রোববার, ২৮ মে ২০২৩, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ৭ যিলক্বদ ১৪৪৪ হিজরী

ইসলামী বিশ্ব

সম্মিলিত প্রচেষ্টায় কাশ্মীরীরা স্বাধীনতা উপভোগ করবে

বিশ্ব মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শাহবাজের বাণী

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১১ ডিসেম্বর, ২০২২, ১২:০০ এএম

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী মিয়া মোহাম্মদ শাহবাজ শরীফ আকাক্সক্ষা ব্যক্ত করে বলেছেন, আমাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে, যাতে কাশ্মীরের জনগণ একটি স্বাধীন রাষ্ট্রের নাগরিকের মতো একই অধিকার এবং স্বাধীনতা উপভোগ করতে সক্ষম হয়। তিনি বলেন, পাকিস্তান কাশ্মীরিদের স্ব-নিয়ন্ত্রণের বৈধ অধিকার অর্জনে তাদের নৈতিক, রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক সমর্থন অব্যাহত রাখতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। বিশ্ব মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরীফ গণমাধ্যমে এক বাণী দিয়েছেন। ইংরেজি ভাষায় প্রদত্ত পাক প্রধানমন্ত্রীর অফিস থেকে প্রেরিত তার বাণীটি ইনকিলাব পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো। বাণীতে তিনি উল্লেখ করেন, আজ থেকে ৭৪ বছর আগে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ মানবাধিকারের সার্বজনীন ঘোষণাপত্র গৃহীত হয়েছিল। এই ঘোষণাপত্রে বর্ণিত ধারণাগুলি সর্বত্র, সকলের জন্য নাগরিক, অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক, সামাজিক এবং রাজনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জনের জন্য অপরিহার্য। তিনি উল্লেখ করেন, এই বছরের থিম সবার জন্য মর্যাদা, স্বাধীনতা ও ন্যায়বিচার। সেই অনুযায়ী, আমাদের প্রতিষ্ঠাতা কায়েদে আজম মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর স্বপ্নকে ভুলে যাওয়া উচিত নয়, যিনি আমাদের জন্য একটি স্বাধীন জাতি চেয়েছিলেন, যেখানে আমরা সবাই সমমর্যাদা নিয়ে থাকতে পারি। একটি রাষ্ট্রের নাগরিকরা সমান হোন।পাকিস্তানের সংবিধান এই মূল্যবোধগুলিকে পাকিস্তানের সকল নাগরিকের জন্য প্রযোজ্য মৌলিক অধিকার হিসাবে অন্তর্ভুক্ত করেছে এবং এই দৃষ্টিভঙ্গিকে বাস্তবে রূপান্তরিত করছে। তিনি বলেন, এই বছরটা অবশ্য পাকিস্তানের জন্য বিশেষ অসুবিধার ছিল। অর্থনৈতিক অস্থিতিশীলতা থেকে বন্যা বিপর্যয়, সন্ত্রাসবাদের ক্রমবর্ধমান হুমকির কারণে আরও খারাপ হয়, যেজন্য পাকিস্তানের জনগণ অনেক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এর আলোকে, পাকিস্তান সরকার এই আন্তর্জাতিক দিবসে, ক্রমবর্ধমান মানবিক চাহিদা মোকাবেলায় এবং মানবাধিকার লংঘনের বিষয়ে আমাদের প্রতিক্রিয়া বাড়ানোর জন্য মানবাধিকার কেন্দ্রিক একটি কৌশল গ্রহণ করার প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করছে। টেকসই উন্নয়নের জন্য ২০৩০ এজেন্ডা-এর প্রধান নীতির দ্বারা পরিচালিত অসমতা এবং অবিচার মুক্ত একটি সমাজকে উপলব্ধি করার জন্য আমাদের অবশ্যই ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। তিনি আরও উল্লেখ করেন, এই দিনে এটাও অপরিহার্য যে, আমরা ভারত অধিকৃত কাশ্মীরের মানবাধিকার পরিস্থিতি ঘনিষ্ঠভাবে পর্যবেক্ষণ করছি, যেখানে কাশ্মীরিদের তাদের আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকার থেকে বঞ্চিত রাখা হয়েছে। স্ব-নিয়ন্ত্রণের অধিকার হল জনগণের সামষ্টিক এবং ব্যক্তিগত স্বাধীনতা যে, তারা স্বাধীনভাবে তাদের রাজনৈতিক অবস্থান নির্বাচন করতে পারবে এবং অর্থনৈতিক, সামাজিক এবং সাংস্কৃতিক উন্নতি সাধন করবে। তিনি বলেন, আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকারকে ‘সন্ত্রাসবাদী/সন্ত্রাস-বিরোধী’ পক্ষে-বিপক্ষে বক্তৃতা দ্বারা পদদলিত করা হয়েছে। নিয়ন্ত্রণ রেখা জুড়ে সামরিক অভিযানের মাধ্যমে ভারাক্রান্ত করা হয়েছে এবং বিশ্বের মনোযোগ অন্যান্য বিষয়গুলিতে আকৃষ্ট করার মাধ্যমে এমন মানবাধিকার ইস্যুকে অন্তরাল করার চেষ্টা করা হয়েছে। তিনি বলেন, আজ এবং প্রতিদিন, পাকিস্তান সরকার সবার জন্য ন্যায়বিচার, সমতা, মর্যাদা এবং মানবাধিকারের জন্য কাজ করে যাবে। সবশেষে তিনি ‘পাকিস্তান জিন্দাবাদ’ বলে বাণী শেষ করেন। উল্লেখ্য, ২০২২ সালের ১০ এপ্রিল অনাস্থা ভোটে হেরে ইমরান খান ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পর ১১ এপ্রিল তিনি নবগঠিত সরকারের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন। ডন, জিও নিউজ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন