শনিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩, ১৪ মাঘ ১৪২৯, ০৫ রজব ১৪৪৪ হিজিরী

সারা বাংলার খবর

কালিয়াকৈর চন্দ্রা মোড়ে গাড়ি থামিয়ে পুলিশের তল্লাশি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৮ ডিসেম্বর, ২০২২, ৯:১৮ পিএম

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার চন্দ্রা ত্রিমোড় এলাকায় পুলিশ বিভিন্ন যানবাহন থামিয়ে তল্লাশি করছে। বিএনপির ডাকা সমাবেশের আগে গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার চন্দ্রা এলাকায় যানবাহন থামিয়ে ব্যাপক তল্লাশি করছে পুলিশ বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। আজ বৃহস্পতিবার ভোর থেকে গাজীপুর জেলা পুলিশ ও হাইওয়ে পুলিশ ওই তল্লাশি কার্যক্রম শুরু করে।

এই পথ দিয়েই উত্তরবঙ্গের সব গাড়ি ঢাকায় প্রবেশ করে। এমন তল্লাশিতে এই রুটে যাতায়াতকারী সাধারণ যাত্রীরা হয়রানির শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন। আজ সকাল সাড়ে ১০টার দিকে চন্দ্রা এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, উত্তরবঙ্গ থেকে শত শত যানবাহন ঢাকায় প্রবেশ করছিল। ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের চন্দ্রা এলাকায় সকাল থেকেই যাত্রীবাহী বাস, মোটরসাইকেল, প্রাইভেট কার, মাইক্রোবাসসহ বিভিন্ন যানবাহন তল্লাশি করা হয়। এ সময়ে প্রতিটি যানবাহনকে ৫ থেকে ১০ মিনিট পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়। পুলিশ দূরপাল্লার বাসের গতি রোধ করে যাত্রীদের জিজ্ঞাসাবাদের পাশাপাশি ব্যাগ, বস্তা, মুঠোফোন যাচাই করে।

এতে যাত্রী ও চালকেরা অনেকেই অস্বস্তি প্রকাশ করেন। বিকেল সাড়ে চারটার দিকেও চন্দ্রা মোড়ে একইভাবে পুলিশ যানবাহনগুলোতে তল্লাশি চালাচ্ছিল বলে ঘটনাস্থলে উপস্থিত একটি সূত্র প্রথম আলোর এ প্রতিবেদককে জানায়। চন্দ্রা এলাকায় লিলিফা এন্টারপ্রাইজ নামের একটি বাসের চালক সুমন মিয়া প্রথম আলোকে বলেন, ঢাকায় যাওয়ার পথে টাঙ্গাইল, মির্জাপুর ও কালিয়াকৈর উপজেলার চন্দ্রায় পুলিশের তল্লাশিতে পড়তে হয়েছে তাঁকে। পুলিশ তাঁর বাসে থাকা যাত্রীদেরও জিজ্ঞাসাবাদ করেছে বলে জানান তিনি।

পুলিশের এমন তল্লাশিতে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে যাতায়াতকারী সাধারণ যাত্রীরা হয়রানির শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন।বিনিময় পরিবহনের যাত্রী মো. কাওসার মিয়া বলেন, টাঙ্গাইল থেকে গাজীপুর আসতে তিনটি পয়েন্টে পুলিশ আমাদের বাসে তল্লাশি করে। গাড়ি থামিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে। কিন্তু কী কারণে এই জিজ্ঞাসাবাদ, সেটি আমাদের বলা হয়নি।

পুলিশের দাবি, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ও নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড যেন না ঘটে, সে জন্য বাড়তি নিরাপত্তা নেওয়া হয়েছে। চেকপোস্টের মাধ্যমে কাউকে সন্দেহ হলে তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে, তবে কাউকে হয়রানি করা হচ্ছে না। গাজীপুরের পুলিশ সুপার কাজী শফিকুল আলম বলেন, ডিসেম্বরের শুরু থেকেই আমাদের বিশেষ অভিযান চলছে। এরই ধারাবাহিকতায় মহাসড়কে গাড়িতে তল্লাশি চলছে। প্রতি থানার আওতায় দুটি করে চেকপোস্টে এ অভিযান চলছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন