ঢাকা, বৃহস্পতিবার , ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৪ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

অযোধ্যাকে ‘হিন্দু’ পর্যটনকেন্দ্রে পরিণত করছে যোগী সরকার

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৫ নভেম্বর, ২০১৯, ১২:০২ এএম


ভারতের অযোধ্যায় বিতর্কিত ধর্মীয় স্থানের মালিকানা নিয়ে সুপ্রিমকোর্ট বহুপ্রতীক্ষিত রায় ঘোষণা করেছেন। সুপ্রিমকোর্টের রায়ের মধ্য দিয়ে শতাব্দী প্রাচীন মসজিদটির জায়গায় নির্মিত হবে রাম মন্দির। এরপর থেকেই অযোধ্যাকে সাজানোর তোড়জোড় শুরু করেছে যোগী সরকার। ভারতের অন্যতম বৃহৎ ধর্মীয় পর্যটনকেন্দ্র তৈরি করতে কোমর বেঁধে নেমে পড়েছে উত্তরপ্রদেশের বিজেপি সরকার।
অযোধ্যাকে উত্তর ভারতের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় পর্যটনকেন্দ্র হিসেবে গড়ে তুলতে চাইছে যোগী আদিত্যনাথ সরকার। এরজন্য খুব শিগগিরই ‘অযোধ্যা তীর্থ উন্নয়ন বোর্ড’ গঠন করা হবে। অযোধ্যাকে কীভাবে রাম-তীর্থস্থান হিসেবে গড়ে তোলা যায়, সে বিষয়টি দেখবে এই বোর্ড।

অযোধ্যাকে দেশের অন্যতম বৃহৎ ধর্মীয় পর্যটন এলাকায় পরিণত করতে সময়সীমা রাখা হয়েছে ৪ বছর। দেশ-বিদেশের পর্যটকরা যাতে সহজেই অযোধ্যায় পৌঁছতে পারেন, সে জন্য অযোধ্যায় একটি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরও নির্মাণ করা হচ্ছে। আগামী বছর রামনবমীতেই উদ্বোধন করা হতে পারে বিমানবন্দরটি। তাছাড়া অযোধ্যা রেল স্টেশনকে ঢেলে সাজাতে ইতিমধ্যেই ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে কেন্দ্রীয় সরকার।

অযোধ্যার মেয়র রাকেশ উপাধ্যায় জানান, অযোধ্যাকে কীভাবে সাজানো হবে, তার পরিকল্পনা ইতিমধ্যেই সরকার নিয়েছে। খুব শিগগিরই চূড়ান্ত পরিকল্পনা জনসাধারণকে জানানো হবে। গৃহীত পরিকল্পনার আওতায় নতুন একটি বাস টার্মিনালও নির্মিত হচ্ছে। যেখানে একসঙ্গে ৩ থেকে ৪ হাজার বাস দাঁড়াতে পারবে। মুখ্যমন্ত্রী ওই প্রকল্পে অনুমোদন দিলেই কাজ শুরু হয়ে যাবে।

অযোধ্যা আগে ফৈজাবাদ জেলার অধীনে একটি শহর ছিল। যোগী অদিত্যনাথ ২০১৮ সালে অযোধ্যাকে জেলার মর্যাদা দিয়েছেন। এর আগে অযোধ্যায় ২৫১ ফুট উচ্চতার রামের মূর্তি বসানোর কথা ঘোষণা করেছিল যোগী আদিত্যনাথ সরকার।

অযোধ্যার কাছে সরযু নদীর ধারে ১০০ একর জায়গার ওপর মূর্তিটি তৈরি করা হবে। আর মূর্তি সংলগ্ন এলাকায় গড়ে তোলা হবে ভগবান রাম সংক্রান্ত ডিজিটাল মিউজিয়াম, পর্যটন কেন্দ্র, লাইব্রেরি, ফুড প্লাজা ও পার্কিংয়ের জায়গা। এটি তৈরি হলে তা বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু মূর্তি হবে। আমেরিকার স্ট্যাচু অব লিবার্টি (৯৩ মিটার), মুম্বাইয়ের বাবাসাহেব ভীমরাও আম্বেদকরের মূর্তি (১৩৭.২ মিটার), গুজরাটের বল্লভভাই প্যাটেলের মূর্তির (১৮৩ মিটার) ওপরই স্থান হবে তার। সূত্র : এসএএম।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন