সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৩ মাঘ ১৪২৯, ১৪ রজব ১৪৪৪ হিজিরী

সারা বাংলার খবর

ফরিদপুরে চেয়ারম্যানের ভাইয়ের হাতে ইউপি সদস্য নির্যাতনের শিকার, হাসপাতালে ভর্তি

ফরিদপুর জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৫ ডিসেম্বর, ২০২২, ৮:২৩ পিএম

চেয়ারম্যানের ভাইর হাতে আহত ইউপি সদস্য হাসপাতালের বেডে


চেয়ারম্যানের ভাইকে উৎকোচ না দেওয়ায় বোয়ালমারীতে এক ইউপি সদস্য বর্বর সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়েছেন। রবিবার (৪ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় এ হামলার শিকার হন উপজেলার পরমেশ্বরদী ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের সদস্য সৈয়দ বালা মিয়া। হাতুড়ি ও লোহার রড দিয়ে তাকে বেধড়ক পিটিয়ে মারাত্মক জখম করা হয়েছে। আহত বালা মেম্বারকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ব্যাপারে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন ইউপি সদস্যের বাবা মজিবার রহমান।

এজাহার ও ভুক্তভোগীর ভিডিও বক্তব্যের সূত্রে জানা যায়,পরমেশ্বরদী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আঃ মান্নান মাতুব্বর হলেও পরিষদের সব বিষয়ে খবরদারি করেন তার ছোট ভাই ছিদ্দিক মাতুব্বর। কোন মেম্বার কি পরিমাণ বরাদ্দ পাবেন তা নির্ধারণ করেন ছিদ্দিক মাতুব্বর। এ প্রেক্ষিতে ৪ ডিসেম্বর বিকেলে চেয়ারম্যান মান্নান মাতুব্বর পরিষদের এক সভা আহবান করেন ময়েনদিয়া বাজারস্থ তার নিজের ব্যক্তিগত কার্যালয়ে। সভায় চেয়ারম্যানের ভাই ছিদ্দিক মাতুব্বর প্রস্তাব করেন প্রতিটি শিশু কার্ডের বিপরীতে তাকে ২ হাজার টাকা দিতে হবে এবং রেশন কার্ডের চাউল ৩০ কেজির পরিবর্তে ২৭ কেজি করে নিতে হবে। অনেক সদস্য এ প্রস্তাব মেনে নিলেও প্রতিবাদ করেন সৈয়দ বালা। এ নিয়ে তীব্র বাকবিতন্ডা হয় ছিদ্দিক মাতুব্বর ও বালা মেম্বারের মধ্যে। এর জের ধরে সন্ধ্যার পর মিটিং শেষ করে সৈয়দ বালা অফিস থেকে বের হয়ে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা করলে উক্ত ছিদ্দিক মাতুব্বর তার দুই পুত্র শাহিন মাতুব্বর, শিমুল মাতুব্বর ও চেয়ারম্যানে মান্নানের ছেলে মাসুদ মাতুব্বর তার উপর হামলা চালায়। অভিযুক্তরা হাতুড়ি, লোহার রড দিয়ে সৈয়দ বালাকে বেধড়ক পিটিয়ে তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে রক্তাক্ত জখম করে। একপর্যায়ে আশপাশের লোকজন জড়ো হলে অভিযুক্তরা নিবৃত্ত হয়ে চলে যায়। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় বালা মেম্বারকে বোয়ালমারী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ঐ দিন রাতেই এ ঘটনায় ভুক্তভোগীর বাবা মজিবার রহমান বাদী হয়ে ৪ জন কে আসামি করে বোয়ালমারী থানায় একটি এজাহার দায়ের করেছেন।

হাসপাতালের বেডে শুয়ে আহত বালা মেম্বার বলেন, আমি নিজে কোন অনিয়ম-দুর্নীতি পছন্দ করিনা। নাগরিকদের রাষ্ট্রীয় সেবা দিয়ে আমি কোন টাকা নেই না। তাহলে চেয়ারম্যানের ভাইয়ের দাবি আমি পূরণ করবো কিভাবে? টাকা দেইনা বলে চেয়ারম্যান বা তার ভাই আমার ওয়ার্ডে বরাদ্দ দিতে চাননা। এ নিয়ে তাদের সঙ্গে আমার সম্পর্ক ভালো ছিলো না। ফলে পরিকল্পিত ভাবেই তারা আমাকে মারধর করেছে। একই কারনে এর আগেও দুই সদস্য চেয়ারম্যানের ভাইয়ের হাতে লাঞ্ছিত হয়েছে বলে বালা মেম্বার অভিযোগ করেন।

এব্যাপারে জানতে চাইলে অভিযুক্ত ছিদ্দিক মাতুব্বর বলেন,আসল ঘটনা ধামাচাপা দিতে বালা মেম্বার আমাদের নামে মিথ্যা গল্প বানিয়েছে। ময়েনদিয়া বাজারে দাড়িয়ে সে প্রধানমন্ত্রী সম্পর্কে কটূক্তি করে। ফলে আওয়ামীলীগ, যুবলীগের ছেলে-পেলেরা ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে মারপিট করেছে। আমি বরং তাঁকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করি।

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য চেয়ারম্যান আঃমান্নান মাতুব্বরের মুঠোফোনে (০১৭১৬৪০২৬৪৮) একাধিকবার কল করা হলেও তিনি তা রিসিভ করেননি।

এ ব্যাপারে বোয়ালমারী থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃআঃওহাব বলেন, উভয় পক্ষই থানায় অভিযোগ দিয়েছে। তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন