বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৮ মাঘ ১৪২৯, ০৯ রজব ১৪৪৪ হিজিরী

জাতীয় সংবাদ

আবির বলল- আয়াতকে মেরে ফেলেছি লাশ বাসায়

গ্রেফতারের পর আদালতে জবানবন্দিতে বন্ধু হাসিব

চট্টগ্রাম ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ৮ ডিসেম্বর, ২০২২, ১২:০০ এএম

আবিরকে দেখে আমি জিজ্ঞাসা করি, আয়াতকে আপনি কিছু করেছেন। তখন আবির বলে আমি তাকে অপহরণ করে মেরে ফেলেছি। লাশ আমার বাসায় আছে। এতে আমি ভয় পেয়ে যাই। আমাকে সন্দেহ করবে এ ভয়ে কাউকে কিছু বলিনি। কিন্তু সবাইকে বলে দিলে হয়ত তার লাশ অক্ষত পাওয়া যেত। পরে শুনেছি লাশ টুকরো টুকরো করে ফেলে দেওয়া হয়েছে।

গ্রেফতারের পর এভাবে আদালতে দেওয়া জবানবন্দিতে আবিরের কাছ থেকে শোনা পাঁচ বছরের শিশু আলিনা ইসলাম আয়াত খুনের বর্ণনা দিয়েছে আবিরের বাল্যকালের বন্ধু মো. হাসিব (১৭)। গতকাল বুধবার মহানগর হাকিম মেহেনাজ রহমানের খাস কামরায় এ জবানবন্দি দেয় এই হোটেল বয়। তার আগে গত মঙ্গলবার নগরীর ইপিজেড থানার বন্দরটিলা নয়ারহাট সাইফুল কলোনির বাসার সামনে থেকে হাসিবকে গ্রেফতার করে মামলার তদন্তকারি সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন-পিবিআই। ওই এলাকার মৃত দুলাল মিয়ার পুত্র হাসিব সেখানে ভাই ভাই হোটেলের বয় হিসাবে কর্মরত।
গত ১৫ নভেম্বর নয়ারহাট এলাকার বাসার সামনে থেকে আয়াতকে তুলে নিয়ে হত্যা করে লাশ ছয় টুকরো করে সাগর ও খালে ভাসিয়ে দেওয়া হয়। ১০ দিন পর মূল আসামি আবির আলীকে গ্রেফতারের পর আয়াতের নিখোঁজ হওয়ার রহস্য উদঘাটন হয়। পরে তার দেখানো মতে আয়াতের মাথাসহ লাশের খণ্ডিত কিছু অংশ উদ্ধার করা হয়। পিবিআই বলছে, আবির বলেছে, সে আয়াতকে অপহরণের কথা তার বন্ধু হাসিবের কাছে জানিয়েছে। এই সূত্র ধরে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

হাসিব জবানবন্দিতে জানায়, আমার মা-বাবা দুজনেই মারা গেছেন। বড় বোনের বিয়ে হয়েছে। ছোট দুই বোন থাকে বরিশালে খালার কাছে। হোটেল চাকরি করে তাদের জন্য নিয়মিত টাকা পাঠাই। আমার চাকরিস্থল ভাই ভাই হোটেলের পাশে মঞ্জু বিল্ডিং। আবির আলী আগে এই বিল্ডিংয়ে থাকত। আবির ও আমি একদম ছোটবেলা থেকেই একই এলাকায় থাকি। সে বয়সে আমার বড়। তাই তাকে ভাই বলে ডাকি। গত বছর আমার বাবা এবং মা দুজনই মারা যান। আবিরের বাবা-মাও গত পাঁচ-ছয় যাবৎ আলাদা থাকতে শুরু করেন। আবির তার মা ও ছোট বোনসহ আকমল আলী রোডের পকেট গেইটের বাসায় থাকে।

অনুমান গত অক্টোবর মাসের শুরুর দিকে একদিন আমি আবিরের সাথে নেভি গেইটের নালার পাশের দেয়ালে বসে আড্ডা দিচ্ছিলাম। তখন আবির আমাকে বলে, মঞ্জুর বিল্ডিংয়ের মালিক মঞ্জুর নাতনি আয়াতকে কিডন্যাপ করে মেরে ফেলব। এরপর তার দাদার কাছ থেকে মুক্তিপণের টাকা নিব। আবির আমাকে তার সাথে থাকতে বলে। আমি বলি আমি এসবে নাই। একথা বলে আমি চলে আসি। আমি আবিরকে সবসময় ভদ্র ও ভালো ছেলে হিসেবে দেখেছি। সে পান, সিগারেট খেত না। এজন্য আমি তার কথা তখন বিশ^াসও করিনি, কারো কাছে বলিওনি।

১৫ নভেম্বর বন্ধু রবিনকে নিয়ে আবির আমাদের হোটেলে যায়। সেখানে আবির গরুর গোশত দিয়ে ভাত খায়। কিন্তু রবিন ভাত না খেয়ে চলে যায়। এরপর আবিরও চলে যায়। কিন্তু তখন আয়াতের বিষয়ে সে আমাকে কিছু বলেনি। ওইদিন বিকেল প্রায় ৫টার দিকে আমি হোটেলে থেকে দেখি লোকজন ছোটাছুটি করছে। একজনকে জিজ্ঞেস করি, কী হয়েছে। সে বলে আয়াতকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। আমি হোটেলের কাজ শেষে সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে বের হয়ে মঞ্জু বিল্ডিংয়ের পাশে যাই। তখন লেবার কলোনীর সামনে আবিরের সাথে আমার দেখা হয়। অন্যদের সাথে আবির এবং আমি আয়াতকে খুঁজতে যাই। তখন আমি আবিরকে বলি আপনি কি আয়াতকে কিছু করেছেন। এরপর সে তাকে অপহরণ ও খুনের কথা বলে। আবির বলে খুন করে লাশ বাসায় রেখেছি।
আয়াতের দাদার কাছে দুই একদিন পর ২০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করব। টাকা নেওয়ার সময় তুমি আমার সাথে থেক। তাহলে তোমাকেও কিছু টাকা দেব। আয়াতকে মেরে ফেলেছে শুনে আমি ভয় পেয়ে যাই। আমি বাসার দিকে চলে যাই। এরপর আমি আমার মত করে দিন কাটাচ্ছিলাম। হাসিব বলে, আমি ক্ষমাপ্রার্থী। কারণ আমি সময়মত আয়াতকে মেরে ফেলার ঘটনা সবাইকে বলে দিলে হয়ত লাশ টুকরো টুকরো করার আগে পাওয়া যেত। এ ঘটনায় খুনের বর্ণনা দিয়ে আগেই জবানবন্দি দিয়েছে আসামি আবির আলী।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (6)
Eliza Anbi ৮ ডিসেম্বর, ২০২২, ১২:৪৭ এএম says : 0
চোখের পানি ধরে রাখার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলছি,,,ইয়া আল্লাহ...
Total Reply(0)
শারমিন শর্মী ৮ ডিসেম্বর, ২০২২, ১২:৪৬ এএম says : 0
কি বলবো খুঁজে পাচ্ছিনা.. মনে হচ্ছে পুরো ঘটনাটা আমার চোখের সামনে ঘটছে। আমি দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখছি এবং কিছুই করতে পারছিনা। দুঃস্বপ্নও বোধহয় এরচেয়ে সহজ হয়।
Total Reply(0)
Hasna Hena ৮ ডিসেম্বর, ২০২২, ১২:৪৭ এএম says : 0
পরিবারের মানুষদের কে আল্লাহ ধৈর্য্য ধরার শক্তি দাও।
Total Reply(0)
Amatuullah Samiya Amatuullah Samiya ৮ ডিসেম্বর, ২০২২, ১২:৪৭ এএম says : 0
হে আল্লাহ চোখের পানি ধরে রাখতে পারছিনা এই নিষ্পাপ শিশুকে কিভাবে মারলো
Total Reply(0)
MD. Aktaruzzaman ৮ ডিসেম্বর, ২০২২, ১:০০ পিএম says : 0
So sad.
Total Reply(0)
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ৮ ডিসেম্বর, ২০২২, ৮:১৯ পিএম says : 0
দয়া করে অপরাধীদের রাজনৈতিক পরিচয় তুলে ধরবেন। আমি ১০০% নিচ্ছিত অপরাধীরা আওয়ামী লীগের রাজনীতি করে।যদি এই অপরাধীরা মাদ্রাসা ছাত্র অথবা শিবিরের ছেলে হতো তাহলে আপনারা প্রতি মিনিটে মিনিটে শিবির আার মাদ্রাসার নাম নিতেন।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন