মাস আগে অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ড সফরের দল ঘোষনা করে এখন বিপদে পড়েছেন নির্বাচকরা। বিপিএল খেলতে এসে অনুশীলনে এবাদত,তানভীরের পর বিপিএলে শহীদকে পড়তে হলো ইনজুরিতে। ফর্মের তুঙ্গে থাকা এই পেস বোলারের ইনজুরিতে তার রিপ্লেশমেন্টের কথা ভাবতে হচ্ছে নির্বাচকদের। তেমনটাই জানিয়েছেন নির্বাচক হাবিবুল বাশার সুমনÑ‘খুবই দুর্ভাগ্যজনক শহীদের জন্য। আমারও খুব খারাপ লাগছে। খুব ভালো বোলিং করছিল, ফর্মে ছিল সে। টেস্ট সিরিজে ইনজুরির কারণে খেলতে পারেনি। ওর পরিবর্তে আমরা কাকে নেব তা এখনও ঠিক করিনি। লম্বা স্কোয়াড আমাদের হাতে আছে। সবারই ভিসা প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়ে গেছে। বিপিএল শেষ হওয়ার পর কাকে বেছে নেব, তা ঠিক করব। কারন,আমাদের হাতে এখনো অনেক সময় আছে অনেক। শহীদ ছাড়া বাকি যে ফাস্ট বোলাররা স্কোয়াডে আছে, তারা কিন্তু ভালো করছে।’
শহীদের রিপ্লেশমেন্ট হিসেবে কপাল খুলে যেতে পারে পেস বোলার রুবেল অথবা আল আমিনের মধ্যে কারো। বিসিবি’র চক্ষুশুল হওয়া এই ২ পেস বোলারের পাশে স্ট্যান্ড বাই তালিকায় থাকা পেস বোলার কামরুল ইসলাম রাব্বীও আছেন বিবেচনায়। এমনটাই জানিয়েছেন হাবিবুল বাশার সুমনÑ‘অনেকের নামই আছে। যেমন রাব্বি আছে, আল আমিন, রুবেল আছে। সবাই কিন্তু ভালো বোলিং করছেন।’

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন