বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৪ কার্তিক ১৪২৮, ১২ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

অভ্যন্তরীণ

মনোনয়ন নিশ্চিত করতে অর্ধশতাধিক প্রত্যাশীর দৌড়ঝাঁপ

প্রকাশের সময় : ৬ মার্চ, ২০১৬, ১২:০০ এএম

মামুনুর রশিদ মামুন, বিশ্বনাথ (সিলেট) থেকে
সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীতার জন্য দলীয় মনোনয়ন পেতে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন নেতাকর্মীরা। দলীয় সিনিয়র নেতাদের কাছে তদবির শুরু করেছেন প্রায় অর্ধশত সম্ভাব্য প্রার্থী। প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতীকে স্থানীয় নির্বাচন হওয়ায় এবার নেতাকর্মীদের মধ্যে বাড়তি আগ্রহ দেখা দিয়েছে। বিগত ইউনিয়ন ও উপজেলা নির্বাচনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের পরাজিত করে বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ‘নিখোঁজ’ এম. ইলিয়াস আলীর নিজ উপজেলা বিশ্বনাথে বিএনপির প্রার্থীরা এককভাবে নির্বাচিত হন। এতে আওয়ামী লীগের তৃণমূলের নেতাকর্মীরা হতাশ হলেও এবার ইলিয়াস আলীর অবর্তমানে এবং দলীয় কোন্দল থাকায় নির্বাচনে সবকটি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের বিজয় নিশ্চিত করতে চান তারা। তৃণমূল নেতাকর্মীরা মনে করেন, প্রার্থী মনোয়নের ক্ষেত্রে ভুল করলে জয়লাভ করা কঠিন হবে। মনোনয়ন বাণিজ্যের আশায় প্রার্থী মনোনয়ন করলে শুধু নির্বাচনে পরাজয় নয়, স্থানীয় রাজনীতিতে বিপর্যয়ও নেমে আসবে। জানা গেছে, আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি ও জামায়াতের প্রায় অর্ধশতাধিক প্রার্থী মাঠে নেমে বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক,  পারিবারিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে নীরবে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। অনেক প্রবাসী নেতারাও দলীয় মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচন করতে দেশে অবস্থান করে প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। দলীয় প্রতীকে স্থানীয় নির্বাচন হওয়ায় মনোনয়ন নিশ্চিত করতে সম্ভাব্য প্রার্থীরা উপজেলা ও জেলার সিনিয়র নেতাদের কাছে ধরনা দিয়ে মন জয় করার চেষ্টা করছেন। প্রার্থীদের কাছে এখন দলীয় মনোনয়ন লাভই যেন চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রার্থীরা মাঠে কাজ করার চেয়ে দলীয় মনোনয়ন পেতে দৌড়ঝাঁপ করছেন বেশি। শেষ পর্যন্ত দল থেকে মনোনয়ন না পেলে অনেকেই বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করবেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। বিএনপি থেকে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগে বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। কারণ স্থানীয় আওয়ামী লীগেও রয়েছে দ্বিধা-বিভক্তি। ইতিমধ্যে উপজেলা আওয়ামী লীগের কতিপয় নেতারা প্রবাসী নেতা আনোয়ার উজ্জামান চৌধুরী সমর্থিত সম্ভাব্য প্রার্থীর তালিকা কেন্দ্রে পাঠিয়েছেন বলে জানা গেছে। তবে এখনও উপজেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে প্রার্থী তালিকা কেন্দ্রে প্রেরণ করা হয়নি। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বাবুল আখতার বলেন, সময়মত কেন্দ্রের নির্দেশ মোতাবেক প্রার্থী তালিকা প্রেরণ করা হবে। এদিকে নির্বাচনকে সামনে রেখে চলছে সম্ভাব্য প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণা। সভা-সেমিনার, ক্রীড়া-সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, বিভিন্ন সামাজিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে কৌশলে জানিয়ে দিচ্ছেন তাদের প্রার্থীতার কথা। কেউ কেউ আবার ঢাকডোল পিটিয়ে ব্যানার পেস্টুন সাটিয়ে প্রার্থীতার কথা ঘোষণা করছেন জনসম্মুখে। অনেকেই  সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী তালিকায় যাদের নাম শুনা যাচ্ছে তারা হলেন- লামাকাজী : ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা কবির হোসেন ধলা মিয়া, আ’লীগ নেতা রইছ আলী, ডা. শানুর হোসাইন,  জাপা নেতা একে এম দুলাল ও জামায়াত নেতা মঈন উদ্দিন। খাজাঞ্চি : ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান ও জামায়াত নেতা নিজাম উদ্দিন সিদ্দিকী, সাবেক চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা রজব আলী, আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক চেয়ারম্যান পীর লিয়াকত হোসেন, আ’লীগ নেতা শংকর চন্দ্র ধর ও জাপা নেতা অমর আলী। অলংকারী : ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপিসাধারণ সম্পাদক লিলু মিয়া, বিএনপি নেতা রুহেল উদ্দিন, চেরাগ আলী মেম্বার, রফিক মিয়া, আরশ আলী ও জাপা নেতা সালেহ আহমদ তোতা। রামপাশা : ইউনিয়ন থেকে বর্তমান চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা আনোয়ার খান, সাবেক চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান, স্বেচ্চাসেবক দলের আহ্বায়ক কাওছার খান, ছাত্রদল নেতা সামছুল ইসলাম ও জাপা নেতা আবুল খয়ের মেম্বার। দৌলতপুর : ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান আব্বাস মিয়া, সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা আমির আলী, আছাব উদ্দিন, সাবেক চেয়ারম্যান জাপা নেতা মোশারফ হোসেন, বিএনপি নেতা হাফিজ আরব খান। বিশ্বনাথ সদর : ইউনিয়ন থেকে বর্তমান চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা জালাল উদ্দিন, আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক চেয়ারম্যান ছয়ফুল হক, শাহ আসাদুজ্জামান আসাদ, বিএনপি নেতা আব্দুল হাই, যুবলীগ নেতা মকদ্দছ আলী, জাপা নেতা রফিকুল আলম লালু, আওয়ামী লীগ নেতা ও ব্যবসায়ী আব্দুল জলিল (জালাল)। দেওকলস : ইউনিয়ন থেকে বর্তমান চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা তাহিদ মিয়া, সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা ফখরুল আহমদ মতছিন, জাপা নেতা মাওলানা সহল আল-রাজি, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা দলের আহ্বায়ক সৈয়দ রাজ্জাক, আওয়ামী লীগ নেতা আবুল কালাম জুয়েল, লন্ডন প্রবাসী আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল রহিম। দশঘর : ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ নেতা আবুল হোসেন, প্রবাসী আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল বাহার আনা মিয়া, আওয়ামী লীগ নেতা মানিক মিয়া, আব্দুল তাহিদ, বিএনপি নেতা (বর্তমান মেম্বার), আবুল হোসেন, জাপা নেতা আব্দুল মনাফসহ প্রায় অর্ধশতাধিক প্রার্থী মনোনয়ন প্রত্যাশী। এদিকে দশঘর ইউনিয়নের সীমানা নিয়ে দীর্ঘদিন থেকে উচ্চ আদালতে মামলা চলায় এ ইউনিয়নে বিগত নির্বাচনের মত এবারও নির্বাচন হবে কি না নিশ্চিত নয়।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন