শনিবার , ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ১৫ আশ্বিন ১৪৩০, ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৫ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

কথিত শিবলিঙ্গের কার্বন ডেটিংয়ের আবেদন খারিজ

জ্ঞানবাপী মসজিদ মামলা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৫ অক্টোবর, ২০২২, ১২:০০ এএম

বারাণসীর একটি আদালত গতকাল শুক্রবার কার্বন ডেটিং এবং কথিত ‘শিবলিঙ্গ’-এর বৈজ্ঞানিক তদন্তের আবেদন প্রত্যাখ্যান করেছে যা জ্ঞানবাপী মসজিদ কমপ্লেক্সে পাওয়া গেছে বলে দাবি করা হয়েছে। হিন্দু পক্ষ দাবি করেছিল যে, মসজিদ চত্বরের ভিডিওগ্রাফি জরিপের সময় ‘ওজুখানা’র কাছে একটি ‘শিবলিঙ্গ’ পাওয়া গেছে, যা আদালতের নির্দেশে ছিল।
তবে মুসলিম পক্ষ বলেছে, যে কাঠামোটি পাওয়া গেছে সেটি একটি ‘ঝর্ণা’। হিন্দু পক্ষ তখন ২২ সেপ্টেম্বর একটি আবেদন জমা দিয়েছিল যাতে তারা যে বস্তুটিকে ‘শিবলিঙ্গ’ বলে দাবি করেছিল তার কার্বন ডেটিং চেয়েছিল। কার্বন ডেটিং হল একটি বৈজ্ঞানিক প্রক্রিয়া যা একটি প্রত্নতাত্ত্বিক বস্তু বা প্রত্নতাত্ত্বিক আবিষ্কারের বয়স নির্ধারণ করে।
এএনআই-এর সাথে কথা বলার সময়, হিন্দু পক্ষের প্রতিনিধিত্বকারী বিষ্ণু জৈন বলেছেন, ‘মুসলিম পক্ষ বলেছে, শিবলিঙ্গ মামলার সম্পত্তির অংশ নয় এবং এর কার্বন ডেটিং করা যাবে না। আমরা এ দুটি পয়েন্টে আমাদের স্পষ্টীকরণ দিয়েছি। ১৪ অক্টোবর আদালত রায় দেবেন’।
এর আগে ২৯ সেপ্টেম্বর হিন্দু পক্ষ আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়ার (এএসআই) ‘শিবলিঙ্গের’ বৈজ্ঞানিক তদন্ত এবং ‘আরঘা’ এবং এর আশেপাশের অঞ্চলের কার্বন ডেটিং দাবি করেছিল। উভয় পক্ষের যুক্তি শোনার পর আদালত জ্ঞানবাপী মসজিদ-শ্রীঙ্গার গৌরী মামলায় আদেশ সংরক্ষণ করে। মুসলিম পক্ষের প্রতিনিধিত্বকারী আখলাক আহমেদ বলেছিলেন যে, হিন্দু পক্ষের আবেদনটি রক্ষণাবেক্ষণযোগ্য নয়, কারণ এটি সুপ্রিম কোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে যে, কাঠামোটি রক্ষা করার কথা বলা হয়েছে (যা মুসলিম পক্ষ একটি ফোয়ারা বলে দাবি করে এবং হিন্দু পক্ষ দাবি করে। শিবলিঙ্গ)।
আহমেদ এএনআইকে বলেছেন, ‘আমরা কার্বন ডেটিং-এর আবেদনে সাড়া দিয়েছি। পাথরের কার্বন শোষণ করার ক্ষমতা নেই। সুপ্রিম কোর্ট তার ১৭ মে আদেশে, যা অনুসারে, কমিশন যে বস্তুটি খুঁজে পেয়েছিল, তাকে রক্ষা করতে হবে। সুপ্রিম কোর্টের আদেশ প্রাধান্য পাবে, তাই বস্তুটি খোলা যাবে না। হিন্দু পক্ষের মতে, প্রক্রিয়াটি বৈজ্ঞানিক হবে, এমনকি যদি তা হয় তবে বস্তুর সাথে টেম্পারিং হবে। পরীক্ষার জন্য রাসায়নিক ব্যবহার করা হবে। আমরা ১৪ অক্টোবর আদালতের আদেশের ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেব’।
মুসলিম পক্ষের প্রতিনিধিত্বকারী আরেক আইনজীবী তোহিদ খান বলেন, কার্বন ডেটিং-এর আবেদন গ্রহণযোগ্য নাকি খারিজ করা উচিত সে বিষয়ে আদালত তার রায় দেবে। কাঠামোটি একটি ঝর্ণা এবং শিবলিঙ্গ নয়। ঝর্ণাটি এখনও চালু করা যেতে পারে’।
এর আগে, এলাহাবাদ হাইকোর্টের আদেশকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে একটি আপিল দায়ের করা হয়েছিল যা বারাণসীর জ্ঞানবাপী মসজিদে পাওয়া কাঠামোর প্রকৃতি অধ্যয়নের জন্য বিচারকের অধীনে একটি কমিটি/কমিশন নিয়োগের জন্য একটি পিআইএল খারিজ করেছিল।
সাত ভক্তের দায়ের করা আবেদনে জ্ঞানবাপী ক্যাম্পাসে পাওয়া কাঠামোর প্রকৃতি নিশ্চিত করার জন্য আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়া (এএসআই) নির্দেশনা চেয়েছিল।
এলাহাবাদ হাইকোর্ট ১৯ জুলাই জ্ঞানবাপী মসজিদে পাওয়া কাঠামোর প্রকৃতি অধ্যয়নের জন্য হাইকোর্ট বা সুপ্রিম কোর্টের (বসা/অবসরপ্রাপ্ত) একজন বিচারপতির নেতৃত্বে একটি কমিটি/কমিশন নিয়োগের জন্য তাদের আবেদন খারিজ করে দিয়েছে।
হিন্দুদের দাবি অনুযায়ী একটি শিবলিঙ্গ মসজিদের অভ্যন্তরে পাওয়া গেছে নাকি মুসলমানদের দাবি অনুযায়ী এটি একটি ঝর্ণা কিনা তা নিশ্চিত করার জন্য হাইকোর্টের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টের সামনে পিআইএল চলে গেছে।
শীর্ষ আদালতে আবেদনে বলা হয়েছে যে, এলাহাবাদ হাইকোর্ট আবেদনটি খারিজ করতে ভুল করেছে। ২০ মে সুপ্রিম কোর্ট জ্ঞানবাপী মসজিদে ইবাদাত সংক্রান্ত মামলাটি সিভিল জজ থেকে জেলা জজ, বারাণসীতে স্থানান্তরের নির্দেশ দেয়। সূত্র : এএনআই।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন