ঢাকা, বুধবার ২৪ জুলাই ২০১৯, ০৯ শ্রাবণ ১৪২৬, ২০ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

জাতীয় সংবাদ

দক্ষ কর্মী নিতে মালদ্বীপ হাইকমিশনারের আশ্বাস

প্রকাশের সময় : ৯ মার্চ, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্টাফ রিপোর্টার : মালদ্বীপের হাইকমিশনার ড. মোহাম্মদ আসিম বাংলাদেশ থেকে অধিক দক্ষ কর্মী নেওয়ার বিষয়ে সহযোগিতা এবং তার সরকারের সাথে আলোচনা প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। তিনি মালদ্বীপে কর্মরত বাংলাদেশি কর্মীদের কাজের প্রসংশা করেন এবং  মালদ্বীপে বাংলাদেশি কর্মীদের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে বলে জানান।
গতকাল মঙ্গলবার সকালে ঢাকার ইস্কাটনস্থ প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসির সাথে তার কক্ষে বাংলাদেশস্থ মালদ্বীপের হাইকমিশনার ড. মোহাম্মদ আসিম এক সৌজন্য সাক্ষাতকালে এ প্রতিশ্রুতি দেন। সাক্ষাৎকালে বাংলাদেশ থেকে মালদ্বীপে কর্মী প্রেরণের বিষয়ে হাইকমিশনারের সাথে সার্বিক আলোচনা হয়। ২০১১ সালের কর্মী প্রেরণ বিষয়ক সমঝোতা স্বাক্ষর এবং যৌথ কমিটি সভার বিষয়ে আলোচনা হয়।
সাক্ষাতের শুরুতেই দুই দেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের কথা স্মরণ করতে গিয়ে মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি বলেন, বাংলাদেশ ও মালদ্বীপ উভয়ই সার্কভুক্ত দেশ। সার্কভুক্ত দেশের সদস্য হিসেবে বাংলাদেশ মালদ্বীপের সু-সম্পর্ক সবসময় বজায় থাকবে। মালদ্বীপে বাংলাদেশের কর্মী প্রেরণের জন্য একটি সম্ভাবনাময় চলমান শ্রমবাজারের একটি দক্ষিণ এশিয়ার দেশ। সাক্ষাৎকালে মন্ত্রী বাংলাদেশ থেকে দক্ষ কর্মী নেওয়ার জন্য হাইকমিশনারকে অনুরোধ জানান। আইটি প্রফেশনাল, একাউন্টেন্ট, ফ্রন্ট ডেস্ক ম্যানেজার, ইঞ্জিনিয়ার, ডাক্তার ও ফার্মাসিস্ট সেক্টরে কর্মী নেওয়ার জন্য হাইকমিশনারের মাধ্যমে সেদেশের সরকারকে অনুরোধ জানান।  
সাক্ষাৎকালে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব জাবেদ আহমেদ, জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক মো. নিজাম উদ্দিন, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মো. আবদুর রউফ, উপসচিব মোহাম্মদ শাহীন এবং মন্ত্রীর একান্ত সচিব মু. মোহসিন চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে, বিএমইটি থেকে মালদ্বীপে কর্মী নিয়োগের ছাড়পত্র ইস্যু বিগত ৫/৬ মাস যাবৎ বন্ধ থাকায় প্রতিদিন হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর ও চট্টগ্রাম বিমান বন্দর দিয়ে বডি কন্টাক্টের মাধ্যমে মোটা অংকের ঘুষের বিনিময়ে মালদ্বীপ ও মালয়েশিয়ায় কর্মীরা চলে যাচ্ছে। এতে সরকার প্রচুর রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হয়েছে। হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর টাস্কফোর্স কমিটির চেয়ারম্যান ও প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মো. আকরাম হোসেন গতকাল বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব পর্যায়ের একাধিক বৈঠকে অনুরোধ জানিয়েছি। যুগ্ন সচিব আকরাম হোসেন বলেন, আমি বিমান বন্দর দিয়ে ছাড়পত্র ছাড়া বিদেশে কর্মী গমনের পথ বন্ধ করার জন্য লিখিত আবেদনও পেশ করেছি। এক প্রশ্নের জবাবে যুগ্ন সচিব বলেন, শুধু হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্র্র্জাতিক বিমান বন্দর নয়; চট্টগ্রাম বিমান বন্দর দিয়েও বিদেশ গমনেচ্ছুরা ছাড়পত্র ছাড়া ভিজিট ভিসা ও স্টুডেন্ট ভিসায় বিদেশে চলে যাচ্ছে। সূত্রমতে, প্রতিদিন মালিন্দো (এম জে) এবং শুক্রবার, রোববার ও বুধবার (কে উই) ফ্লাইট যোগে ছাড়পত্র ছাড়াই মালদ্বীপে কর্মী যাচ্ছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন