মঙ্গলবার ২৯ নভেম্বর ২০২২, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ০৪ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

সমালোচনা উপেক্ষা করেই জাপানের উদ্দেশে পারমাণবিক জ্বালানি নিয়ে যাত্রা করেছে ফ্রান্সের দুই জাহাজ

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ৩:২৮ পিএম

জাপানের উদ্দেশ্যে পারমাণবিক জ্বালানির শিপমেন্ট পাঠিয়েছে ফ্রান্স। দুটি জাহাজে ভরে পারমাণবিক জ্বালানি নিয়ে এই চালান শনিবার সকালে উত্তর ফ্রান্স থেকে যাত্রা শুরু করেছে। তবে পরিবেশবিষয়ক কর্মীদের এ নিয়ে কড়া সমালোচনা আছে। তা উপেক্ষা করেই এই চালান পাঠানো হয়েছে। বার্তা সংস্থা এএফপির একজন ফটোগ্রাফার এ কথা বলেছেন। এই জ্বালানি নিয়ে জাহাজ দুটির এ মাসের শুরুর দিকে ফ্রান্সের উত্তরে বন্দরনগরী চারবার্গ থেকে ছেড়ে আসার কথা ছিল। কিন্তু এতে যে সরঞ্জাম বোঝাই করা হয়েছে তাতে গলন দেখা দেয়ায় যাত্রা বিলম্বিত করা হয়। পরিবেশবাদীরা এত উচ্চ মাত্রায় তেজষ্ক্রিয় পদার্থ পরিবহনের নিন্দা জানিয়ে একে দায়িত্বহীনের কাজ বলে উল্লেখ করেছেন।
এর আগে ২০২১ সালে জাপানে পাঠানো হয় এমওএক্স জ্বালানি। তার প্রেক্ষিতে গ্রিনপিস সহ পরিবেশবাদীরা কড়া প্রতিবাদ জানায়। এমওএক্স হলো প্লুটোনিয়াম এবং ইউরেনিয়ামের পুনঃপ্রক্রিয়াজাত একটি মিশ্রণ।
নিজস্ব পারমাণবিক চুল্লি থেকে বর্জ্য ব্যবস্থাকরণে ঘাটতি আছে জাপানের। তাই তারা এসব বর্জ্য বিদেশে পাঠায়। বিশেষ করে এমন দেশের মধ্যে আছে ফ্রান্স।
ওয়ার্ল্ড নিউক্লিয়ার এসোসিয়েশনের মতে, পারমাণবিক বর্জ্য থেকে পুনঃপ্রক্রিয়াজাত করে জ্বালানি আলাদা করার প্রক্রিয়ায় ব্যবহার করা হয় ব্যবহৃত তেজষ্ক্রিয় জ্বালানি। এর মধ্যে ইউরেনিয়াম এবং প্লুটোনিয়াম থেকে জ্বালানি আলাদা করে ফ্রেস জ্বালানি তৈরি করা হয়। শনিবার ফ্রান্সের পারমাণবিক প্রযুক্তি বিষয়ক গ্রুপ ওরানো বলেছে, বৃটিশ কোম্পানি পিএনটিএলের মালিকানাধীন দুটি বিশেষায়িত জাহাজ প্যাসিফিক হেরন এবং প্যাসিফিক ইগ্রেট ১৭ই সেপ্টেম্বর চারবার্গ বন্দর ছেড়ে গেছে। তারা জাপানের কাছে এমওএক্স পারমাণবিক জ্বালানি পরিবহন করছে। জাপানের একটি বিদ্যুৎ কেন্দ্রে এই জ্বালানি ব্যবহার করা হবে। এই শিপমেন্ট নভেম্বর নাগাদ গিয়ে পৌঁছাতে পারে। ওরানো বলেছে, অপারেশন সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন