বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২, ২০ আশ্বিন ১৪২৯, ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

শ্রীলঙ্কায় চীনের জাহাজ নিয়ে কেন এত উদ্বিগ্ন ভারত?

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৮ আগস্ট, ২০২২, ৭:৩৩ পিএম

ভারত সরকারের উদ্বেগ বাড়িয়ে মঙ্গলবার শ্রীলঙ্কার হামবানটোটা বন্দরে নোঙর করেছে চীনা জাহাজ ‘ইউয়ান ওয়াং ৫’। প্রথমে ভারতের অনুরোধে জাহাজটিকে শ্রীলঙ্কার জলসীমায় ঢুকতে দিতে আপত্তি জানালেও পরে রাজি হয়ে যায় রনিল বিক্রমসিঙ্ঘের সরকার। এই টালবাহানায় জাহাজটির দক্ষিণ শ্রীলঙ্কার ওই গভীর সমুদ্র বন্দরে পৌঁছতে কিছুটা দেরিও হয়ে যায়। কেন এই দেরি আর জাহাজটিকে নিয়ে নয়াদিল্লিই বা এত উদ্বিগ্ন কেন, তা জানতে চাওয়া হয়েছিল শ্রীলঙ্কায় নিযুক্ত চীনা দূত ছি ঝেনহংয়ের কাছে। জবাবে তিনি শুধু বলেছেন, ‘আমি জানি না। এই প্রশ্ন ভারতীয় বন্ধুদেরই করুন...আমি জানি না। হয়তো এটাই জীবন।’

অত্যাধুনিক প্রযুক্তি সম্পন্ন এই চীনা জাহাজটি আইসিবিএম (ইন্টার কন্টিনেন্টাল ব্যালিস্টিক মিসাইল) থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরনের ক্ষেপণাস্ত্র ও উপগ্রহের উপস্থিতি ধরতে সক্ষম। জাহাজটি যেখানে অবস্থান করছে, সেখান থেকে অন্তত সাড়ে সাতশো কিলোমিটার দূরের এলাকাও তার রেডারে ধরা পড়ে। ফলে ভারতের কেরালা, তামিলনাড়ু, অন্ধ্রপ্রদেশের বহু বন্দরে কী হচ্ছে, তা সহজেই জেনে যেতে সক্ষম ওই জাহাজে থাকা প্রযুক্তি। মূলত সেই কারণেই ভারত মহাসাগরে ওই জাহাজের উপস্থিতি নিয়ে আপত্তি তুলেছিল নয়াদিল্লি। কিন্তু প্রথমে না করলেও পরে জাহাজটিকে ১৬ থেকে ২২ আগস্ট পর্যন্ত হামবানটোটায় থাকার অনুমতি দিয়েছে শ্রীলঙ্কা সরকার।

বৃহস্পতিবার এক সাংবাদিক বৈঠকে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ওয়াং ওয়েনবিন শ্রীলঙ্কা সরকারের সহযোগিতার জন্য তাদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন। সেই সঙ্গেই তিনি অবশ্য স্পষ্ট করেছেন যে, ওই জাহাজের উপস্থিতিতে অন্য কোনও দেশের জাতীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থা ঝুঁকির মধ্যে পড়বে না। যদিও পাশাপাশি ওয়েনবিন হুঁশিয়ারি দিয়ে রেখেছেন যে, এ বিষয়ে কোনও তৃতীয় পক্ষের বাধা বা আপত্তি তারা বরদাস্ত করবেন না। নাম না করে চীন এ ক্ষেত্রে ভারতকেই বার্তা দিয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট রনিল বিক্রমসিঙ্ঘেও অবশ্য জানিয়েছেন, চীনের কোনও সামরিক কাজে হামবানটোটা বন্দরকে তারা ব্যবহার করতে দেবেন না।

এটাই প্রথমবার নয়। এর আগেও ভারত মহাসাগরে চীনা সামরিক জাহাজের উপস্থিতি নিয়ে আপত্তি জানিয়েছিল নয়াদিল্লি ও ওয়াশিংটন। চীনের অবশ্য দাবি, ‘ওয়াং ৫’ কয়েক দিনের মধ্যেই নিজের গবেষণার কাজ শেষ করে ফেলবে। যদিও গবেষণার বিষয়বস্তু নিয়ে মুখ খোলেনি বেইজিং। ২০১৭ সালে ভূকৌশলগত ভাবে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এই হামবানটোটা বন্দরটি ৯৯ বছরের জন্য লিজ নেয় চীন সরকার। তখন থেকেই ভারতের মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে ওই বন্দর। সূত্র: এবিপি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন