বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২, ২০ আশ্বিন ১৪২৯, ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

গুরুদাসপুরে কলেজছাত্রকে বিয়ে করা সেই শিক্ষিকার লাশ উদ্ধার

গুরুদাসপুর (নাটোর) উপজেলা সংবাদাতা : | প্রকাশের সময় : ১৫ আগস্ট, ২০২২, ১২:০০ এএম

নাটোরের গুরুদাসপুরে কলেজছাত্রকে বিয়ে করা সেই শিক্ষিকার লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল রোববার ভোরে নাটোর শহরের বালারিপাড়া এলাকার হাজী নান্নু মোল্লা ম্যানশনের চারতলার একটি ফ্ল্যাট থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। নিহত খাইরুন নাহার গুরুদাসপুর খুবজীপুর এম হক ডিগ্রি কলেজের সহকারী অধ্যাপক এবং স্বামী মামুন নাটোর এন এস সরকারি কলেজের ডিগ্রি দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। তারা ওই বাসায় ভাড়া থাকতেন।

নিহত খায়রুন নাহার গুরুদাসপুর উপজেলার চাঁচকৈড় পৌর এলাকার মো. খয়ের উদ্দিনের মেয়ে। তার স্বামী মামুন হোসেন একই উপজেলার ধারাবারিষা ইউনিয়নের পাটপাড়া গ্রামেরর মোহাম্মদ আলীর ছেলে।
ভবনের পাহাড়াদার নাজিম উদ্দিন ও নিহতের স্বজনেরা জানায়, গত শনিবার রাত ১১টার পর খায়রুন নাহারের স্বামী মামুন বাসায় আসেন। আবার রাত আনুমানিক আড়াইটার দিকে মোটর সাইকেল নিয়ে বেড়িয়ে যান। এ সময় বাসার পাহাড়াদার তাকে এতো রাতে বাহিরে যাওয়ার কারণ জানতে চাইলে অসুস্থতার জন্য হাসপাতালে যাওয়ার কথা বলেন। পরে গত রোববার সকাল ৬টার দিকে মামুন বাসায় ফিরে আসে। একটু পরেই সে বাসার পাহাড়াদারকে জানায় তার স্ত্রী খায়রুন নাহার সিলিং ফ্যানের সাথে গলায় ওড়না পেচিয়ে আত্মহত্যা করেছে। লোকজন তার বাসায় গিয়ে খায়রুন নাহারের লাশ মেঝেতে শোয়া অবস্থায় দেখতে পায়। তাদের সন্দেহ হওয়ায় তারা মামুনকে বাসার মধ্যে আটকে পুলিশে খবর দেন।

নিহতের চাচাতো ভাই সাবির উদ্দিন বলেন জানিয়েছেন, বিয়ের পর নিজের কর্মস্থলের কোন সহকর্মী খায়রুন নাহারের সাথে কথা বলতো না। আত্বীয় স্বজনেরাও তাকে ত্যাগ করেছিল। এর মধ্যে অসম বয়সের বিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানা কটূক্তি তাকে হতাশাগ্রস্ত করে তুলেছিল। এর আগে এক ছেলের জননী খায়রুন নাহারের ডিভোর্স হয়েছিল আগের স্বামীর সঙ্গে। পরে ছয় মাস ফেসবুকে প্রেমের পর গত বছরের ১২ ডিসেম্বর মামুনকে বিয়ে করেন।

নাটোরের পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা, পিবিআই পুলিশ সুপার শরিফ উদ্দিন ও সহকারী পুলিশ সুপার মহসিনসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ সময় পিবিআই পুলিশ সুপার শরিফ উদ্দিন বলেছেন, সব আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। নাটোরের পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা বলেছেন, বিষয়টি আত্মহত্যার মতোই মনে হচ্ছে। তারপরও মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত স্বামী মামুন বাহিরে থাকাসহ সবগুলো পয়েন্ট মাথায় রেখেই পুলিশ তদন্ত কাজ শুরু করেছে। মামুনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পেলে এবং পুলিশের প্রাথমিক তদন্ত শেষ হলে এ বিষয়ে বিস্তারিত বলা যাবে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন