শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৩ মুহাররম ১৪৪৪

সারা বাংলার খবর

কেশবপুর ক্লিনিকে সিজারের পর গৃহবধূর মৃত্যু

কেশবপুর (যশোর) উপজেলা সংবাদদাতা : | প্রকাশের সময় : ৭ আগস্ট, ২০২২, ১২:০৩ এএম

কেশবপুর সার্জিক্যাল ক্লিনিকে সিজারের অপারেশনের পর সীমা খাতুন নামে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। অপারেশনে সীমার মৃত্যু হলেও তার সদ্য ভুমিষ্ট কন্যা সন্তানটি সুস্থ আছে এবং এটি তার দ্বিতীয় কন্যা সন্তান। ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে গৃহবধূ মারা যাওয়ার খবর পেয়ে তার স্বজনরা এবং স্থানীয় জনতা উত্তেজিত হয়ে ক্লিনিকে হামলা চালায়। এসময় ডাক্তার নার্স ও কর্মচারিরা ক্লিনিক ফেলে পালিয়ে যায়। এ খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। রাত ৯টার দিকে মৃত্যু সীমা খাতুনের লাশ ও তার সদ্য ভুমিস্ট কন্যা সন্তানকে তাদের পরিবারের লোকজন বাড়িতে নিয়ে যায়।
বিভিনড়ব সূত্রে জানা যায়, ৫ আগস্ট দুপুরের দিকে কেশবপুর উপজেলার মঙ্গলকোট গ্রামের সহিদুল ইসলামের স্ত্রী সীমা খাতুনের প্রসব যন্ত্রণা শুরু হলে তাকে স্থানীয় সার্জিক্যাল ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। এরপর চুক্তিপত্রের মাধ্যমে সন্ধ্যার দিকে গৃহবধূ সীমাকে আপারেশনের জন্য থিয়েটারে নিয়ে যাওয়া হয় এবং তার সীজারিয়ান অপারেশন করা হয়। অপারেশন কালেই ভুল অপারেশনে তার মৃত্যু হয়েছে বলে স্বজনদের অভিযোগ।
সীমার স্বামী সহিদুল ইসলাম বলেন, খুলনার সার্জিকাল ডাক্তার আবুল কালাম আজাদকে দিয়ে তার স্ত্রীকে সীজারিয়ান অপারেশন করার জন্য ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের সাথে তার চুক্তি হয়। কিন্তু কর্তৃপক্ষ ওই ডাক্তারকে দিয়ে অপারেশন না করে হাতুড়ে অদক্ষ্য ডাক্তার দিয়ে অপারেশন করার ফলে ভুল অপারেশনে সীমার মৃত্যু হয়েছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন