ঢাকা শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৮ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

শান্তি প্রতিষ্ঠায় রুশ-মার্কিন মতৈক্যের পর আবার হামলা : শতাধিক নিহত

আজ থেকে দশ দিনের যুদ্ধবিরতি শুরু হচ্ছে সিরিয়ায়

প্রকাশের সময় : ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : যুদ্ধবিধ্বস্ত  সিরিয়ায় শান্তি ফিরিয়ে আনতে যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার একমত হওয়ার ঘোষণার পর কয়েক ঘণ্টার মধ্যে বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত দুটি এলাকায় হামলা হয়েছে। ওই এলাকায় বিমান হামলা এবং একাধিক রকেট হামলায় শতাধিক মানুষ নিহত হয়েছে। গতকাল শনিবার এসব হামলা হয়। সিরিয়ায় আসাদ সরকারের বিরোধী মানবাধিকারকর্মীরা জানিয়েছেন, দেশটির ইদলিবের একটি মার্কেটে বিমান হামলায় অন্তত ৬০ জন নিহত হয়েছে। অপরদিকে আলেপ্পো প্রদেশে কয়েকটি হামলায় ৪৫ জন নিহত হয়।
স্থানীয় সময় গত শুক্রবার সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় সিরিয়ায় শান্তি ফিরিয়ে আনতে সম্মত হয় যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি ও রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সেরগেই লাভরভ এই সমঝোতায় পৌঁছানোর  ঘোষণা দেন। বৈঠক শেষে জন কেরি বলেন, আজ যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া একটি পরিকল্পনা ঘোষণা করছে, যা সিরিয়ায় সহিংসতা কমাবে, দুর্ভোগ কমাবে এবং আলোচনার মাধ্যমে দেশটিতে কিভাবে শান্তি প্রতিষ্ঠা করা যায় এবং পালাবদল হয় তার প্রক্রিয়া শুরু হবে। সেই আলোচনা অনুযায়ী স্থানীয় সময় আজ সোমবার থেকে ১০ দিনের যুদ্ধবিরতি শুরু হওয়ার কথা। তাদের এই পরিকল্পনাকে স্বাগত জানিয়েছে তুরস্ক ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। তবে দুটি পক্ষই জানিয়েছে, যুদ্ধবিরতি কার্যকর করতে আরো কিছু পদক্ষেপ দরকার। তুরস্কের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, যুদ্ধবিরতি শুরু হওয়ার পর পরই ত্রাণসামগ্রী পৌঁছে দিতে হবে। অন্যদিকে ইইউর পররাষ্ট্রনীতিবিষয়ক প্রধান ফেদেরিকা মোগেরিনি রাজনৈতিক পটপরিবর্তনের ওপর জোর দিয়েছেন।
সিরিয়ার বিরোধীদের একজন নারী মুখপাত্র বলেন, রাশিয়া-যুক্তরাষ্ট্রের পরিকল্পনায় আশার সঞ্চার হয়েছে। তবে এটি কীভাবে কার্যকর হবে, সে বিষয়ে আরো খোলাসা করা দরকার। সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা সানার খবরে বলা হয়, রাজধানী দামেস্কে শান্তিচুক্তির অনুমোদন করেছে সরকার। এদিকে শান্তিচুক্তির বিষয়ে আসাদ সরকারের অন্যতম ঘনিষ্ঠ মিত্র ইরানের আনুষ্ঠানিক কোনো প্রতিক্রিয়া জানা যায়নি।
উল্লেখ্য, লাভরভ ও কেরির মধ্যে ম্যারাথন আলোচনার পর এক্ষেত্রে বহুল কাক্সিক্ষত এ অগ্রগতি সাধিত হলো। এ দুই শীর্ষ কূটনীতিক সিরিয়ার পাঁচ বছরের গৃহযুদ্ধের অবসানে জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন। সেখানে এ দীর্ঘ সংঘাতে প্রায় ২ লাখ ৯০ হাজার লোক নিহত এবং দেশের প্রায় অর্ধেক লোক গৃহহীন হয়ে পড়েছে। অস্ত্রবিরতি কার্যকর করা হলে তারা ইসলামিক জিহাদিদের বিরুদ্ধে যৌথ সামরিক অভিযান শুরু করবে বলে জানায়। মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রী জন কেরি ও রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রী সের্গেই লাভরভ জানান, এই অস্ত্রবিরতি চুক্তি ঈদুল আযহার ছুটির প্রথম দিন সোমবার থেকে কার্যকর করার কথা জানিয়েছিলেন। বিশ্বের ক্ষমতাধর এ দু’দেশ সিরীয় সংঘাতে পরস্পর বিপরীত মেরুতে অবস্থান করছে। একদিকে মস্কো সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদ সরকার অপরদিকে যুক্তরাষ্ট্র বিদ্রোহী জোটকে সমর্থন দিয়ে আসছে। এক সপ্তাহের জন্য অস্ত্রবিরতি মেনে চলার ব্যাপারে রাশিয়া আসাদ সরকারের ওপর তার প্রভাব খাটালে মস্কো ও ওয়াশিংটন উভয় পক্ষের সম্মতির ভিত্তিতে সন্ত্রাসীদের অবস্থান লক্ষ্য করে যৌথ বিমান অভিযান শুরু করবে। আল-জাজিরা।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন