বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৮ মাঘ ১৪২৯, ০৯ রজব ১৪৪৪ হিজিরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

নারীদের প্রতি তালেবানের আচরণ মানবতাবিরোধী অপরাধ হতে পারে: জাতিসংঘ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৭ নভেম্বর, ২০২২, ১২:১৩ পিএম

আফগান নারী ও মেয়েদের প্রতি তালেবানের আচরণ, তাদের পার্ক এবং জিম থেকে শুরু করে স্কুল ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলো থেকে বাদ দেয়া মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ বলে গণ্য হতে পারে, জাতিসংঘের একদল বিশেষজ্ঞ শুক্রবার বলেছেন।

আফগানিস্তানের উপর জাতিসংঘের বিশেষ র‌্যাপোর্টার রিচার্ড বেনেট এবং জাতিসংঘের অন্য নয়জন বিশেষজ্ঞের মূল্যায়ন বলছে যে, রোম সংবিধির অধীনে নারী ও মেয়েদের প্রতি আচরণ ‘লিঙ্গ নিপীড়ন’ হতে পারে। আফগানিস্তান নিজেও সেই চুক্তিতে সাক্ষরকারী। মূল্যায়নের প্রতিক্রিয়ায়, তালেবানের পররাষ্ট্র বিষয়ক মন্ত্রকের মুখপাত্র আব্দুল কাহার বলখি বলেছেন, ‘জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞা শাসন দ্বারা নিরপরাধ আফগানদের বর্তমান সম্মিলিত শাস্তি নারী অধিকার ও সমতার নামে যুদ্ধাপরাধ এবং মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধের সমান।’

জাতিসংঘের বিশেষজ্ঞরা একটি বিবৃতিতে বলেছেন যে, নারীদের তাদের বাড়িতে বন্দী রাখা ‘কারাবাসের সমতুল্য’, যোগ করেন যে, এটি পারিবারিক সহিংসতা এবং মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যার মাত্রা বাড়িয়ে তুলতে পারে। বিশেষজ্ঞরা চলতি মাসে নারী অ্যাক্টিভিস্ট জারিফা ইয়াকোবি এবং চার পুরুষ সহকর্মীর গ্রেপ্তারের কথা উল্লেখ করেছেন। তারা আটকে রয়েছেন বলে বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন।

তালেবানরা ২০২১ সালের আগস্টে পশ্চিমা-সমর্থিত সরকারের কাছ থেকে ক্ষমতা গ্রহণ করে। তারা বলে যে, তারা ইসলামিক আইনের ব্যাখ্যা অনুসারে নারীদের অধিকারকে সম্মান করে। পশ্চিমা সরকারগুলো বলেছে যে, তালেবান সরকারের আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতির জন্য তাদের মেয়েদেরকে উচ্চ শিক্ষার সুযোগ দিতে হবে।নারীদের অধিকারের বিষয়ে তালেবানদের তাদের পথ পরিবর্তন করতে হবে।

পৃথকভাবে, জাতিসংঘের মানবাধিকার অফিসের একজন মুখপাত্র আফগানিস্তানে তালেবান কর্তৃপক্ষকে অবিলম্বে প্রকাশ্যে বেত্রাঘাতের ব্যবহার বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছেন। রাভিনা শামদাসানি বলেন, জাতিসংঘ এই মাসে এমন অসংখ্য ঘটনার নথিভুক্ত করেছে, যার মধ্যে বিয়ের ছাড়াই একসঙ্গে সময় কাটানোর জন্য একজন মহিলা এবং একজন পুরুষের প্রত্যেককে ৩৯ বার বেত্রাঘাত করা হয়েছে। বালখি বলেন, তালেবান প্রশাসন জাতিসংঘ এবং অন্যান্য পশ্চিমা কর্মকর্তাদের বিবৃতিকে ‘ইসলামের প্রতি অবমাননা এবং আন্তর্জাতিক নীতিমালার লঙ্ঘন’ বলে মনে করেছে। সূত্র: রয়টার্স।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (2)
Abu Abdullah ২৭ নভেম্বর, ২০২২, ৩:১৯ পিএম says : 0
জাতিসংঘ এবং অন্যান্য পশ্চিমা কর্মকর্তাদের বিবৃতি ‘ইসলামের প্রতি অবমাননা এবং আন্তর্জাতিক নীতিমালার লঙ্ঘন’ ছাড়া আর কিছুই নয়
Total Reply(0)
জহিরুল ইসলাম ২৭ নভেম্বর, ২০২২, ১:২৬ পিএম says : 0
জাতিসংঘ আসলে ল্যাংটা পরিবারদের জন্য তৈরি হয়েছে, তারা মুসলমানদের সংবিধান কি বুঝবে, পৃথিবীর মধ্যে তাদের মানবাধিকার সভার সামনে স্পষ্টভাবে পরিষ্কার, মুসলমানদের উপরে যত হত্যা নির্যাতন চলে সেটা কোন ব্যাপার না, একজনকে লেংটাকে ল্যাংটা হয়ে চলতে না দিলে, জাতিসংঘ মাথা খারাপ হয়ে যায়,
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন