ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারি ২০২১, ০৭ মাঘ ১৪২৭, ০৭ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

সেনা প্রত্যাহারের পরও সিরিয়ায় বিমান হামলা চালাবে রাশিয়া

প্রকাশের সময় : ১৭ মার্চ, ২০১৬, ১২:০০ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : বেশিরভাগ সেনা প্রত্যাহার করে নিলেও সিরিয়ায় বিমান হামলা অব্যাহত রাখবে রাশিয়া। দেশটির ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা একথা জানিয়েছেন। রুশ উপ-প্রতিরক্ষামন্ত্রী নিকোলাই প্যানকভ বলেন, সন্ত্রাসবাদ পরাজিত হয়েছে এমন কথা বলার সময় এখনও আসেনি। বিশেষ করে এমন একটি অভিযানের পর যেটি সিরিয়া সরকারের সমর্থনে করা হয়েছে। গত বছর সেপ্টেম্বর থেকে সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের সমর্থনে সেখানে বিমান হামলা শুরু করে রাশিয়া। গত সোমবার হুট করেই রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন সিরিয়া থেকে বেশিরভাগ রুশ সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন। গত মঙ্গলবার থেকে রুশ সেনারা সিরিয়া ছাড়তে শুরুও করেছে। পুতিনের এ ঘোষণাকে জাতিসংঘ ও পশ্চিমা কর্মকর্তারা স্বাগত জানিয়েছে। তবে রাশিয়ার বিমান বাহিনী সিরিয়ায় অবস্থান করবে বলেই জানিয়েছেন প্যানকভ। রিয়া বার্তা সংস্থাকে তিনি বলেন, বেশ কিছু ইতিবাচক ফলাফল পাওয়া গেছে। যদিও সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে জয়লাভ করা নিয়ে আলোচনার সময় এখনো আসেনি। রাশিয়ার বিমান বাহিনীর একটি অংশ সিরিয়ায় থেকে যাবে এবং সন্ত্রাসীদের অবস্থানগুলোতে বোমা হামলা চালিয়ে যাবে।দামেস্ক থেকে বিবিসির লিস ডুসেট বলছেন, রাশিয়া এখন বিশেষভাবে চাইছে সিরিয়ার যুদ্ধ শেষ হোক। সামরিক সাফল্যের সুযোগে সিরিয়ার সরকার যাতে শান্তি মীমাংসায় কট্টর অবস্থান না নিতে পারে সেটাই হয়তো রাশিয়া নিশ্চিত করতে চাইছে। তবে সিরিয়ায় রাশিয়ার সামরিক তৎপরতা পুরোপুরি বন্ধ হছে না। বিমান হামলা চলবে। রুশ বিমান ও নৌঘাঁটিও থেকে যাছে।
এদিকে, সিরিয়া থেকে রাশিয়া তাদের সামরিক বাহিনী প্রত্যাহারের ঘোষণা দেয়ার পর সেখান থেকে প্রথম রুশ সামরিক বিমান মস্কোতে ফিরে এসেছে। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিন ঘোষণা করেন যে সিরিয়ায় তাদের সামরিক অভিযানের লক্ষ্য অর্জিত হয়েছে এবং সে কারণে তারা সেখান থেকে রুশ বাহিনী প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তবে এই সিদ্ধান্তের পরও রাশিয়া সিরিয়ায় কিছু বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা মোতায়েন রাখবে যা মস্কো তাদের ভাষায় সন্ত্রাসী লক্ষ্যবস্তুতে হামলার কাজে ব্যবহার করবে। একবারে হঠাৎ করেই সোমবার সৈন্য প্রত্যাহারের ঘোষণার পরদিনই তা কার্যকর করতে শুরু করেছে রাশিয়া। রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে দেয়া ভিডিওতে দেখা গেছে সিরিয়ার হিমেইমিম বিমান ঘাঁটি থেকে বেশ কয়েকটি রুশ যুদ্ধ বিমান দেশের উদ্দেশ্যে উড়ে যাছে। সৈন্য প্রত্যাহারে রাশিয়ার এই ঘোষণা এমন সময় এলো যখন জেনেভাতে সিরিয়া বিষয়ে নতুন করে শান্তি আলোচনা শুরু হয়েছে। জাতিসংঘের বিশেষ দূত স্তাফান দ্য মিস্তুরা রাশিয়ার এই সিদ্ধান্তের প্রশংসা করেছেন। বিবিসি, রয়টার্স।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন