বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪ আশ্বিন ১৪২৯, ০২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

বরগুনায় এমপির উপস্থিতিতে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপে সংঘর্ষ আহত শতাধিক

পুলিশের লাঠিচার্জ : অস্ত্র উদ্ধার : আটক ২

বরগুনা জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৬ আগস্ট, ২০২২, ১২:০০ এএম

শোক দিবসে বরগুনা-১ আসনের সংসদ সদস্য ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভুর উপস্থিতিতে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় পুলিশের গাড়িসহ বেশ কয়েকটি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করা হয়। পুলিশ লাঠিচার্জ করে দুই পক্ষকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এ ঘটনায় দুই জনকে আটক করেছে পুলিশ। পুলিশের লাঠিচার্জে শতাধিক লোক আহত হয়েছেন। পরে জেলা শিল্পকলা ও লঞ্চঘাট এলাকায় অভিযান চালিয়ে দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে। গতকাল সোমবার জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে শোক দিবসের আলোচনা সভায় উপস্থিত দুই গ্রুপের নেতাকর্মীদের মাঝে বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকালে ছাত্রলীগের সভাপতি রেজাউল কবির রেজা ফুল দিয়ে আসার পথে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ বাদে। ঘটনা থামাতে গেলে পুলিশের উপর ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের গাড়ি ভাঙচুর করে ছাত্রলীগ কর্মীরা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে লাঠিচার্জ করে পুলিশ। পুলিশের লাঠিচার্জে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের অন্তত অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছে।
বরগুনা জেলা আওয়ামী লীগের একটি দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে তার প্রতিকৃতিতে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নেতৃত্বে তার সমর্থক নেতাকর্মীরা ফুল দিয়ে ফেরার পথে জেলা শিল্পকলা একাডেমির সামনে আসলে জেলা ছাত্রলীগের গুরুত্বপূর্ণ পদবঞ্চিত একটি পক্ষ শিল্পকলা একাডেমির ছাদ থেকে ইট পাকটেল নিক্ষেপ করে। এ সময় পুলিশ দুই পক্ষকে শান্ত করার পদক্ষেপ নিলে পুলিশের উপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এ সময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তারেক রহমানের ব্যবহারিত গাড়ির সামনের গ্লাস ভেঙে যায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য পুলিশ লাঠিচার্জ করে।
বরগুনা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এস এম তারেক রহমান জানান, গতকাল শোক দিবসের আলোচনা সভায় যোগ দেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বরগুনা-১ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু ও বরগুনা জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমানসহ জেলা পর্যায়ের ঊর্ধ্বতন নেতৃবৃন্দ। এ সময় জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রেজাউল কবীর রেজা, সাধারণ সম্পাদক তৌশিকুর রহমান ইমরান, জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি সবুজ মোল্লা এবং কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদস্য রিশাত হাসান প্রিন্স ও তাদের কর্মী ও সমর্থকরা জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে এলে দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা-ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে সূত্রপাত হলেও তা মুহূর্তেই জেলা শহর উত্তপ্ত হয়ে পড়ে। ছাত্রলীগের একটা অংশ রামদাছেনাসহ বরগুনা শহরের লঞ্চঘাট চত্বর দখলে নেয়। বরগুনা সদর থানার এক ঝাঁক পুলিশ লঞ্চঘাটে হানা দিয়ে আগত ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদেরকে তাড়িয়ে দেয় এবং বেশ কিছু রামদা ছেনাসহ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করে। শহরে পুলিশি টহল ব্যবস্থা জোরদার রয়েছে।
প্রসঙ্গত, আট বছর পর গত ১৭ জুলাই বরগুনা শহরের সিরাজ উদ্দীন টাউন হল মিলনায়তনে বরগুনা জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এরপর ২৪ জুলাই রাতে জেলা ছাত্রলীগের নতুন কমিটির অনুমোদন দেয় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। সদ্যঘোষিত ৩৩ সদস্যের কমিটি প্রত্যাখ্যান করে বরগুনা শহরে পদবঞ্চিত প্রার্থীরা বিক্ষোভ করে আসছেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (2)
Mohmmed Dolilur ১৬ আগস্ট, ২০২২, ৩:০০ এএম says : 0
ডান্ডি এম পি হওয়ার কারনেই এই অবস্থা,ডান্ডি এম পি কি শান্তি চায়,কখনো না।
Total Reply(0)
Mr anwar Hossain ১৬ আগস্ট, ২০২২, ৩:১৪ এএম says : 0
একজন জাতীয় সংসদ সদস্য এর সামনে শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের ক্যাডার মহরমের আচরন এমন ই হবে এখানে অবাক হওয়ার কিছুই নেই.. বরগুনায় ছাত্রলীগের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ এটা আমি মানি না, এটা সাবেক ছাত্রদলের ক্যাডারদের হামলা, কেননা বাংলাদেশ পুলিশ একটা পেশাদার চৌকশ দেশপ্রেমে ভরপুর বাহিনী এখানে কিছু বিষফোড়া থাকতেই পারে তাই বলে রাষ্ট্রের সু শৃঙ্খল একটা বাহিনীর বিরুদ্ধে লেখার কোন অবকাশ নেই...
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন