ঢাকা, মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০১৯, ০১ শ্রাবণ ১৪২৬, ১২ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

জাতীয় সংবাদ

শুধু ত্রাণ নয়, হাওরের ফসল রক্ষায় স্থায়ী সমাধান চায় হাওরবাসী

| প্রকাশের সময় : ৩০ এপ্রিল, ২০১৭, ১২:০০ এএম

সুনামগঞ্জ জেলা সংবাদদাতা : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ রোববার সুনামগঞ্জের শাল্লা আসছেন। সেখানে তিনি হাওর এলাকার ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের মধ্যে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করবেন। প্রধানমন্ত্রী হেলিকপ্টারযোগে সকাল ১০টায় শাল্লা উপজেলা সদরে শাহেদ আলী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে নির্মিত হেলিপ্যাডে অবতরণ করবেন।
জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী ক্ষতিগ্রস্ত হাওর এলাকা পরিদর্শন করবেন। পরে ওই মাঠে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের মধ্যে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করবেন।
প্রধানমন্ত্রী শাহেদ আলী উচ্চ বিদ্যালয় মিলনায়তনে দলীয় নেতাকর্মী ও প্রশাসনের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় মিলিত হবেন। সুনামগঞ্জের বোর ফসল প্রতি বছর আগাম বন্যায় এবং পাহাড়ি ঢলে হাওর রক্ষা বাঁধ ভেঙে তলিয়ে যায়। ক্ষতিগ্রস্ত হয় হাজার হাজার কৃষক। এটা প্রায় প্রতি বছরই ঘটে। ফসল খোয়া যাওয়ায় কৃষকরা দাঁড়াতে পারছে না। তাদের মেরুদন্ড ভেঙে গেছে। এবার ফসল হারিয়ে হয়েছে কৃষকরা সর্বস্বান্ত। এক মুঠো ধান ঘরে তুলতে পারেনি। ২ লাখ ২৩ হাজার ৮২ হেক্টর আবাদি জমির মধ্যে ৯০ ভাগ জমি অতিবৃষ্টিপাত ও পাহাড় ঢলে বাঁধ ভেঙে তলিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
প্রধানমন্ত্রীর সুনামগঞ্জের শাল্লায় আগমনে বুকভরা আশা নিয়ে শাল্লার শাহেদ আলী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে উপস্থিত হবেন হাওর পাড়ের ক্ষতিগ্রস্ত মানুষ। প্রধানমন্ত্রীর কাছে তাদের দাবি শুধু ত্রাণ নয়, ঘুরে দাঁড়াবার সুযোগ চাই। আর প্রতিশ্রæতি নয়, হাওরের ফসল রক্ষায় স্থায়ী সমাধান চাই। এদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শাল্লায় আগমন উপলক্ষে শাল্লা উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে উপজেলা গণমিলনায়তনে শুক্রবারে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে বলে জানা গেছে। প্রস্তুতি সভায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহিম চন্দ্র দাসের সভাপতিত্বে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল-আমিন চৌধুরীর সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট অবনীমোহন দাস, ছাতক দোয়ারার সাংসদ সদস্য মহিবুর রহমান মানিক, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমন, দিরাই-শাল্লার নব-নির্বাচিত সংসদ সদস্য ড. জয়া সেনগুপ্তা। উক্ত সভায় সুনামগঞ্জের সমস্ত কৃষকদের আগামী বোরো মৌসুম পর্যন্ত কীভাবে সাহায্য-সহযোগিতা করা যায় এবং  একজন কৃষকও খাদ্যের অভাবে কষ্ট না পান, সেই ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর কাছে লিখিত দাবি জানানোর ব্যাপারে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি মহিবুর রহমান মানিক বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে সুনামগঞ্জবাসীর দুঃখের মধ্যেও উৎসাহ সৃষ্টি হয়েছে। জননেত্রী এরই মধ্যে হাওরবাসীর জন্য বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছেন। কৃষকের ফসল রক্ষায় সরকার স্থায়ী চিন্তা-ভাবনা করছে। প্রধানমন্ত্রী ও দলীয় সভানেত্রীর আগমনকে সফল ও স্বার্থক করে তুলতে ইতোমধ্যে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এটি সুনামগঞ্জবাসীর জন্য গর্বের বিষয়।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন