রোববার ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ০২ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

পার্টি বিতর্কের পর ড্রাগ পরীক্ষা করিয়েছেন ফিনল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২১ আগস্ট, ২০২২, ১২:০০ এএম

ফিনল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী সানা মারিনের একটি নাচের ভিডিও প্রকাশের পর সমালোচনার মুখে ড্রাগ টেস্ট করিয়েছেন। ভিডিওতে তাকে বন্ধুদের সঙ্গে পার্টি করতে দেখা গেছে। তবে, তিনি দাবি করেছেন, তিনি কখনো অবৈধ মাদক সেবন করেননি। ৩৬ বছর বয়সী মারিন আরো বলেন, শনিবার রাতে তার দাফতরিক দায়িত্ব পালনের ক্ষমতা অপরিবর্তিত ছিল।
সুপরিচিত ফিনিশ প্রভাবশালী ব্যক্তি ও শিল্পীদের সঙ্গে মারিনের পার্টি করার ভিডিও ক্লিপগুলো চলতি সপ্তাহে সামাজিকমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে এবং ফিনল্যান্ড এবং বিদেশের বেশ কয়েকটি সংবাদমাধ্যমে খবর প্রচারিত হয়।

মারিন একটি সংবাদ সম্মেলনে বলেন, সম্প্রতি আমাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলা হয়েছে আমি এমন একটি পার্টিতে ছিলাম যেখানে মাদক ব্যবহার করা হয়েছে বা আমি নিজেই মাদক সেবন করেছি। আমি এ অভিযোগকে অত্যন্ত গুরুতর বলে মনে করি। যদিও আমি নিজের আইনি সুরক্ষার জন্য এবং সন্দেহ দূর করতে ড্রাগ পরীক্ষার দাবিকে অন্যায্য বলে মনে করি, তবুও ড্রাগ পরীক্ষা করেয়েছি। এক সপ্তাহের মধ্যে এর ফল হাতে আসবে।
সোশ্যাল ডেমোক্রেট নেতা মারিন বলেন, তিনি কখনো মাদক সেবন করেননি এবং তিনি যে পার্টিতে অংশ নিয়েছিলেন সেখানে তিনি কাউকে তা করতে দেখেননি। এমনকি কৈশোরেও তিনি মাদক নেননি এবং ‘তার আইনি সুরক্ষার জন্য এবং কোনো সন্দেহ দূর করার জন্য’ পরীক্ষা করিয়েছেন।

কঠোর নিরাপত্তার সময়ে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য তিনি ভালো অবস্থানে আছেন কিনা জানতে চাইলে মেরিন বলেন, তার ‘কার্যক্ষমতা সত্যিই ভালো’। যদি প্রয়োজন দেখা দেয়, ‘কাজের কাজগুলো সামলাতে আমি সন্ধ্যায় চলে যেতে পারতাম’ তিনি বলেন।

তিনি তার অ্যালকোহল সেবনকে ‘মধ্যম’ হিসাবে বর্ণনা করেন এবং বলেন যে, তিনি পার্টিতে শুধুমাত্র হালকা অ্যালকোহলযুক্ত পানীয় পান করেন। তিনি বলেন, ‘আমি সাধারণত রেস্তোরাঁ থেকে গাড়িতে বাড়ি গিয়েছিলাম এবং পরের দিন সকালে ঘুম থেকে উঠে স্বাভাবিক বোধ করি’।

জাতীয় নিরাপত্তার সম্ভাব্য আপস সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে, ২০১৯ সালে নির্বাচিত বিশ্বের সর্বকনিষ্ঠ প্রধানমন্ত্রী মারিন বলেন, তিনি ‘সর্বদা ফোনে এবং সর্বদা নিরাপত্তা কর্মীদের দ্বারা যোগাযোগ করে যেতে পারেন’।
সরকারী দৈনিক হেলসিংগিন সানোমত শুক্রবার একটি সম্পাদকীয়তে বলেছে যে, প্রধানমন্ত্রী বিশ্রামের অধিকারী ছিলেন, মেরিন আইন ভঙ্গ করেছেন এমন কোনো প্রমাণ নেই এবং বিশেষজ্ঞদের পরামর্শে উপসংহারে পৌঁছেছেন যে, জাতীয় নিরাপত্তার ক্ষেত্রে কোনো ঝুঁকি নেই।

সম্পাদকীয়তে যোগ করেছে যে, ফিনিশ জনগণ মেরিনের নীতি এবং তার শৈলী সম্পর্কে তারা কী ভেবেছিল তা বলতে সক্ষম হবে। সূত্র : আল-জাজিরা, রয়টার্স ও দ্য গার্ডিয়ান।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন