ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ১৩ কার্তিক ১৪২৭, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

মানিব্যাগে ভরে তো আর গরু পাচার হয়নি!

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১২:০৫ এএম

বাংলায় গরু পাচার রাজ্য পুলিশ ও শাসকদলের মদত ছাড়া হতে পারে না। ফেসবুক পোস্টে এই ভাষাতেই আক্রমণ শানালেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী। তিনি বলেন, গরু পাচারের টাকায় তৃণমূল নেতার নির্বাচনী তহবিল এবং পুলিশের ম্যানিব্যাগ ভরেছে। প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরীর অভিযোগ শাসকদল ও পুলিশের মদতে রাজ্যে গরু পাচার চলেছে। গরু এসেছে ট্রাক ভর্তি হয়ে জাতীয় ও রাজ্য সড়ক দিয়ে। বিএসএফ লুট করেছে বর্ডারে। অধীর চৌধুরী কটাক্ষ করে বলেছেন, মানিব্যাগে ভরে তো আর গরু পাচার হয়নি। বরং গরু পাচারের টাকা তৃণমূল নেতার নির্বাচনী তহবিল এবং পুলিশের মানিব্যাগ ভরেছে। অধীর চৌধুরী বলেন, এটা সবারই কাছে পরিষ্কার যারা ক্ষমতায় থাকে পাচারকারীদের কদর তাদের কাছে। তৃণমূল নেতারা কত টাকা করে মাসোহারা পেত সেটা যেমন পুলিশ জানে, তেমনই পাবলিক জানে।
অধীর বলেন, কলকাতা পুলিশ হেড কোয়ার্টার থেকে দিদির দলের ভবিষ্যৎ, তাদের জন্য টাকার পাহাড় তৈরিতে গরু পাচার বড় ভূমিকা পালন করেছে। গরু পাচার নিয়ে সিবিআই তল্লাশি গরু পাচারে বিএসএফ এবং জামাত যোগের অভিযোগ নিয়ে বুধবার রাজ্যের ১৫টি জায়গায় তল্লাশি চালায় সিবিআই। সল্টলেকে এক বিএসএফ কর্তা সতীশ কুমারের বাড়ি সিল করে দেয় সিবিআই। ব্যবসায়ী ইনামুল হকের সন্ধানে তল্লাশি চালাচ্ছে সিবিআই। সীমান্ত এলাকার একাধিক নেতাও এই গরু পাচারে যুক্ত রয়েছে বলে অভিযোগ কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার। সূত্র : ওয়ান ইন্ডিয়া।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (6)
Maidul Islam ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৫:১১ এএম says : 0
আমরা আগেই জানি চোর সব সময় অন্যের ওপর দোষ চাপায়। বি এস এফ একটা মিথ্যাবাদি সংস্থা।
Total Reply(0)
শামিম রেজা ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৫:১২ এএম says : 0
১০০০০০% সত্য। কারন আমার বাড়ি বর্ডার থেকে ২ কিলোমিটার দূরে। এখানে অনেক ব্যবসায়ী আছে যারা বিএসএফ দের সাথে যোগাযোগ করে গরু ফেনসিডিল সহ অনেক জিনিস বাংলাদেশ নিয়ে আসে। এক্ষেত্রে শুধু বিএসএফ নয় কিছু বিজিবিও জরিত।
Total Reply(0)
Main Uddin ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৫:১৩ এএম says : 0
বাংলাদেশের অভ্যন্তরে থাকা যেই সমস্ত ভারতীয় দালালেরা বলে আমাদের দেশের নাগরিকেরা গরু চুরি করতে গিয়ে সীমান্তে বিএসএফ এর হাতে নিহত হয় সেই সমস্ত ভারতীয় দালালদের কে যেখানে পাবেন সেখানেই ধরে কন্ঠনালী ছিড়ে ফেলুন আমাদের দেশের নাগরিকেরা চুরি করতে যায়না ওইপার থেকে ভারতীয়রা গরু বিক্রি করে বলেই আমাদের দেশের নাগরিকেরা কিনতে যায়
Total Reply(0)
Mohammad Sazid ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৫:১৩ এএম says : 0
গরুসহ ভারতের সব পণ্য বর্জন করার সময় হয়েছে।ভারতের কোনো দরকার নেই আমাদের।বাংলাদেশের চীন আর মুসলিম বিশ্বের সাথে অর্থনৈতিক সম্পর্ক করা উচিৎ।সামান্য পেয়াজ নিয়েই যে কাহিনী করলো!!!!টাকা থাকলে পেয়াজ দেওয়ার জন্য দেশের অভাব হবে না।
Total Reply(0)
সত্যি বলি ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৫:৩৮ এএম says : 0
ভারতীয় গরু পাচারে সামরিক এবং বেসামরিক বিশাল একটা সিন্ডিকেট দ্বারা নিয়ন্ত্রণ, এখানে বাংলাদেশিরা শুধুই ক্রেতা এই সত্যটা প্রকাশে এত দেরি হলো কেন ?
Total Reply(0)
Azad ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ২:৪৯ পিএম says : 0
এখন সময়ের দাবি হলো ভারতের সীমান্তে কাঁটাতারের পাসে উঁচু ও শক্তিশালী বেড়িবাঁধ দিয়ে ভারতের আসা পানি গরু পেঁয়াজ মরিচ গাড়ি চুর ডাকাত বাটপার চিটার গুপ্তচর ও হাওয়া বাতাস এক কথায় যাহাতে কোনো কিছুই আসা যাওয়া লেনদেন না হয় টুটাললি সিলগালা ও বয়কট করতে হবে ভারত আমাদের দেশের জন্য মহা বিপদ হয়ে গেছে ওরা পাকিস্তানি যালিমেরা ডাইরেক্ট জুলুম নির্যাতন করিয়াছে 24 বত্সর কিন্তু ভারতীয়রা ডাইরেক্ট ও ইনডাইরেক্ট প্রায় 50 বত্সর যাবত্ জুলুম নির্যাতন করিতেছে এখন এনাফ ইজ এনাফ এছাড়া মুদি ও বিজেপি গুবর আর গূমুৎর খাইতে খাইতে মাতাল হয়ে গেছে যে কারনে ভারতের বারোটা বাজিয়ে এবার আমাদের দেশের সর্ব নাস করার সর্ব প্রকার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে সাপ হয়ে দংশন করে আর ওঝা ঘ আর সব চাইতে বড় সমস্যা হলো মধু কইয়া বিষখাবায় আর যত সব মুনাফিকি করে কয় একটা করে আরেক টা মুখে বন্ধু ভিতরে দুশমন সুকনা মৌসুমে পানি দেয় না আর বর্ষায় ডুবিয়ে মারে আহারে আমাদের কি যেন মহা বিপদ আমরা এখন বলেন ত আমাদের কে বয়কট করা ছাড়া আর কি আছে?
Total Reply(0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন