ঢাকা মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ১১ কার্তিক ১৪২৭, ০৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ভূমিকম্প এবং ভূমিধস

প্রকাশের সময় : ৯ আগস্ট, ২০১৬, ১২:০০ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : শিশুর কঙ্কালের কার্বন পরীক্ষা করে ৪ হাজার বছর আগের সংঘটিত ভূমিকম্প ও ভূমিধসের প্রমাণ পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। ওই ভূমিকম্প ও ভূমিধসের কারণেই চীনের পৌরাণিক মহাপ্লাবন ঘটে। আর তা থেকে চৈনিক সভ্যতার সূচনা হয় বলে ধারণা করছেন বিজ্ঞানীরা। চীনা বিজ্ঞানীদের একটি দল একটি ব্যাপক ভূমিধসের ধ্বংসাবশেষ খুঁজে পেয়েছেন। একটি প্রবল ভূমিকম্পের কারণে এতবড় অঞ্চলজুড়ে ওই ভূমিকম্পটি হয়েছিল যে, এতে ইয়েলো রিভার পুরোপুরি ঢেকে যায় ও সেখানে জনপদ গড়ে ওঠে, যা বর্তমানে কিংঘাই প্রদেশ নামে পরিচিত হচ্ছে।
বিজ্ঞানীরা প্রাচীন পলি থেকে প্রমাণ পেয়েছেন, সময়ের সঙ্গে মাটির নিচে চাপা পড়ে যাওয়া ওই নদীটি ভূগর্ভস্থ হ্রদ সৃষ্টি করে। ওই ভূগর্ভস্থ জলাধার বাঁধকে চাপ দেয় ও প্রায় দুই হাজার কিলোমিটার এলাকা ভাসিয়ে নেয়া বন্যা পরিস্থিতি সৃষ্টি করে। বিজ্ঞান পত্রিকায় বিজ্ঞানীরা লেখেন, ইয়েলো নদীর তটে খুঁজে পাওয়া শিশুদের কঙ্কালের কার্বন পরীক্ষা করে বোঝা যায়, পুরাণে বর্ণিত ওই মহাপ্লাবন ঘটেছিল ১৯২০ খ্রিস্টপূর্বে। বিজ্ঞানীদের ধারণা, ভূমিকম্পের ফলে মাটিতে যে গভীর খাদ সৃষ্টি হয়েছিল, বন্যার পলি জমে বছরখানেকের মধ্যেই তা ভরাট হয়ে যায়। এশিয়ার তৃতীয় দীর্ঘতম এই নদীর প্লাবন গত ১০ হাজার বছরে পৃথিবীতে ঘটে যাওয়া প্রধান প্রাকৃতিক বিপর্যয়গুলোর মধ্যে অন্যতম। চীনা পুরাণে এই মহাপ্লাবন ও জিয়া রাজবংশকে সম্পৃক্ত করে চৈনিক সভ্যতার সূচনাকাল হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছে। নানজিং নরমাল ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞানী ও প্রধান লেখক উ কিংলং বলেন, এর আগে এর কোনো বৈজ্ঞানিক প্রমাণ পাওয়া যায়নি। প্রচলিত ইতিহাস ও উপকথায় ইয়ু নামের এক বীর নদীগর্ভ খনন করে বন্যা দমন করেন। বিজ্ঞানী কিংলং বলেন, সেই বীরকে ঈশ্বর প্রেরিত পুরুষ মেনে নিয়ে জিয়া রাজবংশের সূচনা হয়। কিছু কিছু বিজ্ঞানী মনে করেন, প্রকৃতপক্ষেই জিয়া রাজবংশের অস্তিত্ব ছিল। তাম্র যুগ থেকে লৌহযুগে রূপান্তরের কাছাকাছি সময়ে ওই রাজবংশের শাসন ছিল। তবে এ ধারণার কোনো লিখিত প্রমাণ নেই। ৪৫০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ পর্যন্ত চীনের লিখিত নথি ও ইতিহাস পাওয়া যায়। ন্যাশনাল তাইওয়ান ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞানী ডেভিড কোহান বলেন, এই ভূমিকম্প ও ভূমিধসের প্রমাণ থেকে ধারণা করা যায়, জিয়া রাজবংশের অস্তিত্ব আসলেই ছিল। প্রসঙ্গত, মহাপ্লাবনের উল্লেখ অনেক জাতির পুরাণেই পাওয়া যায়। হিন্দু বৈদিক সাহিত্য ও বাইবেলে বর্ণিত নোয়ার প্লাবন থেকে ধারণা করা যায়, প্রাগৈতিহাসিক যুগে প্রায়ই বরফ গলে মহাপ্লাবন উপস্থিত হতো। গার্ডিয়ান।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন