বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৮ মাঘ ১৪২৯, ০৯ রজব ১৪৪৪ হিজিরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ডনবাসে একদিনে ১৫০ ইউক্রেনীয় সেনা নিহত

ইউক্রেনে সামরিক অভিযানের ফলাফল ইতিমধ্যেই চোখে পড়েছে : পুতিন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৯ ডিসেম্বর, ২০২২, ১২:০৩ এএম

ইউরোপে অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ নিয়ে রাশিয়ার সাথে কথা বলতে প্রস্তুত জার্মান চ্যান্সেলর ষ ইউক্রেনীয় সংঘাতে আরো বেশি করে জড়িয়ে পড়ছে ন্যাটো
ডনবাস এলাকায় রাশিয়ার নেতৃত্বাধীন মিত্রবাহিনীর সাথে সংঘর্ষে মঙ্গলবার ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনীর অন্তত ১৫০ জন সদস্য নিহত হয়েছে। এর মধ্যে লুহানস্কে ৮০ ও ডোনেৎস্কে ৭০ ইউক্রেনীয় সেনা নিহত হয়েছে। এদিকে, ইউক্রেনে সামরিক অভিযানের ফলাফল ইতিমধ্যেই চোখে পড়েছে বলে জানিয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন।

লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিক (এলপিআর) এর মুখপাত্র ইভান ফিলিপোনেঙ্কো বলেছেন, ‘গত ২৪ ঘন্টায়, এলপিআর পিপলস মিলিশিয়া বাহিনীর সক্রিয় আক্রমণাত্মক অভিযানের ফলে শত্রæরা কর্মীদের এবং সামরিক সরঞ্জামের মধ্যে ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে। সংঘর্ষে ইউক্রেনীয় সেনার ৮০ জনের মতো কর্মী, দুটি আর্টিলারি বন্দুক, তিনটি সাঁজোয়া কর্মী বাহক, দুটি যুদ্ধ ড্রোন এবং ১৪টি বিশেষ মোটর যান ধ্বংস হয়েছে।’ এদিকে, ডিপিআর পিপলস মিলিশিয়ার প্রেস অফিস তার টেলিগ্রাম চ্যানেলে বলেছে, শত্রæর জনশক্তির ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ৭০ জনের বেশি। এছাড়াও, ডিপিআর মিলিশিয়া বাহিনী রাশিয়ান সেনাবাহিনীর সাথে যৌথভাবে দুটি ইউক্রেনীয় টি-৭২বি এবং টি-৬৪বিভি ট্যাঙ্ক, পাঁচটি সাঁজোয়া যান এবং মোটর গাড়ি ধ্বংস করেছে।

ইউক্রেনে সামরিক অভিযানের ফলাফল ইতিমধ্যেই চোখে পড়েছে : রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন বুধবার সিভিল সোসাইটি অ্যান্ড হিউম্যান রাইটস (এইচআরসি) এর উন্নয়ন পরিষদের সদস্যদের সাথে এক বৈঠকে বলেছেন, বিশেষ সামরিক অভিযান একটি দীর্ঘ প্রক্রিয়া, তবে এটি ইতিমধ্যে উল্লেখযোগ্য ফলাফল দিয়েছে।
পুতিন বলেন, ইউক্রেন যুদ্ধ দীর্ঘমেয়াদি হতে পারে। তবে এর মধ্যেই রাশিয়া যুদ্ধে উল্লেখযোগ্য ফলাফল পেয়েছে। ফলাফল বলতে তিনি বুঝিয়েছেন, ইউক্রেনের চার অঞ্চলকে রুশ ফেডারেশনের সঙ্গে অঙ্গীভ‚ত করাকে। ওই চার অঞ্চল হলো, ডোনেৎস্ক, লুহানস্ক, খেরসন ও জাপোরোজিয়া। অঞ্চলগুলো রাশিয়ার সঙ্গে যুক্ত করায় আজভ সাগর রাশিয়ার ‘অভ্যন্তরীণ সাগরে’ পরিণত হয়েছে বলে উল্লেখ করে পুতিন। আজভ সাগরের সঙ্গে দক্ষিণ-পূর্ব ইউক্রেন ও দক্ষিণ-পশ্চিম রাশিয়ার সীমান্ত রয়েছে। পুতিন স্মরণ করেন যে, এমনকি পিটার দ্য গ্রেট তার দিনে আজভ সাগরে প্রবেশের জন্য লড়াই করেছিলেন। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, যদিও, এই সমস্ত অঞ্চলে বসবাসকারী লোকেরা, তিনি বলেছিলেন।

‘গণভোটের ফলাফল দেখিয়েছে যে, জনগণ রাশিয়ায় থাকতে চায় এবং নিজেদেরকে এই বিশ্বের অংশ, এই স্থানের অংশ এবং আমাদের সাধারণ সংস্কৃতি, ঐতিহ্য এবং ভাষার অংশ হিসাবে বিবেচনা করতে চায়। এটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ফলাফল। এখন তারা আমাদের সাথে আছে। এমন লাখ লাখ লোক রয়েছে। এটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়,’ পুতিন জোর দিয়ে বলেছিলেন।

ইউরোপে অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ নিয়ে রাশিয়ার সাথে কথা বলতে প্রস্তুত জার্মান চ্যান্সেলর : জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ শলৎজ বলেছেন যে, তিনি ইউরোপে অস্ত্র নিয়ন্ত্রণের বিষয়ে রাশিয়ার সাথে কথা বলা প্রয়োজন বলে মনে করেন তবে প্রথমে রাশিয়াকে ইউক্রেনে যুদ্ধ অভিযান বন্ধ করতে হবে।
গতকাল প্রকাশিত জার্মানির ফাঙ্কে মিডিয়া গ্রæপকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘প্রথমত, রাশিয়াকে অবশ্যই যুদ্ধ বন্ধ করতে হবে এবং তার সৈন্য প্রত্যাহার করতে হবে। এটা সত্য যে এরপরে একটি প্রশ্ন উঠবে কিভাবে আমরা ইউরোপের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারি। স্বাভাবিকভাবেই, আমরা ইউরোপে অস্ত্র নিয়ন্ত্রণের বিষয়ে রাশিয়ার সাথে কথা বলতে প্রস্তুত। আমরা যুদ্ধের আগে এটি ফিরিয়ে দিয়েছিলাম। এই অবস্থানে কিছুই পরিবর্তন হয়নি।’ তিনি আবারও পুনর্ব্যক্ত করেছেন যে, জার্মানি ইউক্রেনকে সমর্থন অব্যাহত রাখবে তবে রাশিয়া-ন্যাটো সংঘর্ষের বিরুদ্ধে সতর্ক করেছেন। তিনি বলেন, ‘রাশিয়া ও ন্যাটোর মধ্যে সরাসরি যুদ্ধ ঠেকাতে আমরা আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। সমগ্র বিশ্বে এই সংঘাতে শুধুমাত্র পরাজয় হবে।’

ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সফরের পর টিএফ১ টেলিভিশন চ্যানেলের সাথে একটি সাক্ষাৎকারে বলেছেন যে, ইউরোপের ভবিষ্যত নিরাপত্তা স্থাপত্যে রাশিয়াকে নিরাপত্তার নিশ্চয়তা দিতে হবে। তিনি বলেছিলেন যে, এই সমস্যাটি শান্তি সম্পর্কে আলোচনার অংশ হবে, তাই ফ্রান্স এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন কীভাবে তাদের মিত্রদের রক্ষা করতে সক্ষম হবে এবং আলোচনা পুনরায় শুরু হলে রাশিয়াকে একই সাথে নিরাপত্তা গ্যারান্টি দিতে হবে তা ভাবতে হবে। তিনি জোর দিয়ে বলেছিলেন যে, তিনি ইউক্রেনের সংঘাতের কোনও সামরিক সমাধান দেখেননি এবং পুনরায় নিশ্চিত করেছেন যে, এ পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসার একমাত্র উপায় হচ্ছে আলোচনা।

ইউক্রেনীয় সংঘাতে আরও বেশি করে জড়িয়ে পড়ছে ন্যাটো : রাশিয়ার উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই রিয়াবকভ গতকাল রসিয়া-২৪ টিভি চ্যানেলে বলেছেন, ন্যাটো দেশগুলি ইউক্রেনের সংঘাতে ক্রমবর্ধমানভাবে জড়িত হচ্ছে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইচ্ছাকৃতভাবে এই ট্র্যাকে বাড়ানোর সাথে এগিয়ে চলেছে। ‘ন্যাটো সদস্যরা ক্রমবর্ধমান এবং সরাসরি এই সংঘাতে জড়িত। কিয়েভের প্রতি তাদের সমর্থন এখন কয়েক মাস আগের তুলনায় অনেক বৈচিত্র্যময়। এটি ওয়াশিংটনের ইচ্ছাকৃত নীতির প্রতিফলন, যা ইউরোপীয়দের দ্বারা বাধ্যতামূলকভাবে অনুসরণ করা হচ্ছে, সংঘাত বাড়াতে। তারা আগুন নিয়ে খেলছে। ঝুঁকি বেড়েই চলেছে,’ রিয়াবকভ বলেছেন।

মস্কো দেখতে পায় না যে ইউক্রেনে অস্ত্র সরবরাহের পরিসরে পশ্চিমের থামার কোনো লক্ষণ আছে। ‘পশ্চিমারা সর্বদা ভারী, দীর্ঘ-পাল্লার অস্ত্র সরবরাহের পরিসর সম্প্রসারণের সাথে এগিয়ে চলেছে। একই সাথে, তারা ছলনাময় এবং প্রতারণামূলকভাবে, ব্যাপকভাবে, একটি ধারণা তৈরি করার চেষ্টা করে যে একটি সীমান্ত রেখা রয়েছে, এই বিষয়ে একধরনের আত্মসংযম। আমরা সেরকম কিছু দেখতে পাচ্ছি না,’ রিয়াবকভ জোর দিয়েছিলেন। তিনি জোর দিয়েছিলেন যে, রাশিয়ান পক্ষ এ বিষয়ে দ্বিপাক্ষিক ক‚টনৈতিক কাজ পরিচালনা করছে, প্রাথমিকভাবে বন্ধুত্বহীন দেশগুলির সাথে, ‘এই পদক্ষেপগুলির পরিণতি সম্পর্কে তাদের সতর্ক করার জন্য।’ রিয়াবকভ বলেন, জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ হল এই ধরনের পশ্চিমা অভ্যাস প্রতিরোধের কেন্দ্রীয় প্ল্যাটফর্ম। সূত্র : তাস, আল-জাজিরা, রয়টার্স।

 

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (5)
Gajiul ahsan ৯ ডিসেম্বর, ২০২২, ৯:৩৪ এএম says : 0
পুতিন চাচ্ছে অজুহাত করে ন্যাটোর গোষ্ঠীর বার টা বাজানো
Total Reply(0)
স্বাধীনতার অতন্দ্র প্রহরী ৯ ডিসেম্বর, ২০২২, ৮:৪৪ এএম says : 0
পুতিন চেয়েছিলেন ২ টি অঞ্চল, পেয়েছেন ৪ টি, এটাতো মহা সফলতা!
Total Reply(0)
ইলিয়াছ পরিকোটি ৯ ডিসেম্বর, ২০২২, ৮:৪৪ এএম says : 0
রাশিয়ার জয় হোক
Total Reply(0)
Sree Kongsu Mogh ৯ ডিসেম্বর, ২০২২, ৮:৪৫ এএম says : 0
আমি আছি রাশিয়া সাথে
Total Reply(0)
Lutfor Miyah ৯ ডিসেম্বর, ২০২২, ৮:৪৫ এএম says : 0
রাশিয়া জয় হবে ইনশাআল্লাহ
Total Reply(0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন