মঙ্গলবার, ০৯ আগস্ট ২০২২, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯, ১০ মুহাররম ১৪৪৪ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

গাজায় ইসরাইলি বিমান হামলা : শিশুসহ নিহত ১০

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৭ আগস্ট, ২০২২, ১২:০৭ এএম

ইসরাইল শুক্রবার যুদ্ধবিমান দিয়ে অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় হামলা চালালে ইসলামিক জিহাদ গ্রুপের একজন কমান্ডার এবং এক তরুণীসহ অন্তত ১০ জন নিহত হয়েছে। ইসলামিক জিহাদের সামরিক শাখা আল-কুদস ব্রিগেডের কমান্ডার তাইসির আল-জাবারি গাজা শহরের কেন্দ্রস্থলে প্যালেস্টাইন টাওয়ারের একটি অ্যাপার্টমেন্টে বিমান হামলায় মারা গেছেন বলে গ্রুপটি জানিয়েছে।
এদিকে রাতে গাজা উপত্যকা থেকে মুহুর্মুহূ রকেট ছোড়া হয় যার অধিকাংশই ইসরাইলি আয়রন ডোম দিয়ে নিষ্ক্রিয় করা হয়।
গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ইসরাইলি বিমান হামলায় আল-জাবারি ও পাঁচ বছর বয়সী এক মেয়েসহ অন্তত ১০ জন নিহত হয়েছে। ইসরাইলি অভিযানের ফলে কমপক্ষে ৫৫ জন আহত হয়েছেন এবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
গাজা শহরের ভবনের সপ্তম তলা থেকে ধোঁয়া বের হয়। বেসামরিক প্রতিরক্ষা দলগুলো লোকজনকে সরিয়ে নিতে এবং হামলার ফলে সৃষ্ট আগুন নেভাতে ঘটনাস্থলে ছুটে যায়।
একজন বাসিন্দা আল-জাজিরাকে তার রক্ত কাপড় দিয়ে ঢেকে বলেন, ‘আমরা সবেমাত্র শুক্রবার দুপুরের খাবার খেয়েছি এবং আমার বাচ্চারা খেলছিল। আমরা যে টাওয়ারে বাস করি সেখানে হঠাৎ একটা বিশাল বিস্ফোরণ ঘটে। আমরা পালিয়ে গেলাম। আওয়াজ ছিল ব্যাপক। আমরা খুব হতবাক হয়েছিলাম, কারণ জায়গাটি বেসামরিক লোকে পরিপূর্ণ। আমি অনেক হতাহতদের দেখেছি যাদের সরিয়ে নেওয়া হয়েছে’।
গাজা-ভিত্তিক লেখক ও কর্মী রানা শুবায়ের, যিনি গাজা স্ট্রিপের পশ্চিম দিকের আল-রেমাল পাড়ায় বাস করেন, তিনি বলেন, যখন ইসরাইল কাছাকাছি ফিলিস্তিন টাওয়ারে আক্রমণ করে তখন তিনি ‘চার থেকে পাঁচটি বিকট শব্দ’ শুনেছেন।
শুভার বলেন, ‘আমি ঘুমিয়ে ছিলাম এবং আমি জেগে উঠে দৌড়াতে লাগলাম, ভাবছিলাম কী হয়েছে’।
‘এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে, লোকজন দৌড়াচ্ছে। আপনি কল্পনা করতে পারেন.. বিল্ডিংটিতে বসবাসকারী লোকদের জন্য এটি কতটা ভয়াবহতা সৃষ্টি করেছিল’ তিনি যোগ করেন। ‘সেখানে শিশুরা খেলছিল ... এটি আমাদের জন্য সত্যিই অপ্রত্যাশিত কিছু ছিল’।
গাজা জুড়ে একাধিক বিস্ফোরণও শোনা দেখা যায়। অবরুদ্ধ ছিটমহলের ওপর ইসরাইলি ড্রোনের ঘোরাঘুরি শোনা যায়। হামলাগুলো খান ইউনিস এবং রাফাহ এর দক্ষিণাঞ্চলের পাশাপাশি আল-শুজাইয়া আশেপাশেও আঘাত হানে।
আল জাজিরার ইউমনা আল-সাইদ রিপোর্ট করেছেন, নতুন করে বিমান হামলা পূর্ব গাজা উপত্যকায়ও আঘাত হানে, শুক্রবার সন্ধ্যায় ইসরাইলি যোদ্ধা বিমানগুলি ঘনবসতিপূর্ণ শহরের উপরে ঘোরাঘুরি অব্যাহত রেখেছিল।
অধিকৃত পশ্চিম তীরের জেনিনে সিনিয়র ফিলিস্তিনি নেতা বাসাম আল-সাদির গ্রেফতারের পর ইসলামিক জিহাদের সাথে উত্তেজনার দিনগুলোর পর এসব আক্রমণ।
তারা কারাম আবু সালেম বাণিজ্যিক ক্রসিং বন্ধসহ সীমান্ত বন্ধের কয়েক দিন পরেও এসেছিল, যা গাজার একমাত্র বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য প্রয়োজনীয় জ্বালানি প্রবাহের জন্য দায়ী।
একটি বিবৃতিতে, ইসলামিক জিহাদ বলেছে: ‘শত্রুরা আমাদের জনগণকে লক্ষ্য করে একটি যুদ্ধ শুরু করেছে এবং আমাদের সকলের কর্তব্য নিজেদের এবং আমাদের জনগণকে রক্ষা করা এবং শত্রুকে তার কর্মকাণ্ড থেকে দূরে সরে যেতে না দেওয়া যা তাদের উদ্দেশ্যকে দুর্বল করার লক্ষ্যে প্রতিরোধ এবং জাতীয় অটলতা’।
হামাসের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা গাজি হামাদ বলেছেন যে, সর্বশেষ হামলাটি ‘একটি নৃশংস অপরাধ, আমাদের জনগণের বিরুদ্ধে ইসরাইলি দখলদারদের সঙ্ঘটিত একটি গণহত্যা’।
হামাদ আল-জাজিরাকে বলেছেন, হামলার জন্য ‘কোন যৌক্তিকতা’ নেই, তিনি যোগ করেছেন যে, ফিলিস্তিনি দলগুলোর নিজেদের রক্ষা করার এবং তাদের জনগণকে ‘সুরক্ষা’ করার অধিকার রয়েছে।
তার মতে, গাজার উপদলগুলো ‘ভাল সমন্বয়’ বজায় রেখেছে এবং ‘ফিলিস্তিনি জনগণের জন্য সর্বোত্তম বিকল্প’ অন্বেষণ করছে।
হামাদ বলেন, ‘আমি মনে করি ইসরাইল কোনো মধ্যস্থতায় আগ্রহী নয়... মধ্যস্থতার কোনো জায়গা নেই, শান্তিপূর্ণ আলোচনার কোনো জায়গা নেই’। ‘আমাদের জনগণ ফিলিস্তিনি প্রতিরোধের সিদ্ধান্ত নেওয়ার এবং প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য অপেক্ষা করছে’। সূত্র : আল-জাজিরা।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন