শনিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯, ০৫ রজব ১৪৪৪ হিজিরী

সম্পাদকীয়

টিভি সিরিয়ালের নেতিবাচক প্রভাব

মো. মিলন হোসেন | প্রকাশের সময় : ৯ ডিসেম্বর, ২০২২, ১২:০৩ এএম


বেশকিছু দিন যাবৎ একটি ছবি ফেসবুকে ভেসে বেড়াচ্ছিল, একটি নিখোঁজ সংবাদের পোস্টার। আলিনা ইসলাম আয়াত নামে একটি পাঁচ বছর বয়সী শিশুকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। দাদার সাথে মক্তবে যায় সে। নানতিকে মসজিদে পৌঁছে দেয়ার পর একটি দোকানে যান দাদা, তারপর থেকে আয়াতকে আর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিলো না। পরিবারটি হন্ন হয়ে খুঁজতে থাকে মেয়েটিকে। আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব, থানা-পুলিশ, হাসপাতালে, হারানো বিজ্ঞপ্তির পোস্টার ও মাইকিং কোনো কিছুই বাদ রাখেনি। অবশেষে দশদিন পর মিলে আয়াতের খবর। কিন্তু তাকে ফিরে পাওয়ার উপায় নেই। কেননা, তার লাশ কেটে টুকরো টুকরো করে পানিতে ভাসিয়ে দিয়েছে ঘাতক। ঘাতক ধরা পড়লে মিলে এমন তথ্য। টাকার জন্য নেশায় আয়াতকে অপহরণ করা হয়। আশ্চর্যের বিষয় হলো খুনি ভারতীয় টিভি সিরিয়াল ‘ক্রাইম পেট্রোল’ দেখে এমন অপহরণের পরিকল্পনা করেছিল। বছর দুয়েক আগে সাতক্ষীরায় আরেকটি ঘটনা ঘটেছিল। সাতক্ষীরার কলারোয়ায় একই পরিবারের চার জনকে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছিল। পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) এর চার্জশিট প্রতিবেদন অনুযায়ী, কোমল পানীয়’র সঙ্গে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে ভাই-ভাবি ও ভাতিজা-ভাতিজিকে খাওয়ায় খুনি। পরে ঘুমন্ত অবস্থায় চাপাতি দিয়ে গলা কেটে তাদের হত্যা করে। সে নিয়মিত ভারতীয় টিভি সিরিয়াল ‘ক্রাইম পেট্রল’ দেখত। ক্রাইম পেট্রল দেখেই সে খুনের এ কৌশল শেখে। ভারতীয় টিভি সিরিজ ‘ক্রাইম পেট্রোল’ দেখে দেশে গত কয়েক বছরে বেশ কিছু চাঞ্চল্যকর খুনের ঘটনা ঘটেছে। চট্টগ্রামের চান্দগাঁওয়ে মা-ছেলের জোড়া খুন, ২০১৯ সালে পিরোজপুরে ১৩ বছরের এক কিশোরকে অপহরণ করে হত্যা, চট্টগ্রামের আকবর শাহ এলাকায় টাকা না পেয়ে ভাবিকে হত্যা, সাভারে দুই রিকশাচালকের হত্যাকাÐ, বগুড়ায় ১৬ বছর বয়সী এক কিশোর হিন্দি সিনেমা ‘ধুম-৩’ ১৫৪ বার দেখে ‘ফিল্মি স্টাইলে’ ব্যাংক ডাকাতির চেষ্টা করে, ভারতীয় সন্ত্রাসী পরিচয়ে গাড়িতে নকল বোমা পুঁতে রেখে চাঁদা দাবিসহ রয়েছে এমন আরো অনেক ঘটনা, যা হয়তো সেভাবে আলোচনায় আসে না। ঘটনাগুলোয় জড়িতদের বেশিরভাগই কিশোর বা কিশোর বয়স অতিক্রম করেছে। বিনোদনের অন্যতম প্রভাবশালী মাধ্যম হচ্ছে সিনেমা-সিরিজ যা দেখে ভয়ংকর অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে অনেকেই। সিনেমায় দেখানো ‘অ্যাকশন’, ‘ক্রাইম’ ও ‘অ্যাডভেঞ্চার’ থেকে প্রভাবিত হয় অনেকে। তারপর বাস্তব জীবনে তা প্রয়োগের চেষ্টা করে। তাই, অভিভাবকদের উচিত, তাদের সন্তানরা বিনোদনের নামে কী দেখছে সেসবের প্রতি খেয়াল রাখা। তা নাহলে এমন নির্মম হত্যাকাÐ বা অপরাধ সমাজ থেকে বন্ধ হবে না।

শিক্ষার্থী, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন