বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪ আশ্বিন ১৪২৯, ০২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

প্রেসক্লাব-নয়াপল্টন ছেড়ে হরতাল-অবরোধে যেতে হবে: মির্জা আব্বাস

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৯ আগস্ট, ২০২২, ১২:০০ এএম

প্রেসক্লাব-নয়াপল্টন থেকে বের হতে না পারলে আওয়ামী লীগ সরকারকে কখনই ক্ষমতাচ্যুত করা যাবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস। তিনি বলেন, প্রেসক্লাব-বিএনপি অফিস থেকে বেরিয়ে মিছিল, হরতাল, অবরোধে যেতে হবে তাহলেই সরকারের পতন ঘটবে, নইলে ঘটবে না। ৩১ জুলাই পুলিশের গুলিতে ভোলায় স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা আব্দুর রহিম ও ছাত্রদল নেতা নূরে আলম নিহত হওয়ার প্রতিবাদে গতকাল সোমবার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে জাতীয়তাবাদী যুবদল আয়োজিত সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। সমাবেশে ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ ছাড়াও গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগরসহ ঢাকার আশপাশের জেলা-উপজেলা যুবদলের হাজার হাজার নেতাকর্মী সমাবেশে উপস্থিত হন। বেলা ২টায় সমাবেশ শুরুর আগেই নাইটিঙ্গেল মোড় থেকে পলওয়েল মার্কেটের সামনে পর্যন্ত সড়কে নেতাকর্মীদের ঢল নামে।
যুবদলের সমাবেশে মির্জা আব্বাস বলেন, এই সরকার ক্ষমতায় টিকে থাকতে পারবে না। এখন শুধু সময়ের ব্যাপার মাত্র। যদি বিএনপি শক্তভাবে রাস্তায় দাঁড়িয়ে যায় এই সরকার এক মিনিট ক্ষমতায় টিকে থাকতে পারবে না। আমাদের সকলে রাজপথে থাকতে হবে। আমাদের সীমানা আটকিয়ে গেছে, প্রেসক্লাব-বিএনপি অফিস। এর বাইরে যদি আমরা না যেতে পারি তাহলে কখনোই আওয়ামী লীগকে ক্ষমতাচ্যুত করা যাবে না।
তিনি বলেন, আমাদেরকে এর (প্রেসক্লাব-বিএনপি অফিস) বাইরে বেরিয়ে আসতে হবে, মিছিলে নামতে হবে, হরতালে যেতে হবে, অবরোধে যেতে হবে। তাহলে সরকারের পতন ঘটবে, নইলে এই সরকারের পতন ঘটবে না।
স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, কর্মসূচিতে আমরা যদি হার্ড লাইনে না যাই এবং সরকারকেও আমরা আমাদের শক্তি প্রদর্শন না করি তাহলে সরকার সরকারের জায়গা থাকবে আর আমরা জনসভা করবো, অগণিত মামলায় জর্জরিত হবো। কিন্তু আমরা সরকার পতন ঘটাতে পারবো না।
তিনি বলেন, রাজপথে আন্দোলনে থাকার মতো শক্তি সাহস আমদের আছে। আমরা কেউ কাপুরুষ নই। সেজন্য বলছি, চলমান কর্মসূচির বাইরে গণতন্ত্র ও সংবিধান সম্মতভাবে অনেক কর্মসূচি আছে যে কর্মসূচি আমরা রাজপথে দিলে সরকারের বুক কেঁপে উঠবে। সেখানেই আমাদের যেতে হবে।
বর্তমান সরকারের সময় ফুরিয়ে এসেছে মন্তব্য করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, যুব সমাবেশে জনসমাগমের মধ্য দিয়ে প্রমাণিত হয়েছে যে, তাদের (সরকার) দিন ফুরিয়ে এসেছে।
তিনি অভিযোগ করে বলেন, সরকার টিকে আছে মানুষকে প্রতারণা করে। আজকের জ্বালানি সংকট, অর্থনৈতিক সংকট, বিদ্যুতের লোডশেডিং, সব কিছুর মূল্যে হচ্ছে সরকারের দুর্নীতি। কুইক রেন্টাল পাওয়ার প্ল্যান্টের নামে তারা কিভাবে হাজার হাজার কোটি টাকা লুট করেছে এবং তাদের নিজস্ব লোকজনদের তারা মুনাফা পাইয়ে দিয়েছে। গত ৭ বছরে এদেশ থেকে রপ্তানি হয়েছে এক্সপোর্ট প্রমোশন ব্যুরোর যে হিসাব সেই হিসাব অনুযায়ী ২৭০ দশমিক ৮১ মিলিয়ন ডলার। বাংলাদেশ ব্যাংকে তার হিসাব আছে ২৩৯ দশমিক ৯৬ মিলিয়ন ডলার। বাকি ৩০ দশমিক ৪০ মিলিয়ন ডলার কোথায় গেলো? আজকে জাতি এটা জানতে চায়। এটা একটা বিরাট শুভঙ্করেরে ফাঁকি, বিরাট একটা লুটের চিত্র। এই লুট ও চুরি করে তারা এদেশকে ফোকলা করে দিয়েছে।
জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে ২ দিনের কর্মসূচি: সমাবেশে জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধি, বিদ্যুতের লোড শেডিং এবং সকল পণ্যের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে বিএনপি ১১ আগস্ট ঢাকায় নয়াপল্টনের কার্যালয়ের সামনে দুপুর ২টায় প্রতিবাদ সমাবেশ করবে এবং ১২ আগস্ট সারাদেশে মহানগর ও জেলা পর্যায়ে প্রতিবাদে সমাবেশ হবে। কর্মসূচি ঘোষণা করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, এরপরে আরো বৃহত্তর কর্মসূচির দিকে এগিয়ে যাবো এবং এই ভয়াবহ দানবীয় সরকারের পতন তরান্বিত করবো।
যুব দলের সভাপতি সুলতান সালাহউদ্দিন টুকুর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মোনায়েম মুন্নার পরিচালনায় সমাবেশে বিএনপির আমান উল্লাহ আমান, আবদুস সালাম, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, ফজলুল হক মিলন, আবদুস সালাম আজাদ, শহিদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, কামরুজ্জামান রতন, সাইফুল আলম নিরব, মীর নেওয়াজ আলী নেওয়াজ, মহানগর বিএনপির রফিকুল আলম মজনু, আমিনুল হক, ইশরাক হোসেন, স্বেচ্ছাসেবক দলের আবদুল কাদির ভুঁইয়া জুয়েল, কৃষক দলের শহিদুল ইসলাম বাবুল, ছাত্রদলের কাজী রওনাকুল ইসলাম শ্রাবণ, যুব দলের মামুন হাসান, নুরুল ইসলাম নয়ন, কামরুজ্জামান দুলাল, শফিকুল ইসলাম মিল্টন, গোলাম মওলা শাহিন, ইসাহাক সরকারসহ কেন্দ্রীয় নেতারা বক্তব্য রাখেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (3)
প্রজাপতির জীবন ৯ আগস্ট, ২০২২, ৫:৪৫ এএম says : 0
আগামী ঈদের পর আন্দোলন। বিএনপি দলটাকে বিলুপ্ত করে জনগনকে মুক্তি দেন। এই দলটা বিলুপ্ত হলে সাধারণ মানুষ যে কোনো একটা পথ খুঁজে পাবে।
Total Reply(0)
মোঃরুবেল মিয়া ৯ আগস্ট, ২০২২, ৫:৪৬ এএম says : 0
আমার তো মনে হচ্ছে অবশেষে প্রেমের টানে, বাংলাদেশে এসেছে শ্রীলংকার অর্থনীতি।
Total Reply(0)
Amran Ahmed ৯ আগস্ট, ২০২২, ৫:৪৬ এএম says : 0
সারা বাংলার জিয়ার সৈনিক গর্জেউঠো রাজপথে
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন