শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২১ মাঘ ১৪২৯, ১২ রজব ১৪৪৪ হিজিরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

৯ ডিসেম্বর জাতিসংঘের গণহত্যার শিকারদের স্মরণ ও মর্যাদা দিবস

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৮ ডিসেম্বর, ২০২২, ৭:৪৬ পিএম | আপডেট : ৮:০৫ পিএম, ৮ ডিসেম্বর, ২০২২

প্রতি বছর ৯ ডিসেম্বর জাতিসংঘ গণহত্যা কনভেনশন গ্রহণ করে, যে কনভেনশন গণহত্যার অপরাধ এবং এই অপরাধ প্রতিরোধের শিকারদের স্মরণ ও মর্যাদার আন্তর্জাতিক দিবস। বাংলাদেশের দক্ষিণ সীমান্ত জেলা কক্সবাজারে বিস্তীর্ণ শিবিরে বসবাসকারী রাষ্ট্রহীন ১.২ মিলিয়নেরও বেশি রোহিঙ্গা মুসলমানরা, যাদের অধিকাংশই ২৫ আগস্ট, ২০১৭-এ মিয়ানমারে নৃশংস সামরিক দমনপীড়ন থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়। এবিষয়ে সচেতনতা বাড়াতে সমাবেশ করে দিনটিকে পালন করছে করছে জাতিসংঘ।–ইউএন.অর্গ

দিবসটি তাদের দুর্দশার কথা এবং রাখাইন রাজ্যে তাদের নিরাপদ প্রত্যাবাসনের জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে অঙ্গীকারের কথা মনে করিয়ে দেয়। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, "গণহত্যা স্মরণ দিবস" স্মরণে রোহিঙ্গারা ৩৪টি ক্যাম্পের মধ্যে ১২টিতে সমাবেশ করেছে। সমাবেশে, রাষ্ট্রহীন জনগণের সম্প্রদায়ের নেতারা রোহিঙ্গাদের শান্তিপূর্ণ ও মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবাসন নিশ্চিত করতে বিশ্ব নেতাদের যত তাড়াতাড়ি সম্ভব প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানান।

সমাবেশে তারা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে সাতটি দাবি তুলে ধরেছে, যার মধ্যে রয়েছে রোহিঙ্গা গণহত্যার শিকারদের বিচার, নাগরিকত্বের অধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠা, মিয়ানমারের বিতর্কিত ১৯৮২ সালের নাগরিকত্ব আইন বাতিল করা, যা রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে নাগরিকত্ব অস্বীকার করার জন্য ব্যবহৃত হয়েছে। তাদের প্রত্যাবাসন, সম্পত্তির ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। প্রত্যাবাসনের পর জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে ধ্বংস বন্ধ এবং নিরাপত্তার নিশ্চয়তা দিতে হবে।

অনেক মানবাধিকার সংগঠন হিংসাত্মক সামরিক দমন-পীড়ন থেকে বাঁচতে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের প্রতি ভারতের উদাসীনতাকে চিহ্নিত করেছে। আনুমানিক ৪০ হাজার রোহিঙ্গা ভারতে রয়েছে, যাদের মধ্যে কমপক্ষে ২০ হাজার ইউএনএইচসিআর-তে নিবন্ধিত।

একইভাবে, ২০১৬ সাল থেকে অতিজাতিবাদী হিন্দু গোষ্ঠীগুলি ভারতে মুসলমানদের উপর ক্রমবর্ধমান আক্রমণের অংশ হিসাবে ভারতে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের টার্গেট করেছে এবং তাদের দেশ থেকে বহিষ্কারের আহ্বান জানিয়েছে। অক্টোবর ২০১৮ থেকে ভারত সরকার ১২ জন রোহিঙ্গাকে মিয়ানমারে ফেরত পাঠিয়েছে। তখন দাবি করেছে যে তারা স্বেচ্ছায় চলে গেছে।

সহায়তা বাড়াতে ঢাকায় জাতিসংঘের কার্যালয় থেকে জারি করা এক বিবৃতিতে স্থানীয় গণমাধ্যমে বলা হয়েছে, জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ দূত রোহিঙ্গা শরণার্থী ও আশ্রয়দাতা সম্প্রদায়ের প্রতি সমর্থন বাড়ানোর জন্য বিশ্ব নেতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। মহাসচিব এই গৌরবময় অনুষ্ঠানে পুনর্ব্যক্ত করেছেন, ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে সামরিক অধিগ্রহণের পরে, মিয়ানমারে মানবিক, মানবাধিকার এবং নিরাপত্তা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ যে, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এই সংকটের ব্যাপক, টেকসই এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক সমাধানের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তিনি বিবৃতিতে বলেন, আমরা এটিকে ভুলে যাওয়া সংকট হতে দিতে পারি না।

তিনি যোগ করেছেন, আমি এই অঞ্চলের দেশগুলির বৃহত্তর নেতৃত্বের জন্য বাংলাদেশকে সমর্থন এবং মিয়ানমারের সাথে তাদের প্রভাব কাজে লাগানোর জন্য শরণার্থীদের স্বেচ্ছায়, নিরাপদ এবং মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবর্তনের জন্য অনুকূল পরিস্থিতি তৈরি করার জন্য সমর্থন অব্যাহত রাখব। বিশেষ দূত আরও জোর দিয়েছিলেন যে, তাদের নিরাপদ প্রত্যাবাসনের জন্য অনুকূল পরিস্থিতি তৈরি করা শেষ পর্যন্ত মিয়ানমারের দায়িত্ব। তিনি রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে প্রত্যাবর্তনের জন্য প্রস্তুত করার হাতিয়ার হিসেবে শিক্ষা ও বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণের ব্যবহারের ওপর জোর দেন।

এদিকে মিয়ানমার হিউম্যান রাইটস নেটওয়ার্ক একটি পৃথক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলেছে যে, প্রায় ৬ লক্ষ রোহিঙ্গা মিয়ানমারে বৈষম্যমূলক আইন ও নীতির অধীনে আটকে আছে, যা রাখাইন রাজ্যে মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ এবং চলমান গণহত্যার সমান। অধিকার পর্যবেক্ষণ সংস্থার নির্বাহী পরিচালক কিয়াউ উইন বলেছেন, রোহিঙ্গা এবং বার্মার বাকি জনগণের দুর্ভোগের অবসান ঘটাতে চাইলে বিশ্বকে সিদ্ধান্তমূলকভাবে কাজ করতে হবে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
hassan ৮ ডিসেম্বর, ২০২২, ৯:১১ পিএম says : 0
আজকে বাংলাদেশে যদি আল্লাহর আইন দিয়ে চলত তাহলে মায়ানমারের বাবার সাধ্য হতো না একটা রোহিঙ্গা মুসলিমদের দিকে আঙ্গুল তুলে আঙ্গুল তুলতে তাহলে আমরা মায়ানমারের আঙ্গুল ভেঙে ফেলতাম আমাদের দেশ চলে আল্লাহ দ্রোহী সরকার দ্বারা সেইজন্যই কাফেররা আমাদের উপর নানান ধরনের অত্যাচার করে এবং আমাদের সরকার তো আমাদের অত্যাচার করতেই আছে বছরের পর বছর ধরে
Total Reply(0)

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন