ঢাকা, মঙ্গলবার ২১ মে ২০১৯, ০৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ১৫ রমজান ১৪৪০ হিজরী।

আইসিটি এন্ড ক্যারিয়ার

গণমাধ্যমের বিকাশে দায়িত্বশীলতা আবশ্যক আলোচনা সভায় তথ্যমন্ত্রী

| প্রকাশের সময় : ৩ মে, ২০১৯, ১২:১০ এএম

তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, গণমাধ্যমের বিকাশ অব্যাহত রাখতে দায়িত্বশীলতা নিশ্চিত করতে হবে। কারণ স্বাধীনতার পাশাপাশি আসে দায়িত্ববোধ। বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস উপলক্ষে গতকাল বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে ‘গণমাধ্যম চিত্র ঃ পরিপ্রেক্ষিত বাংলাদেশ’ আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেন। তথ্যমন্ত্রী বলেন, গণমাধ্যমকর্মীদের পেশাদারিত্বের উন্নয়নের জন্যই দায়িত্বশীলতার চর্চা আবশ্যক। ভুঁইফোড় সাংবাদিকদের উদ্ভবও একটি প্রতিবন্ধকতা। জাতীয় প্রেসক্লাব, বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউট এবং তথ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মিলিত উদ্যোগ গণমাধ্যমের উন্নয়নে কার্যকর ভূমিকা রাখবে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনকে সময়ের প্রয়োজন হিসেবে বর্ণনা করে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘কারো বিরুদ্ধে কোনো অসত্য ইন্টারনেট বা ইলেক্ট্রানিক মাধ্যমে প্রচার করলে তার প্রতিকারের জন্যই এই আইন। পৃথিবীর দেশে দেশে সময়ের প্রয়োজনে এ আইন প্রণীত হচ্ছে। তবে এ আইনের অপপ্রয়োগ ও সাংবাদিকদের হয়রানি যাতে না ঘটে সেদিকে সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে।
যুক্তরাজ্যের উদাহরণ টেনে বলেন, একটি ভুল সংবাদ প্রকাশের কারণে যুক্তরাজ্যের দেড়শ’ বছরেরও পুরোনো পত্রিকা দি নিউজ অভ দা ওয়ার্ল্ড এর প্রকাশনা বন্ধ হয়ে গেছে, ভুল তথ্য পরিবেশনের কারণে সেখানে বিবিসি ওয়ার্ল্ড এর একটি পুরো দলকে পদত্যাগ করতে হয়েছে, কিন্তু আমাদের দেশে এমন ঘটনা নেই। সেকারণেই তাদের সূচকে বাংলাদেশের চারধাপ অবনমন ভিত্তিহীন ও অগ্রহণযোগ্য।’
জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি সাইফুল আলমের সভাপতিত্বে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক আ.আ.ম.স আরেফিন সিদ্দিক, সাংবাদিক রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ, জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন, ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত, বিএফইউজের সাবেক সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল, সাংবাদিক কামরুল ইসলাম চৌধুরী, পারভীন এফ চৌধুরী, ওমর ফারুক চৌধুরী, আব্দুল কাইয়ুম, রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ চৌধুরী প্রমুখ সভায় বক্তব্য রাখেন। বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস ও বাংলাদেশ পরিস্থিতি শীর্ষক মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সাংবাদিক সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা।
চলচ্চিত্র শিল্পের উন্নয়ন, অনুদানের ছবির সংখ্যা ও অর্থের পরিমাণ বৃদ্ধিসহ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। তথ্য মন্ত্রণালয়ের ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরের পুর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র অনুদান কমিটির সকল সদস্য তাদের দায়িত্ব পালন অব্যাহত রাখছেন। যে চারজন সদস্য পদত্যাগ করার কথা বলছিলেন, বুধবার রাতে তথ্যমন্ত্রীর সাথে বৈঠকের পর তারা কমিটিতে তাদের নিজ নিজ দায়িত্ব পালন করে যাবেন বলে মন্ত্রীকে জানান। গতকাল বৃহস্পতিবার তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।
বুধবার সন্ধ্যায় তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদের মিন্টু রোডের সরকারি বাসভবনে চলচ্চিত্র অনুদান কমিটির চারজন সদস্য মামুনুর রশীদ, নাসির উদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু, মোরশেদুল ইসলাম ও মতিন রহমান বৈঠক করেন। তথ্যসচিব আবদুল মালেক এসময় উপস্থিত ছিলেন।
বৈঠকে চলচ্চিত্র শিল্পের উন্নয়ন, অনুদানের ছবির সংখ্যা ও অর্থের পরিমাণ বৃদ্ধির বিষয়ে আলোচনা হয়। মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে এবারের অনুদান সংশ্লিষ্ট বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে বলে তথ্যমন্ত্রী তাদের আশ্বস্তকরেন। এতে সমস্ত ভুল বোঝাবুঝির অবসান হয়।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন