বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৬ মাঘ ১৪২৯, ১৭ রজব ১৪৪৪ হিজিরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

অনুপ্রবেশের চেস্টাকালে মার্কিন ক্ষেপণাস্ত্র ক্রুজারকে তাড়িয়ে দিয়েছে চীন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৯ নভেম্বর, ২০২২, ৭:২৫ পিএম

চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মি (পিএলএ) সাউদার্ন থিয়েটার কমান্ডের মুখপাত্র তিয়ান জুনলি মঙ্গলবার বলেছেন, মার্কিন গাইডেড-মিসাইল ক্রুজার চ্যান্সেলরসভিল দক্ষিণ চীন সাগরের স্প্র্যাটলি দ্বীপপুঞ্জের কাছে সমুদ্রে অনুপ্রবেশ করেছে।

চীনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় ওয়েচ্যাটে তার অফিসিয়াল চ্যানেলে তাকে উদ্ধৃত করে বলেছে, ‘মার্কিন সামরিক বাহিনীর পদক্ষেপ চীনের সার্বভৌমত্ব এবং নিরাপত্তাকে গুরুতরভাবে লঙ্ঘন করেছে।’ তিয়ানের মতে, এ অনুপ্রবেশ আরও ‘দক্ষিণ চীন সাগরের নৌচলাচল এবং সামরিকীকরণে তার (মার্কিন) আধিপত্যের অকাট্য প্রমাণ।’

বিবৃতি অনুসারে, পিএলএর নৌ ও বিমান বাহিনী মার্কিন ক্ষেপণাস্ত্র ক্রুজারটিকে দূরে সরিয়ে দেয়ার ব্যবস্থা নিয়েছে। মার্কিন সপ্তম নৌবহর বলেছে চীনা বিবৃতি ‘মিথ্যা’। ‘ইউএসএস চ্যান্সেলরসভিল আন্তর্জাতিক আইন অনুসারে চলাচল করেছে এবং তারপরে নিরপেক্ষ সমুদ্র এলাকায় স্বাভাবিক ক্রিয়াকলাপ পরিচালনা করা চালিয়ে গেছে,’ মার্কিন নৌবাহিনী যুক্তি দিয়েছিল।

বেইজিং দক্ষিণ চীন সাগরের কিছু দ্বীপের আঞ্চলিক এখতিয়ার নিয়ে বিতর্কে জড়িয়েছে যেখানে কয়েক দশক ধরে ব্রুনাই, ভিয়েতনাম, মালয়েশিয়া এবং ফিলিপাইনের সাথে বড় হাইড্রোকার্বন মজুদ পাওয়া গেছে। সর্বাধিক বিতর্কিত অঞ্চলগুলি হল জিশা দ্বীপপুঞ্জ, যা প্যারাসেল দ্বীপপুঞ্জ, নানশা বা স্প্র্যাটলি দ্বীপপুঞ্জ এবং হুয়াংইয়ান দ্বীপ (স্কারবরো রিফ) নামেও পরিচিত।

চীন ও আসিয়ানের মধ্যে সহযোগিতা সহ বহুপাক্ষিক প্রচেষ্টার কারণে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে উত্তেজনা কিছুটা কমেছে। চীনা কর্তৃপক্ষ বারবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উস্কানিমূলক কর্মকাণ্ডের প্রতি তাদের অসন্তোষ প্রকাশ করেছে, যা তারা সতর্ক করেছে যে, একটি নতুন উত্তেজনা সৃষ্টি করতে পারে এবং এই অঞ্চলের পরিস্থিতির ক্ষতি করতে পারে। সূত্র: তাস।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন