মঙ্গলবার, ০৯ আগস্ট ২০২২, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯, ১০ মুহাররম ১৪৪৪ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

নতুন জ্বালানির উৎস সুরক্ষিত করতে ছুরির কাছে ইউরোপের দৌড়ঝাঁপ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১ আগস্ট, ২০২২, ১২:১১ এএম

রাশিয়া প্রাকৃতিক গ্যাস সরবরাহে তার নিয়ন্ত্রণ শক্ত করায় ইউরোপ তার অর্থনীতি চালু রাখার জন্য সর্বত্র জ্বালানি খুঁজছে। কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র পুনরুজ্জীবিত করা হচ্ছে। এলএনজি আনার জন্য টার্মিনালগুলিতে বিলিয়ন বিলিয়ন খরচ করা হচ্ছে, এর বেশিরভাগই টেক্সাসের শেল ক্ষেত্র থেকে। কর্মকর্তা ও রাষ্ট্রপ্রধানরা কাতার, আজারবাইজান, নরওয়ে এবং আলজেরিয়ায় জ্বালানি চুক্তি করতে যান। ইউরোপ জুড়ে আশঙ্কা বাড়ছে যে, রাশিয়ান গ্যাস বন্ধে সরকারগুলোকে জ্বালানি রেশনিং এবং সংস্থাগুলোকে কারখানা বন্ধে বাধ্য করবে। এটি এমন পদক্ষেপ যা হাজার হাজার চাকরিকে ঝুঁকিতে ফেলতে পারে।

এখন পর্যন্ত জ্বালানি অনুসন্ধান খুব সফল হয়েছে। তবে দাম এখনও বৃদ্ধি পাওয়ায় এবং রাশিয়ান হুমকি হ্রাসের কোনো লক্ষণ না দেখা যাওয়ায় ত্রুটির পরিমাপ ক্ষীণ। গবেষণা সংস্থা এসএন্ডপি গ্লোবালের গ্লোবাল গ্যাস কৌশলের ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইকেল স্টপার্ড বলেছেন, ‘এই শীতের বিষয়ে একটি বিশাল এবং খুব বৈধ উদ্বেগ রয়েছে’।

ইউক্রেনে রাশিয়ার অভিযানের পাঁচ মাস পর, ইউরোপ কীভাবে বাড়িঘর গরম ও শীতল করতে, ব্যবসা চালাতে এবং বিদ্যুৎ উৎপন্ন করতে তার জ্বালানি পায় তার মধ্যে একটি ত্বরান্বিত এবং ক্রমবর্ধমান অপরিবর্তনীয় পরিবর্তনের কবলে রয়েছে।

একসময় ইউরোপের সবচেয়ে বড় জ্বালানি রফতানিকারক রাশিয়া থেকে প্রাকৃতিক গ্যাসের পরিমাণ এক বছর আগে যা ছিল তার এক তৃতীয়াংশেরও কম। এ সপ্তাহে রাশিয়ার জ্বালানি জায়ান্ট, গ্যাজপ্রম রাশিয়া থেকে জার্মানি পর্যন্ত একটি প্রধান পাইপলাইনে ইতোমধ্যেই নিম্ন প্রবাহকে তীব্রভাবে রোধ করে ইউরোপে গ্যাসের ফিউচারের দাম রেকর্ড উচ্চতায় পাঠিয়েছে।

গ্যাজপ্রমের ঘোষণার এক দিনের মধ্যে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ব্লক জুড়ে গ্যাস ব্যবহারে ১৫ শতাংশ কমানোর আহ্বান জানিয়েছে।

রাশিয়ান প্রাকৃতিক গ্যাস থেকে দূরে সরে যাওয়া - কয়েক দশক ধরে হাজার হাজার মাইল বিস্তৃত পাইপলাইনের মাধ্যমে বিতরণ করা সাইবেরিয়ান গ্যাস গ্রহণ করার পরে প্রায় প্রশ্নের বাইরে - কারখানার মেঝে জুড়ে শক ওয়েভ পাঠাচ্ছে এবং সরকারগুলিকে শক্তির বিকল্প উৎস সন্ধান করতে বাধ্য করছে।

রাশিয়ান গ্যাসের বিকল্প অন্বেষণের বহুমুখী প্রচেষ্টা মূলত ঘাটতি পূরণ করেছে। অক্সফোর্ড ইনস্টিটিউট ফর এনার্জি স্টাডিজের একজন ফেলো জ্যাক শার্পলসের মতে, গ্যাজপ্রম-এর কাটছাঁট সত্ত্বেও ২০২২ সালের প্রথমার্ধে ইউরোপের প্রাকৃতিক গ্যাস সরবরাহ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় প্রায় সমান ছিল।

এ প্রত্যাবর্তনের একটি উল্লেখযোগ্য পারফরমার ছিল তরল প্রাকৃতিক গ্যাস, ঘনীভূত তরল আকারে শীতল করা হয়েছিল এবং জাহাজে পরিবহন করা হয়েছিল। ইউরোপে জ্বালানির প্রধান উৎস হিসেবে রাশিয়া থেকে পাইপলাইনযুক্ত গ্যাস ব্যবহার করে এটি স্থান পরিবর্তন করেছে। সরবরাহের প্রায় অর্ধেক মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে আসে, যা এ বছর বিশ্বের বৃহত্তম জ্বালানি রফতানিকারক হয়ে উঠেছে।

বছরের শেষের দিকে, ইউরোপীয় দেশগুলো রাশিয়ার পাইপলাইনল বন্ধ করার ক্ষেত্রে নিরাপত্তার একটি মার্জিন প্রদানের জন্য লবণের গুহা এবং অন্যান্য স্টোরেজ সুবিধাগুলোকে গ্যাস দিয়ে পূরণ করার জন্য জ্বালানি সংস্থাগুলোকে চাপ দিচ্ছে।

ইউরোপে গ্যাস সঞ্চয় ক্ষমতা এখন পর্যন্ত মোট ক্ষমতার প্রায় ৬৭ শতাংশ জমা হয়েছে, যা এক বছর আগের তুলনায় ১০ শতাংশের বেশি পয়েন্ট বেশি। এসব স্তর কিছুটা স্বাচ্ছন্দ্য তৈরি করে যে, ইউরোপীয় দেশগুলো শীতের আগে পুরো ৮০ শতাংশ ইইউ লক্ষ্যের কাছাকাছি কিছু পৌঁছতে পারে। সূত্র :

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (7)
Jahir Uddin Babor ৩১ জুলাই, ২০২২, ৭:৫৪ এএম says : 0
বিশ্বের কেউ রাশিয়ার তেল এটা সেটা নিতে পারবে না, আর তাতে আমাদের দেশও বড় ক্ষতিগ্রস্ত, মানুষ কষ্টে পড়েছে কিন্তু ইউরোপ তাদের প্রয়োজনে গ্যাস নিবে! এক তাজ্জব অনৈতিক দ্বিচারিতা তাদের! পুরোই বন্ধ হোক।
Total Reply(0)
Sumit Das ৩১ জুলাই, ২০২২, ৭:৫৪ এএম says : 0
পুতিন অনেক হিসেব করে যুদ্ধ শুরু করেছে, সে যুদ্ধ শুরুর ঠিক আগে ভারত ও চিন সফর করেছিল!! সে জানে ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলো তার কিছুই করতে পারবে না কারণ রাশিয়ার নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের জন্য ভারত ও চিনের উপর নির্ভরশীল !! ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সাথে পুতিন সবসময়ই কথা বলছে!! ভারত ২৫% কমে তেল কিনছে রাশিয়া থেকে
Total Reply(0)
Md Wahidur Rohman ৩১ জুলাই, ২০২২, ৭:৫৪ এএম says : 0
কথায় আছে না, পরের জন্য কুয়া খুদলে সেই কুয়ায় নিজেরি পরতে হয় তেমন টাই হয়েছে।
Total Reply(0)
Mohammod Joynal Abedin ৩১ জুলাই, ২০২২, ৭:৫৪ এএম says : 0
রাশিয়ার উপরে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে ইউরোপ আমেরিকা। এই নিষেধাজ্ঞার ফলে পুরো বিশ্ব আজ জ্বালানি সংকটে। এখন রাশিয়ার উচিত পরো ইউরোপের জ্বালানি তেল গেস রপ্তানি বন্ধ করে দেওয়া।
Total Reply(0)
Alauddin Alo ৩১ জুলাই, ২০২২, ৭:৫৫ এএম says : 0
আমেরিকার কথা শুনে পুরো আরব রাষ্ট্র গুলো বিভিন্ন সমস্যায় নিমজ্জিত, এশিয়ার দেশ গুলোতে সব সময় ক্ষমতার ধন্দ লেগে দিয়েছে, আফ্রিকা দেশ গুলো গৃহযুদ্ধে জর্জরিত, শুধু বাকি ছিল ইউরোপ, তাদের কে কিছু টা হলে ও সমস্যা পড়তে হয়েছে এটা ভাল দিক।!!?
Total Reply(0)
Iftekhairul Alam Tanim ৩১ জুলাই, ২০২২, ৭:৫৫ এএম says : 0
ইউরোপ রে একদম সিধা বানিয়ে ছেড়ে দিবে রাশিয়া.... ভবিষ্যতে বিশ্ব রাজনীতিতে দিন দিন চীন-রাশিয়ার পাল্লাই ভাড়ি হয়ে যাচ্ছে
Total Reply(0)
Sajal Biswas ১ আগস্ট, ২০২২, ৪:৫৭ এএম says : 0
আমেরিকা তার বিশ্ব রাজনীতিতে শ্রেষ্ঠত্ব প্রতিষ্ঠার জন্য তার ইউরোপীয় মিত্রদের নিয়ে রাশিয়া কে অহেতুক শিক্ষা দিতে গিয়ে পশ্চিম ইউরোপ ও অন্যান্য প্রায় সকল দেশগুলোকে বিপদে ফেলেছে, বাংলাদেশ ও অধিক মূল্যে জ্বালানি ও অন্যান্য ভোগ্যপণ্য ক্রয় করতে হিমসিম খাচ্ছে । সকল সঙ্কটের মূলে ইউ এস এ। সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙে যাবার পরও কেন ন্যাটো টিকিয়ে রাখা শুধু নয়, ইউরোপ এর নতুন নতুন দেশকে ন্যাটো এর সদস্য করা- যা রাশিয়ার নিরাপত্তার জন্য সত্যিই বিপদজ্জনক- তাই ইউক্রেন আক্রমণ। এখানে আমেরিকা ও ন্যাটো সম্পূর্ণভাবে দায়ী ।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন