শুক্রবার ০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ১৪ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

সুলতানা কামালের বক্তব্য নিয়ে বিতর্কের ঝড়

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৭ অক্টোবর, ২০২২, ১২:২১ এএম

মানবাধিকারকর্মী সুলতানা কামালকে নিয়ে বিতর্কের ঝড় উঠেছে। বাংলাদেশের গুম নিয়ে বিএনপির ওপর দায় চাপানো ইস্যুতে বিতর্কের ঝড় উঠেছে। তিনি আসলে ভারতকে খুশি করতে এমন বক্তব্য দিয়েছেন নাকি অন্য কোনো কারণে তা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিতর্ক হচ্ছে। সুলতানা কামালের বক্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, ‘সুলতানা কামাল মানবাধিকার কর্মী নয়, তিনি মূলত আওয়ামী অধিকার রক্ষার কর্মী’। বিএনপির এই নেতার বক্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ করে গতকাল বিবৃতি দিয়েছেন দেশের ২২ বিশিষ্টজন। ফলে সুলতানা কামালের একটি বক্তব্য নিয়ে বিতর্ক জমে উঠেছে। তবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে নেটিজেনরা বলছেন, জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক মহল যখন বাংলাদেশের গুম নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে। তখন আওয়ামী লীগ সরকারের পক্ষে সুলতানা কামাল অবস্থান নিয়ে বিএনপিকে টেনে এনেছেন। তিনি মানবাধিকার কর্মীর লেবাসে দিল্লিকে খুশি করতে আওয়ামী লীগের পক্ষ নিয়েছেন।

বাংলাদেশে ‘বলপূর্বক গুমের শিকার’ শীর্ষক জাতিসংঘের প্রতিবেদনের ‘অযৌক্তিক’ তালিকা নিয়ে প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে ভারতের প্রভাবশালী গণমাধ্যম ইন্ডিয়া টুডেকে দেখা সাক্ষাৎকারে সুলতানা কামাল বলেছেন, ‘মানবাধিকারের বিষয়ে বিএনপির মিথ্যার ইতিহাস রয়েছে’। এই দলটির বিরুদ্ধে ‘আইনী ব্যবস্থা নেওয়ার’ আহŸান জানিয়েছেন তিনি।

সুলতানা কামাল বলেন, ‘বিএনপি কর্তৃক মানবাধিকার লংঘনের সাজানো ঘটনাগুলো ইতিমধ্যেই তাদের ভাবমূর্তিকে উল্লেখযোগ্যভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে।’
বাংলাদেশে ‘বলপূর্বক গুমের শিকার’ শীর্ষক জাতিসংঘের প্রতিবেদনের তালিকাটি অযৌক্তিকতায় ভরপূর এবং এই ধরনের ‘নিম্নমানের’ কাজ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন দেশের নেতৃস্থানীয় শিক্ষাবিদ ও অধিকার কর্মীরা। ভারতের দুই বিচ্ছিন্নতাবাদী সেদেশে ফিরে যাওয়ার পরও গুমের তালিকায় তাদের নাম থাকাটা প্রতিবেদনের বস্তুনিষ্ঠতা সম্পর্কে অনেক কিছু পরিস্কার করে দেয়। গত রোববার ভারতের প্রভাবশালী গণমাধ্যম ইন্ডিয়া টুডের এক বিশ্লেষণী প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, আন্তর্জাতিক সংস্থার পক্ষ থেকে এই ধরনের ‘অস্বচ্ছ’ কাজ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বাংলাদেশের বিশেষজ্ঞরা। যেসব এনজিও বিএনপি কর্মীদের ঘনিষ্ঠ অথবা তাদের দ্বারা পরিচালিত, স্থানীয় সেই রকম কিছু এনজিওর উপর জাতিসংঘের মতো বিশ্বব্যাপী সংস্থার অতিরিক্ত নির্ভরতা নিয়েও প্রশ্ন উঠছে। আর নিজেদের অনুগতদের দিয়ে মানবাধিকার বিষয়ে মিথ্যা বা বানোয়াট মামলা সাজানোর নাটক করার রেকর্ড রয়েছে বিএনপির।

সুলতানা কামালের বক্তব্যের কঠোর সমলোচনা করে গত বুধবার রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘যখন বিএনপির কর্মীদের হত্যা করা হয় তখন আপনারা (সুলতানা কামাল) কোথায় ছিলেন? আপনারা কিসের মানবাধিকারকর্মী? আপনারা আসলে আওয়ামী অধিকার কর্মী। এদেশের জনগণের যে অধিকার সেটা আপনাদের মধ্যে নেই। আপনারা সেটার প্রতিবাদ করেন না। আপনি চান আওয়ামী লীগের ফ্যাসিবাদ আরো ক্ষমতায় থাকুক। তারা যে ভাবে বিএনপির নেতাকর্মীদের গুন করছে খুন করছে সেটা চলতে থাকুক। তাই নিজ দেশে না অন্য দেশে সাক্ষাৎকার দিয়ে শেখ হাসিনাকে টিকিয়ে রাখতে চায়। সুলতানা কামালের এই বক্তব্যকে ধিক্কার জানাই।’

এদিকে সাবেক তত্ত¡াবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা, বিশিষ্ট মানবাধিকারকর্মী অ্যাডভোকেট সুলতানা কামালকে ‘আওয়ামী অধিকার কর্মী’ অ্যাখ্যায়িত করে বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভীর দেওয়া বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন দেশের বিভিন্ন শ্রেণিপেশার ২২ জন বিশিষ্ট ব্যক্তি। বিবৃতিতে তারা বলেন, আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন মানবাধিকারকর্মী হিসেবে সুলতানা কামালের সততা, নিষ্ঠা ও দায়িত্বশীলতা সর্বজনবিদিত। তিনি বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয় ভ‚মিকা পালন করেছেন। গণতন্ত্র ও মানবাধিকার বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভ‚মিকা রাখার জন্য তিনি আন্তর্জাতিক জন হামফ্রি ফ্রিডম অ্যাওয়ার্ডে ভ‚ষিত হয়েছেন। সুলতানা কামালের বিরুদ্ধে রুহুল কবির রিজভীর এ ধরনের কুরুচিপূর্ণ ভাষায় আক্রমণ মানবিক মর্যাদার পরিপন্থি এবং ব্যক্তির মানবাধিকারের সুস্পষ্ট লংঘন। তারা আরো বলেন, সুলতানা কামাল সাধারণ জনগণের অধিকারের পক্ষে আজীবন কাজ করেছেন। তাকে আওয়ামী অধিকার কর্মী বলে অভিযোগ করা অনভিপ্রেত এবং এর মাধ্যমে মানবাধিকার আন্দোলনের বিরুদ্ধে বিএনপির দলীয় দৃষ্টিভঙ্গি প্রতিফলিত হয়। পাশাপাশি তাকে ছোট করার হীন প্রয়াস বলে মনে হয়। শুধু তাই নয়, অধ্যাপক মুনতাসীর মামুন এবং মানবাধিকারকর্মী শাহরিয়ার কবিরের মতো বরেণ্য বুদ্ধিজীবী এবং মুক্তিযুদ্ধ গবেষকের বিরুদ্ধে মানহানিকর বক্তব্যও অশোভনীয়, অগ্রহণযোগ্য ও চরম নিন্দনীয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, অ্যাডভোকেট সুলতানা কামাল তার সাক্ষাৎকারে কিছু সুপ্রতিষ্ঠিত সত্য উদঘাটন করায় রিজভী যেভাবে তার প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন তার মাধ্যমে তিনি এবং তার দলের দলীয় দৃষ্টিভঙ্গির সুস্পষ্ট বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে। তার বক্তব্য প্রকারান্তরে মানবাধিকার আন্দোলনকে বিভক্ত করার অপচেষ্টা হিসেবে প্রতীয়মান হয় এবং বাংলাদেশের মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় যারা অবদান রেখেছেন তাদের প্রতি চরম অশ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে। অ্যাডভোকেট সুলতানা কামালের প্রতি এমন অন্যায় অগ্রহণযোগ্য এবং রিজভীর অবমাননাকর বক্তব্যের প্রতি তীব্র নিন্দা প্রকাশ করছি।

বিবৃতি প্রদানকারীরা হলেন- অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান হুমায়‚ন কবীর, লেখক শামসুল হুদা, অধ্যাপক মিসবাহ কামাল, অধ্যাপক সাদিকা হালিম, সঞ্জীব দ্রং, রবীন্দ্র সরেন, পল্লব চাকমা, সানায়া আনসারী, অ্যাডভোকেট রানা দাশগুপ্ত, কাজল দেবনাথ, অ্যাডভোকেট মোখলেসুর রহমান বাদল, মোতাহার হোসেন আকন্দ, খুশি কবীর, জিনাত আরা হক, বেগম রোকেয়া, অ্যাডভোকেট সাইদুর রহমান, অ্যাডভোকেট আব্রাহাম লিংকন, অধ্যাপক ড. এস এম মাসুম বিল্লাহ, তাপস কুমার দাস, অধ্যাপক গোবিন্দ চন্দ্র মÐল, ব্যারিস্টার তাপস কান্তি বল প্রমূখ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (13)
Harun Rashid ৭ অক্টোবর, ২০২২, ৬:২৮ এএম says : 0
সুলতানা কামাল মানবাধিকার কর্মি নয় তিনি অাওয়ামিলীগ রক্ষা কর্মি
Total Reply(0)
মেঘলা তাসনীম মেঘলা ৭ অক্টোবর, ২০২২, ৬:২৮ এএম says : 0
জাতিসংঘ কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত ও স্বকৃীত একটি বিষয়কে বির্তকিত করে ঘোলা পানিতে যারা মাছ শিকার করতে চায়, আসেলই তাদের এজেন্ডা যে তা বুঝতে এদেশের জনগণ মোটেই অক্ষম নয়।
Total Reply(0)
Kamal hussain ৭ অক্টোবর, ২০২২, ৩:৪৭ পিএম says : 0
Awami Dalal
Total Reply(0)
salman ৭ অক্টোবর, ২০২২, ৭:০০ এএম says : 0
22 Jon naki besisto bekti, ara Us-shisto vogi, Raw agent, awami dalal
Total Reply(0)
রিয়াজ ৭ অক্টোবর, ২০২২, ৭:৩৭ এএম says : 0
সুলতানা কামালরা বুদ্ধিজীবী না, এরা মানুষরূপী হায়েনা।
Total Reply(0)
Md. Hasibul Islam ৭ অক্টোবর, ২০২২, ৬:৩০ এএম says : 0
বিদেশি এজেন্টগণ এই স্বাধীন ভূখন্ডে বসে ভিনদেশী এজেন্ডা বাস্তবায়নে কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছে দিন রাত,, সমসাময়িক বা অতীতের বিষয়গুলো খেয়াল করলে একটি দুধের শিশুও বুঝে এরা কি করতে চায়!! দেশের কোন প্রয়োজনটিতে এদেরকে পাওয়া যায় দেখেছে কেউ,? না!! অথচ এদের স্বার্থ রক্ষার চিন্তায় এরা বিশিষ্ট নাগরিক সেজে ধাপ্পাবাজি করে যায়,,,
Total Reply(0)
Engr M M Rahaman ৭ অক্টোবর, ২০২২, ৬:২৮ এএম says : 0
· বিশিষ্ট জনরা সহ সুলতানা কামালরা আওয়ামী অধিকার রক্ষা করেন।গত কয়েক দিনে ৪ জন মানুষ কে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে, তখন কি মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয়নি?
Total Reply(0)
Md Abdul Salam ৭ অক্টোবর, ২০২২, ৬:২৯ এএম says : 0
এই মহিলার নাম পরিবর্তন করা জরুরী , এর ধর্ম কি জাতির কাছে পরিষ্কার করা দরকার।
Total Reply(0)
Kabir Chowdhury ৭ অক্টোবর, ২০২২, ৬:২৯ এএম says : 0
আমার একটা বিষয় খুব জানতে ইচ্ছে করে, এই মুহূর্তে বাংলাদেশ-ভারত যুদ্ধ হলে এরা কোন পক্ষ অবলম্বন করতো?
Total Reply(0)
Monty Khan ৭ অক্টোবর, ২০২২, ৬:৩৫ এএম says : 0
উনি হলেন সুবিধাবাদী কর্মী,,! এক পক্ষের হয়ে কাজ করতে বেশি পছন্দ করেন
Total Reply(0)
Tushar Sarwar ৭ অক্টোবর, ২০২২, ৬:৩৫ এএম says : 0
জাতিকে বিভক্ত করে রাখাই এদের কাজ,কারন তারা জানে জাতিকে বিভক্ত করার মাধ্যমেই মিডিয়ার কদর পাবে।
Total Reply(0)
Nurul Islam ৭ অক্টোবর, ২০২২, ৬:৩৬ এএম says : 0
2007 লুকিয়ে মিটিং করে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা থেকে পদত্যাগ করেছিলেন!
Total Reply(0)
RAKHA ৮ অক্টোবর, ২০২২, ৯:৪৪ পিএম says : 0
সুলতানা কামাল মানবাধিকার কর্মি নয় . she is a nastik orkar.Sultana Kamal Name is absoletly mukhos.
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন