মঙ্গলবার, ১৬ আগস্ট ২০২২, ০১ ভাদ্র ১৪২৯, ১৭ মুহাররম ১৪৪৪

জাতীয় সংবাদ

নারায়ণগঞ্জে ইউনিলিভার এবং ইউএনডিপি’র প্লাস্টিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা প্রকল্প পরিদর্শন করলেন ব্রিটিশ হাইকমিশনার

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৫ আগস্ট, ২০২২, ৮:৩৪ পিএম

অর্থনৈতিক অগ্রগতির পাশাপাশি বাড়ছে প্লাস্টিকের ব্যবহার এবং বাংলাদেশে তৈরি হচ্ছে ব্যবস্থাপনা ও নিয়ন্ত্রণহীন প্লাস্টিক বর্জ্য। দৈনন্দিন পরিবেশগত সংকটের মধ্যে প্লাস্টিকের দূষণ অন্যতম। অব্যবস্থাপিত প্লাস্টিক বর্জ্য শহুরে অঞ্চলে বেশ কিছু জটিল চ্যালেঞ্জ তৈরি করে। এই সমস্যা সমাধানে একটি কার্যকরী অংশীদারিত্ব তৈরি করেছে দেশের অন্যতম বৃহত্তম টেকসই ও দায়িত্বশীল নিত্য-ব্যবহার্য পণ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান (এফএমসিজি) ইউনিলিভার বাংলাদেশ (ইউবিএল) এবং ইউএনডিপি বাংলাদেশ। প্রতিষ্ঠান দুটি নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন (এনসিসি) এর সঙ্গে সহযোগিতায় দেশের নগরাঞ্চলকে গুরুত্ব দিয়ে নারায়ণগঞ্জের মতো প্রধান শহরে চালু করেছে প্লাস্টিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা মডেল (পিডব্লিউএম)। সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনে (এনসিসি) অবস্থিত ইউনিলিভারের প্লাস্টিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা প্রকল্প (পিডব্লিউএমপি) পরিদর্শন করেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার রবার্ট চ্যাটার্টন ডিকসন। এই উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী। আরো উপস্থিত ছিলেন, ইউএনডিপি বাংলাদেশের ডেপুটি আবাসিক প্রতিনিধি ভ্যান গুয়েন, সংস্থাটির হেড অব প্রোগ্রাম ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড পার্টনারশিপ সাপোর্ট ইউনিট (পিএমপিএসইউ) এর সহকারী আবাসিক প্রতিনিধি সরদার এম. আসাদুজ্জামান, ইউনিলিভার বাংলাদেশ এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) জাভেদ আখতার, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম এবং প্রতিষ্ঠান সমূহের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। শুক্রবার (৫ আগস্ট) এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। তারা এ সময় প্রকল্পের আওতাধীন প্লাস্টিক বর্জ্য সংগ্রহশালা পরিদর্শন ও প্লাস্টিক সংগ্রহ কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করেন, প্লাস্টিক বর্জ্য পৃথকীকরণ প্রক্রিয়া দেখেন, এছাড়া কমিউনিটির নেতা, বর্জ্য সংগ্রাহক, রাস্তা পরিচ্ছন্নতাকর্মী সঙ্গে আলোচনা করেন এবং সবশেষে প্রকল্পের ‘ প্লাস্টিক ভ্যালু এডিশন সেন্টার’ ঘুরে দেখেন। দিনব্যাপী এই কার্যক্রমে অতিথিরা প্লাস্টিক বর্জ্যের চ্যালেঞ্জ সমূহ সম্পর্কে অবহিত হন এবং বহুজন অংশীদারিত্ব কী করে দেশের জন্য মডেল তৈরি করতে পারে সে ব্যাপারে ধারণা লাভ করেন।

ব্রিটিশ হাইকমিশনার রবার্ট চ্যাটার্টন ডিকসন বলেন, প্লাস্টিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা প্রকল্পে ইউনিলিভার, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন, ইউএনডিপি এবং ব্রিটিশ হাইকমিশনকে একসঙ্গে কাজ করতে দেখে আমি বেশ আনন্দিত। নগরের প্লাস্টিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় আরো সুযোগ তৈরি করতে আমাদের অবশ্যই পারস্পরিক সহযোগিতা অব্যাহত রাখা উচিত।

ইউনিলিভার বাংলাদেশ এর সিইও এবং এমডি জাভেদ আখতার বলেন, “পৃথিবীর স্বাস্থ্যের উন্নতিতে ইউনিলিভার প্রতিশ্রæতিবদ্ধ এবং প্লাস্টিক পুনঃচক্রায়নে আমাদের কম্পাস দায়বদ্ধতার অংশ হিসেবে, ২০২৫ সাল নাগাদ আমাদের লক্ষ্যমাত্রা হলো পণ্যের মাধ্যমে উৎপাদিত প্লাস্টিক বর্জ্যের চেয়ে বেশি পরিমাণ প্লাস্টিক সংগ্রহ করা। স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছে পৌঁছানোর বিষয়ে ইউএনডিপি’র সক্ষমতা, আমাদের ব্যবসায়িক দক্ষতা ও নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের অটুট সহযোগিতার ফলে আমরা বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ পৌরসভা-কেন্দ্রিক প্লাস্টিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা প্রকল্প গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছি। আমরা বিশ্বাস করি আমাদের এই পদক্ষেপ বাংলাদেশের সবুজ নির্ভর প্রবৃদ্ধির কৌশল ও এসডিজির লক্ষ্যসমূহ পূরণে অন্যান্য কোম্পানি ও সরকারকে অনুপ্রাণিত করবে।”

ইউএনডিপির আবাসিক প্রতিনিধি সুদীপ্ত মুখার্জি বলেন, “ প্লাস্টিক দূষণ বিশ্বজুড়ে আশঙ্কাজনক মাত্রায় বৃদ্ধি পেয়েছে এবং বাংলাদেশে স্থলভাগ কিংবা জলভাগে এই অবস্থা বেশ শোচনীয়। ব্যবসায়িক মডেলকে কেন্দ্র করে একটি কার্যকরী এবং টেকসই ক্যাম্পেইন সাধারণ মানুষের অভ্যাস পরিবর্তন করতে পারে, যাতে প্লাস্টিক পরিবেশ দূষণ না ঘটিয়ে পুনঃচক্রায়নের মাধ্যমে অর্থনীতির অংশ হয়ে থাকবে এবং এই সংকটকে প্রশমিত করবে। এই জরুরি সময়ে রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান, ব্যক্তি উদ্যোগের ব্যবসা-বাণিজ্য এবং নাগরিক সহ সমাজের সকলের সমন্বিত প্রচেষ্টা প্রয়োজন। ইউনিলিভার এবং নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের সঙ্গে অংশীদারিত্বের মাধ্যমে আমরা এই লক্ষ্যই বাস্তবায়ন করতে চাইছি।”

প্লাস্টিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা প্রকল্প (পিডবিøউএমপি) এমন একটি ব্যবসায়িক মডেল যাতে প্লাস্টিক বর্জ্য পুনঃচক্রায়নের ভ্যালু চেইনে সংশ্লিষ্ট সবাই লাভবান হবেন। ইকো-সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন (ইএসডিও) এই প্রকল্পের বাস্তবায়ন অংশীদার, এছাড়া আর্নস্ট অ্যান্ড ইয়ং গেøাবাল (ইওয়াই) প্লাস্টিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিষয়ে নাগরিকদের মধ্যে সচেতনতা তৈরিতে কাজ করছে। এই ধরনের উদ্যোগ শুধু মাথাপিছু পরিবেশগত প্রভাবই কমিয়ে আনবে না, একইসঙ্গে পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের জীবনমান ও স্বাস্থ্যের উন্নয়ন এজেন্ডাগুলো বাস্তবায়নেও কাজ করবে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন